মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:২২ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জের হাসাউরা প্রাঃ বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের অবহেলায় ব্যাহত হচ্ছে ছাত্র ছাত্রীদের লেখাপড়া

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১০ মার্চ, ২০১৬
  • ১৫ Time View

মাছুম আহমদ ঃ সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার রঙ্গারচর ইউনিয়নের হাসাউরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের অবহেলার কারনে ব্যাহত হচ্ছে ছাত্র ছাত্রীদের লেখাপড়া। এই বিদ্যালয়ে শিক্ষক এবং শিক্ষিকা রয়েছেন মোট ৫জন। এর মধ্যে শিক্ষিকা ৪ জন এবং শিক্ষক ১জন। প্রতিদিন ৫ জনের মধ্যে ২/৩ জন অনুপস্থিত থাকেন। ঠিকমতো শিক্ষকদের অনুপস্থিতির কারনে ষ্কুলের ছাত্র ছাত্রীদের লেখা পড়ার কোন উন্নতি সাধন নেই। এ বছর সমাপনী পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেছে মোট ৬৮ জন,তন্মধ্যে পাশ করেছে ৫৫ জন। তাদের মধ্যে ভাল ফলাফল করেছে মাত্র ৪ জন। বাকী ছাত্র ছাত্রীরা বিশেষ বিবেচনায় পাশ করেছে। সম্প্রতি সরজমিনে গিয়ে উপস্থিত দেখা গেছে মাত্র দুইজন শিক্ষীকা ক্লাসে রয়েছেন। জিজ্ঞাসাবাদে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র/ছাত্রীরা তাদের নিজের শ্রেণীর নামটি পর্যন্ত শুদ্ধভাবে বানান করতে পারেনা। অন্যান্য শ্রেণী কক্ষের মধ্যেও কোন ছাত্র/ ছাত্রী শ্রেণী বানান করতে পারেনি। সরকারী নিয়মে শিক্ষকরা ৯টা ৩০ মিনিটে স্কুলে উপস্থিত থাকার কথা কিন্তু তারা ১০টা সাড়ে ১১টায় উপস্থিত হন এবং স্কুল ছুটি দেন ৩ টায়। ছাত্র/ ছাত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়,তাদেরকে কে পিটি পর্যন্ত করানো হয়না। এমনকি জাতীয় সংগীত পর্যন্ত গাওয়ানো হয়না। স্থানীয় হাসাউরা গ্রামের বাজারের দোকানদার স্বপন দাস বলেন,আমার বাচ্চাও এ বছর সমাপনী পরীক্ষা দিয়েছে। কোন ভাল ফলাফল করতে পারেনি এরকম অনেক ছাত্র/ ছাত্রীরা কোন ভাল ফলাফল করতে পারেনি। শিক্ষক শিক্ষিকারা ছাত্র/ ছাত্রীদের লেখা পড়ার প্রতি কোন রকম গুরুত্ব দিচ্ছেননা। তারা শুধু বেতন ভাতা হালালের জন্য মাঝে মাঝে স্কুলে আসে আর যায়। ছাত্র ছাত্রীদেরকে সঠিক জ্ঞানদানের প্রয়োজনটা তারা ঠিকমতো অনুধাবন করতে পারেননা বলে অনেক অভিভাবক মনে করেন। কোন কোন অভিভাবক জানান,আমাদের বাচ্চাদের প্রাইভেট পড়ানোর জন্য মাস্টাররা যখন চাপ সৃষ্টি করে তখন আমরা না খেয়েও টাকা যোগার করে দেই। তারা এগুলো সঠিক ভাবে না পড়িয়ে টাকাটা নিয়ে যায়। আমরা আমাদের বাচ্চাদের লেখা পড়া সঠিকভাবে হবে এটাই আশা করি । কিন্তু তার বিপরীত হচ্ছে,এভাবে যদি আমাদের বাচ্চাদের লেখাপড়া করানো হয় তাহলে তো তাদের কে মাঠে গরু চরাতে দেওয়াটাই ভাল। তারা সারাদিনে দুই একটা ক্লাস করিয়ে অফিসে বসে আলাপ আলোচনা করেন। বাজারের ডাক্তার মোঃ খোরশেদ আলম বলেন, ছাত্র/ ছাত্রীরা ক্লাস রেখে বাজারে এসে স্বাধীনভাবে ঘোরাফেরা করে। কিন্তু শিক্ষকরা এর কোন গুরুত্ব বা লক্ষ রাখেনা। এরকম যদি লেখা পড়ার অনিয়ম চলে তাহলে আমাদের বাচ্চারা কোথায় গিয়ে কি শিখবে। তাই আমাদের আবদার এর একটা বিহীত করা। বিশেষ করে স্কুলে শিক্ষকরা যাতে ভাল করে আমাদের বাচ্চাদের ভাল করে লেখাপড়া করান সেদিকে দৃষ্টি দেয়ার জন্য আমরা জেলা প্রশাসন ও শিক্ষা বিভাগের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24