মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

সুনামগঞ্জের ধোপাজান শাখা নদীতে চাঁদাবাজী বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০১৫
  • ৩৫ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা :সুনামগঞ্জের ধোপাজান শাখা নদীতে বালি পাথরবাহী ইঞ্জিন নৌকা, বলগেড ও কার্গোর অবৈধ অনুপ্রবেশ এবং চাঁদাবাজী বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন পালিত হয়েছে। সুনামগঞ্জ জেলা পরিবেশ সংরক্ষন পরিষদ, বারকি শ্রমিক সংঘ ও পাথরবালি ব্যবসায়ী সমিতিসহ এলাকাবাসীর উদ্যোগে বুধবার সকাল ১১টায় এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তারা বলেন, ১৪২২ বাংলা সনের ১লা বৈশাখ থেকে ইজারাবিহীন অবস্থায় পতিত রয়েছে জেলার জাতীয় রাজস্ব আদায়ের অন্যতম ক্ষেত্র ধোপাজান নদী বালি পাথর মহাল। সাবেক ইজারাদার তোফাজ্জল হোসেন ও তার গডফাদারের নেতৃত্বে একটি সিন্ডিকেট এই সরকারী খনিজ ও প্রাকৃতিক সম্পদ লুটপাটের মাধ্যমে সরকারকে রাজস্ব বঞ্চিত করার পাশাপাশি পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি সাধন করছে। তাদের চাঁদাবাজীর কারনে ধোপাজানের দুপাড়ে অবস্থিত শত শত বাড়িঘর, মসজিদ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, গণকবর ও হাজার হাজার একর ফসলী ভুমি নদীগর্ভে বিলীণ হয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন নামে কয়েকটি সংগঠনের নাম ধরে এই সিন্ডিকেটচক্র নৌ পরিবহন শ্রমিকদের মারধোর করে চাঁদা আদায় করছে। স্থানীয় ও জাতীয় গণমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর এবং পরিবেশ ধ্বংশকারী ড্রেজার-বোমা মেশিন ও বেপরোয়া চা^দাবাজী বন্ধের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসন সহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন শেষে একাধিক াভিযোগ ও স্মারকলিপিও দেয়া হয়েছে। তারপরও এসব বালিদস্যুদের গ্রেফতার করা হচ্ছেনা। এমনকি সরকারের স্বার্থে ব্যাবসায়ী জনতার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় চাঁদা আদায়কালে সন্ত্রাসী মনাইকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করার পরও এসআই পবিত্র কুমার সিনহা গ্রেফতার করে থানায় এনে সিন্ডিকেট চক্রের টাকায় বশিভূত হয়ে চাঁদাবাজ মনাইকে ছেড়ে দিয়েছেন। চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা পর্যন্ত এফআইআর করা হচ্ছেনা।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন জেলা পরিবেশ সংরক্ষন পরিষদের আহবায়ক আওয়ামীলীগ নেতা জসিম উদ্দিন দিলীপ, যুগ্ম আহবায়ক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আমির হোসেন রেজা, ব্যাবসায়ী একেএম আবু নাছার, টেলিভিশন শিল্পী আপ্তাব উদ্দিন, ব্যবসায়ী সদরুল ইসলাম ও মাজহারুল ইসলাম উকিল প্রমুখ। এ সময় বক্তারা বলেন, আমরা জান দেবো তবু কোনভাবেই পরিবেশের ক্ষতি করতে দেওয়া হবে না এবং ধোপাজান ও সুরমা নদীতে রয়েলটি আদায়ের নামে চাঁদাবাজী বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক ধোপাজান শাখা নদীর মুখে স্থাপিত যৌথবাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্প স্থায়ীভাবে স্থাপনেরও দাবী জানানো হয়। আগামী ৭ দিনের মধ্যে চাঁদাবাজ চক্রের গডফাদার জিয়াউল হক ও আত্মস্বীকৃত চাঁদাবাজ তোফাজ্জল সহ জড়িত সকলকে আটক করে আইনের আওতায় আনা না হলে তীব্র আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তোলা হবে বলে হুশিয়ারী উচ্চারণ করা হয়। তোফাজ্জল হোসেনকে অবৈধ ইজারাদার ও প্রপেশনাল মামলাবাজ উল্লেখ করে মানবন্ধনকারীরা আরো বলেন, তোফাজ্জল হোসেন ধোপাজান নদী পাইয়ে দেয়ার কথা বলে সুনামগঞ্জ শহরের তেঘরিয়া নিবাসী মরহুম কয়েস মিয়া সাহেবের পুত্র ব্যাবসায়ী আবুল হোসেনের সাথে প্রতারনামূলক প্রতিশ্রুতি ও টাকা আত্মসাৎ করলে প্রতারিত আবুল হোসেন তাকে ২ গালে ২টি করে ৪টি চপেটাঘাত করেন। সুনামগঞ্জ শহরের মোক্তারপাড়াস্থ ধোপাজান-সুরমা বালি পাথর ব্যাবসায়ী সমিতি লিঃ এর কার্যালয়ে প্রায় ৩ মাস আগের এক সন্ধ্যায় এ চপেটাঘাতের ঘটনার সময় প্রত্যেক্ষদর্শী এটিএম হায়দার বখত রবিনসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও জলমহাল পাইয়ে দেয়ার কথা বলে ইব্রাহিমপুর নিবাসী ফরিদ মিয়ার কাছ থেকে উক্ত তোফাজ্জল হোসেন ৪৫ হাজার টাকা নিয়েও জলমহাল এনে না দেয়ায় প্রতারিত ফরিদ মিয়া সালিশ বৈঠকের আয়োজন করেন। প্রায় ৫ বছর আগে অনুষ্ঠিত ঐ সালিশের সালিশী জসিম উদ্দিন দিলীপ প্রতারক তোফাজ্জল এর কাছ থেকে ৩৫ হাজার টাকা উদ্ধার করে দেন। কিন্তুএখনও প্রতারিত ফরিদ মিয়ার বাকী ১০ হাজার টাকা এখনও পরিশোধ করেনি সে। তোফাজ্জলকে কোন ধরনের রয়েলিটি বা চাঁদা না দেয়ার জন্য তারা নিরীহ বারকি শ্রমিক ও বালি পাথর ব্যাবসায়ীদের প্রতি আহবান জানান।
উল্লেখ্য উক্ত মানববন্ধনকে স্বাগত জানিয়ে মোবাইল ফোনে সমর্থন জানিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য এড.পীর ফজলুর রহমান মিছবাহ, মহিলা সংসদ সদস্য এড. শাহানা রব্বানী, সাবেক এমপি ও জেলা আ’লীগ সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান, জেলা পরিষদ প্রশাসক ব্যারিস্টার এম এনামুল করিব ইমন ও দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও সদর আ’লীগ সভাপতি হাজী আবুল কালামসহ আওয়ামীলীগ নেতৃবৃ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24