সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:০১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

শাবিতে ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে শিক্ষকদের কর্মবিরতি কালোব্যাজ ও প্রতিবাদ র‌্যালী পালিত

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩১ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৩৩ Time View

সিলেট প্রতিনিধি- শাবিতে ছাত্রলীগের হাতে শিক্ষক লাঞ্চিতের প্রতিবাদে আধবেলা কর্মবিরতি , কালোব্যাজ ধারণ , প্রতিবাদ র‌্যালি এবং সমাবেশ কর্মসূচি পালন করেছে আন্দোলনরত মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষকরা ।
সোমবার সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেছেন সরকার সমর্থক ‘মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদ’। তবে চূড়ান্ত পরীক্ষা কর্মবিরতির আওতামুক্ত ছিল। কর্মবিরতির পাশাপশি সকাল থেকে ক্যালোব্যাচ ধারণ করেন তারা।
হামলার প্রতিবাদে সকাল ১১ টার পর টিচার্স ক্যান্টিন থেকে মৌন মিছিল বের করে ছাত্রলীগের হামলায় আক্রান্ত শিক্ষকরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপাচার্য ভবনের সামনে শেষ হয়।
প্রচণ্ড বৃষ্টি উপেক্ষা করে সেখানেই সমাবেশ করেন শিক্ষকরা।
সমাবেশে অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, আমি এই আন্দোলনে শারিরীকভাবে না থাকলেও মানসিকভাবে একশ’ ভাগ সমর্থন করি । আমার একজন ছাত্র একবার আমাকে বলেছিল আমিই বাংলাদেশের একমাত্র ব্যক্তি যাকে বিএনপি , জামায়াত , জাতীয় পার্টি, হেফাজত ,আওয়ামী লীগ , বাম সংগঠনগুলো একযোগে অপছন্দ করে । আমি যেখানে থাকব সেখানেই ঝামেলা হবে । সেইজন্য আমি এই আন্দোলনে শারীরিকভাবে দূরে সরে ছিলাম ।
কিন্তু গতকালের যে ঘটনা আমাকে দেখতে হলো তারপরে এখানে না আসলে অন্যায় হয়ে যায় । আমার এ জীবনে আমি অনেক কিছু দেখেছি , কিন্তু কালকের ঘটনার মতো কোনো ঘটনা যে আমাকে জীবনে দেখতে হবে তা কখনো কল্পনাও করিনি ।
শরীরেরআঘাতে কিছু আসে যায় না কিন্তু যে মানসিক আঘাত কোনোদিন ভালো হয় না । আমাদের ছাত্ররা আমাদের শিক্ষকদের গায়ে আঘাত করবে আর সেই দৃশ্য আমাকে বসে বসে দেখতে হয়েছে সেটা কখনো ভুলব না আমি ।
আমি সবার কাছে ক্ষমা চাই কারণ আমরা এখানে এমন কিছু ছাত্র সৃষ্টি করেছি যাদের ব্যবহার করা যায় যারা শিক্ষকদের গায়ে হাত তুলে । এই অপমান সহ্য করে এখানে থাকা ঠিক না, কিন্তু একবার এই সিদ্ধান্ত নেয়ার পরে যে নাটক সাজিয়েছিল ছাত্ররা তারপর এই সিদ্ধান্ত আমরা আর নিতে পারি না । কিন্তু এখন গেলে যে সরকার যুদ্ধাপরাধীর বিচার করে , তাদের ছাত্র সংগঠনের হাতে মাথা নিচু করে বিদায় নেয়া হবে ।
আন্দোলনরত শিক্ষক নেতা মো. ফারুক উদ্দিন বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫ বছরে সবচাইতে ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটাল ছাত্রলীগ । যার নেতৃত্বে ছিল ভিসি । ভিসির লেলিযে দেয়া পেটোয়া বাহিনীর হাতে শিক্ষকসমাজ লাঞ্চিত এর চেয়ে লজ্জাজনক কোন কিছু হতে পারে না ।
এছাড়া আরো বক্তব্য রাখেন- অধ্যাপক সৈয়দ সামসুল আলম , অধ্যাপক ইয়াসমিন হক, অধ্যাপক শরীফ মোহাম্মদ শরাফউদ্দিন , অধ্যাপক তুলসী কুমার দাস , অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম দিপু, আব্দুল্লাহ আল শোয়েব , এমদাদুল হক , মোস্তফা কামাল মাসুদ , আল আমিন রাব্বী , সৌরভ রায় প্রমুখ।
এদিকে হামলা প্রতিবাদে দুপুরে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা হামলায় জড়িতদের কঠোর শাস্তি ও বিচারের দাবি জানান।

সোমবার সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেছেন সরকার সমর্থক ‘মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদ’। তবে চূড়ান্ত পরীক্ষা কর্মবিরতির আওতামুক্ত ছিল। কর্মবিরতির পাশাপশি সকাল থেকে ক্যালোব্যাচ ধারণ করেন তারা।
হামলার প্রতিবাদে সকাল ১১ টার পর টিচার্স ক্যান্টিন থেকে মৌন মিছিল বের করে ছাত্রলীগের হামলায় আক্রান্ত শিক্ষকরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপাচার্য ভবনের সামনে শেষ হয়।
প্রচণ্ড বৃষ্টি উপেক্ষা করে সেখানেই সমাবেশ করেন শিক্ষকরা।
সমাবেশে অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, আমি এই আন্দোলনে শারিরীকভাবে না থাকলেও মানসিকভাবে একশ’ ভাগ সমর্থন করি । আমার একজন ছাত্র একবার আমাকে বলেছিল আমিই বাংলাদেশের একমাত্র ব্যক্তি যাকে বিএনপি , জামায়াত , জাতীয় পার্টি, হেফাজত ,আওয়ামী লীগ , বাম সংগঠনগুলো একযোগে অপছন্দ করে । আমি যেখানে থাকব সেখানেই ঝামেলা হবে । সেইজন্য আমি এই আন্দোলনে শারীরিকভাবে দূরে সরে ছিলাম ।
কিন্তু গতকালের যে ঘটনা আমাকে দেখতে হলো তারপরে এখানে না আসলে অন্যায় হয়ে যায় । আমার এ জীবনে আমি অনেক কিছু দেখেছি , কিন্তু কালকের ঘটনার মতো কোনো ঘটনা যে আমাকে জীবনে দেখতে হবে তা কখনো কল্পনাও করিনি ।
শরীরেরআঘাতে কিছু আসে যায় না কিন্তু যে মানসিক আঘাত কোনোদিন ভালো হয় না । আমাদের ছাত্ররা আমাদের শিক্ষকদের গায়ে আঘাত করবে আর সেই দৃশ্য আমাকে বসে বসে দেখতে হয়েছে সেটা কখনো ভুলব না আমি ।
আমি সবার কাছে ক্ষমা চাই কারণ আমরা এখানে এমন কিছু ছাত্র সৃষ্টি করেছি যাদের ব্যবহার করা যায় যারা শিক্ষকদের গায়ে হাত তুলে । এই অপমান সহ্য করে এখানে থাকা ঠিক না, কিন্তু একবার এই সিদ্ধান্ত নেয়ার পরে যে নাটক সাজিয়েছিল ছাত্ররা তারপর এই সিদ্ধান্ত আমরা আর নিতে পারি না । কিন্তু এখন গেলে যে সরকার যুদ্ধাপরাধীর বিচার করে , তাদের ছাত্র সংগঠনের হাতে মাথা নিচু করে বিদায় নেয়া হবে ।
আন্দোলনরত শিক্ষক নেতা মো. ফারুক উদ্দিন বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫ বছরে সবচাইতে ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটাল ছাত্রলীগ । যার নেতৃত্বে ছিল ভিসি । ভিসির লেলিযে দেয়া পেটোয়া বাহিনীর হাতে শিক্ষকসমাজ লাঞ্চিত এর চেয়ে লজ্জাজনক কোন কিছু হতে পারে না ।
এছাড়া আরো বক্তব্য রাখেন- অধ্যাপক সৈয়দ সামসুল আলম , অধ্যাপক ইয়াসমিন হক, অধ্যাপক শরীফ মোহাম্মদ শরাফউদ্দিন , অধ্যাপক তুলসী কুমার দাস , অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম দিপু, আব্দুল্লাহ আল শোয়েব , এমদাদুল হক , মোস্তফা কামাল মাসুদ , আল আমিন রাব্বী , সৌরভ রায় প্রমুখ।
এদিকে হামলা প্রতিবাদে দুপুরে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা হামলায় জড়িতদের কঠোর শাস্তি ও বিচারের দাবি জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24