বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বাসুদেব মন্দিরে তারকব্রহ্ম মহানামযজ্ঞ উপলক্ষে সন্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে সরকারি ভূমি থেকে ২৭টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ নেওয়ার খানের পিতার মৃত্যুতে জগন্নাথপুর বিএনপির শোক প্রকাশ জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জ ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ চিকিৎসক দ্বারা দুইদিন ব্যাপি ফ্রি ডেন্টাল মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে আটঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সিদ্দিক আহমদ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বই উৎসব অনুষ্ঠিত বিশ্বনাথে শিশুদের প্রতিবন্ধী হয়ে জন্ম নেওয়া এক গ্রামের গল্প জগন্নাথপুরে দুইবছরের দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসর থেকে ১০ জুয়াড়ি আটক

শিশুর আঙুল কর্তনকারী তাহিরপুরের সেই যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২২ মার্চ, ২০১৯
  • ২২৯ Time View

তাহিরপুর প্রতিনিধি::
বোরো ফসলরক্ষা বাঁধে উঠার অপরাধে তাহিরপুরের মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ইয়ামিন মিয়ার (৭) ডান হাতের চারটি আঙ্গুল কেটে দেয়ার ঘটনায় সেই বিতর্কিত যুবলীগ নেতা অদুদ মিয়া (৩৩) কে আটক করা হয়েছে।
বুধবার দুপুরে শিশু নির্যাতনকারী যুবলীগ নেতা অদুদ মিয়াকে উপজেলার সোলেমানপুর বাজার থেকে আটক করা হয়। এর পর বিকালে আদালতে হাজির করলেও তার জামিন শুনানী না হওয়ায় জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।
প্রসঙ্গত, গত বছরের ১৭ মার্চ শনিবার বিকালে সুলেমানপুর গ্রামের শাহানুর মিয়ার ছেলে শিশু ইয়ামিন গরুর ঘাস কাটার জন্য এলাকার মহালিয়া হাওরে যায়। বাঁধের উপর দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় পা পিছলে গড়িয়ে নিচে পড়ে যায় সে। এতে নির্মাণাধীন বাঁধের ড্রেসিং করা কাজের সামান্য ক্ষতি হয়। সেসময় (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) পিআইসির সভাপতি স্থানীয় ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি অদুদ মিয়া বিষয়টি দেখতে পেলে ইয়ামিনের হাতে থাকা কাস্তে কেড়ে নিয়ে তার হাতের ৪ টি আঙ্গুল কেটে দেয়। আহত ইয়ামিন মিয়াকে প্রথমে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে সুনামগঞ্জ সদর ও সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা করা হয়। সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান তার চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করে।
যুবলীগ নেতা কর্তৃক শিশুর চার আঙ্গুল কেটে দেয়ার ঘটনা নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়। আহত শিশু ইয়ামিন মিয়ার চিকিৎসাসহ সার্বিক খোঁজ খবর নিয়েছিলেন তৎকালীন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, পুলিশের আইজিপি, সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি, সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক তৎকালীন মো. সাবিরুল ইসলাম ও পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান।
এ ঘটনায় ১৯ মার্চ আহত শিশু ইয়ামিনের বাবা শাহানুর মিয়া বাদী হয়ে ঘটনার মূলহোতা অদুদ মিয়া ও তার ছোট ভাই আলম মিয়াকে আসামি করে তাহিরপুর থানায় মামলা করেন। পুলিশ আলম মিয়াকে আটক করে জেল হাজতে পাঠিয়েছিল। তবে উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে দীর্ঘদিন এলাকা ছাড়া ছিল ঘটনার মূল হোতা যুবলীগ নেতা অদুদ মিয়া। এঘটনায় পুলিশ অদুদ ও তার ভাই আলমকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। আলম মিয়া আদালত থেকে জামিনে থাকলেও অদুদ মিয়া দীর্ঘদিন পলাতক ছিল। গত বুধবার অদুদ মিয়া এলাকায় গেলে পুলিশ তাকে আটক করে আদালতে সোপর্দ করে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তাহিরপুর থানার এসআই আমির উদ্দিন বলেন,‘ শিশু ইয়ামিনের চার আঙ্গুল কেটে নেয়ার ঘটনার মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। আসামী অদুদ মিয়া প্রায় এক বছর পলাতক থাকার পর বাড়ি ফিরে আসলে বুধবার দুপুরে সোলেমানপুর বাজার থেকে তাকে আটক করা হয় এবং বিকালে আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালতে তার জামিন হয়নি। তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24