বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১০:২০ অপরাহ্ন

শিশুর মুখে গামছা বেঁধে ১৬০ বেত্রাঘাত!

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১২ আগস্ট, ২০১৭
  • ৩৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় চুরির অপবাদ দিয়ে কামরুন নাহার সুমাইয়া নামে এক শিশু ছাত্রীর মুখে গামছা বেঁধে অমানুষিক নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা সদরের খাদিজাতুল কোবরা (রা.) মহিলা কওমি মাদ্রাসার তিন শিক্ষিকা একই মাদ্রাসার ওই ছাত্রীকে নির্যাতন করেন।

নির্যাতনের পর আবাসিক হল থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় ছাত্রীকে উদ্ধার করে তার মা গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

নির্যাতিতা ওই ৮ বছর বয়সী শিশু ছাত্রী উপজেলার পশ্চিম শাওড়া গ্রামের সৌদি প্রবাসী মো. কামাল হোসেন বেপারীর মেয়ে।

সুমাইয়ার মা রেনু বেগম জানান, প্রায় সাড়ে তিন বছর পূর্বে তার একমাত্র শিশু কন্যা কামরুন নাহার সুমাইয়াকে ওই মাদ্রাসায় ভর্তি করা হয়। এরপর থেকেই তাকে (সুমাইয়া) মাসিক তিন হাজার টাকা চুক্তিতে মাদ্রাসার আবাসিক হলে রাখা হয়।

তিনি অভিযোগ করেন, শুক্রবার সকালে মাদ্রাসার এক ছাত্রী গোপনে তাকে ফোন করে জানায় মাদ্রাসার তিন নারী শিক্ষক সুমাইয়াকে বৃহস্পতিবার রাতে অমানুষিক নির্যাতন করেছে।

খবর পেয়ে তিনি সকাল ১০টার দিকে মাদ্রাসার আবাসিক হল থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় তার শিশু কন্যা সুমাইয়াকে উদ্ধার করেন।

এসময় মাদ্রাসার বড় খালামনি (সুপার) তাকে জানায়, অপর এক ছাত্রীর ১০০০ টাকা চুরির ঘটনায় সুমাইয়াকে শাসন করা হয়েছে। তবে কোন ছাত্রীর টাকা চুরি হয়েছে তা তিনি (সুপার) বলতে পারেননি।

নির্যাতিতা শিশু ছাত্রী সুমাইয়ার বরাত দিয়ে তার মা রেনু বেগম আরও অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে মাদ্রাসার সুপার (বড় খালামনি হিসেবে পরিচিত) ও মেঝ খালামনি এবং বাংলা খালামনি মিলে সুমাইয়ার মুখে গামছা বাঁধে। এরপর বড় খালামনির নির্দেশে মাদ্রাসার আবাসিক হলের মেঝ খালামনি গুনে গুনে তার মেয়েকে ৬০টি ও বাংলা খালামনি ১০০টি বেত্রাঘাত করেছে। এতে তার মেয়ে গুরুতর অসুস্থ হওয়ার পরেও তাকে (সুমাইয়া) রাতের খাবার দেয়া হয়নি।

খবর পেয়ে তিনি সকাল দশটার দিকে মাদ্রাসার আবাসিক হলে উপস্থিত হয়ে গুরুতর অবস্থায় তার শিশু কন্যা সুমাইয়াকে উদ্ধার করে গৌরনদী হাসপাতালে ভর্তি করেন।

অভিযোগের ব্যাপারে মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা জাহিদুল ইসলাম মোবাইলফোনে বলেন, মাদ্রাসার প্রধান সুপার (বড় খালামনি) আমার স্ত্রী। টাকা চুরির ঘটনায় ছাত্রী সুমাইয়াকে মাদ্রাসার ২ শিক্ষিকা বেত্রাঘাত করায় তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত ওই ২ শিক্ষিকাকে মাদ্রাসা থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তবে ওই ২ শিক্ষিকার নাম তিনি জানাতে পারেননি।

এ ব্যাপারে গৌরনদী মডেল থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। এ ঘটনায় এখনও কেউ থানায় অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24