বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০২:৩১ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জে আদালতের হিসাব শাখা থেকে ১৮ লাখ টাকা জালিয়াতি

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৫৫ Time View

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: জালিয়াতির মাধ্যমে সুনামগঞ্জ জেলা জজ আদালতের হিসাব শাখা থেকে অগ্রক্রয় মামলার প্রায় ১৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে একটি চক্র।

এই টাকা দু’জন আইনজীবীর ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে নগদায়ন হয়েছে। ওই দুই আইনজীবী ঘটনার কথা স্বীকার করে বলেছেন, ‘তারা ষড়যন্ত্রের শিকার, আদালতের হিসাব শাখায় তৎকালীন কর্মচারী (জারিকারক) আবদুছ ছোবহান কৌশলে এমন অপকর্মের সঙ্গে তাদের যুক্ত করেছেন। আবদুছ ছোবহান এখন অবসরে।

জালিয়াতি করে টাকা উত্তোলনের বিষয়টি অবগত হওয়ার পর সুনামগঞ্জ সদর আদালতের সিনিয়র সহকারী জজ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন টাকা উত্তোলনকারী আইনজীবীদ্বয় এবং তৎকালীন হিসাবরক্ষক বেনু চন্দ্র রায়কে ব্যাখ্যা প্রদানের জন্য বুধবার আদেশ দিয়েছেন। এই আদেশের অনুলিপি অবগতির জন্য বিজ্ঞ জেলা জজ বরাবরেও পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার এই বিষয়টি ছিল সুনামগঞ্জ আদালত প্রাঙ্গণের আলোচিত বিষয়।

সংশ্নিষ্ট আইনজীবীসহ একাধিক সূত্র থেকে জানা যায়, বিবিধ অগ্রক্রয় মামলা সোলেসূত্রে নিষ্পত্তি হয়। মামলা নিষ্পত্তির পর প্রতিপক্ষের আইনজীবী আলী আহমদ মূল আদালতে দরখাস্তের সঙ্গে পেমেন্ট অর্ডার দাখিল করেন। হিসাব শাখায় পেমেন্ট অর্ডার যাওয়ার পর পেমেন্ট অর্ডার রেজিস্টার পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ওই অগ্রক্রয়ের মামলাটি বিচারাধীন থাকা অবস্থায় অ্যাডভোকেট মাজাহারুল ইসলাম নামের একজন আইনজীবী হিসাব শাখায় সরকারি পেমেন্ট অর্ডার দাখিলক্রমে ওই মামলার চার লাখ ২০ হাজার টাকার চেক উত্তোলন করে নিয়েছেন। জেলা হিসাবরক্ষণ অফিস থেকে অ্যাডভোকেট মাজাহারুল ইসলাম চেক গ্রহণ করেছেন এবং নিজ ব্যাংক হিসাবে জমা দিয়ে তা নগদায়ন করেছেন। এভাবে একই পন্থায় বিবিধ অগ্রক্রয় মামলার টাকা জালিয়াতির মাধ্যমে তুলে নেওয়া হয় এবং অ্যাডভোকেট মাজাহারুল ইসলামের ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে নগদায়ন হয়।

এই বিষয়ে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাডভোকেট আলী আহমদ বলেন, ‘আমার একটি অগ্রক্রয়ের মামলার ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা জালিয়াতির মাধ্যমে তুলে নেওয়া হয়েছে। ২০১৫ সালে পিয়ন ছোবহানের সহযোগিতায় অ্যাডভোকেট মাজাহারুল ইসলাম তুলে নিয়েছেন। আমরা ফৌজদারি মামলা করব।’ এই মামলার প্রার্থী পক্ষের অ্যাডভোকেট স্বপন কুমার দাস রায় বলেন, ‘এ ঘটনায় তদন্তপূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি।’

অভিযুক্ত অ্যাডভোকেট মাজাহারুল ইসলাম বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। আইনজীবী হিসেবে কেবল দরখাস্ত করেছি। এই দরখাস্তের ভিত্তিতে চেক ইস্যু হয় এবং আমার ব্যাংক হিসাবে জমা হয়। পরে টাকা উত্তোলন করে পক্ষকে প্রদান করেছি। এখন দেখা যায় মামলার মীমাংসা হয়নি এবং হিসাব শাখার জারিকারক আবদুছ ছোবহান জালিয়াতির মাধ্যমে ভুল মানুষকে পক্ষ করে আমাকে এই অপকর্মের সঙ্গে যুক্ত করেছেন।’

অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, ‘আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। আমাকে হিসাব শাখার জারিকারক কৌশলে ব্যবহার করেছেন। স্বাক্ষর নিয়ে দুই লাখ ৩১ হাজার টাকার চেক আমার ব্যাংক হিসাবে জমা দিয়েছেন। কিন্তু টাকা তিনিই নিয়েছেন।’

অবসরপ্রাপ্ত জারিকারক আবদুছ ছোবহানের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24