সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

সুনামগঞ্জে দুবাই প্রবাসীর বিয়ে নিয়ে মহল বিশেষের তৎপরতায় কনেপক্ষ অসহায়

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০১৫
  • ৪৪ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : যৌতূক হিসেবে মোটর সাইকেল দেয়ার দাবী না মানায় সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় একটি বিবাহ ভেঙ্গে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, ২৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জ পৌর সভার নতুন হাছননগর আবাসিক এলাকার প্রান্তিক ৮৮ বাসভবনের বাসিন্দা জালাল উদ্দিনের পুত্র দুবাই প্রবাসী রেজু মিয়ার সাথে ছাতক উপজেলার জাউয়াবাজার ইউনিয়নের বড়কাপন গ্রামের ৬ সন্তানের পিতার কনিষ্ট কন্যার বিবাহের দিন ধার্য্য করা হয়। বিবাহ উপলক্ষ্যে গরু ক্রয়সহ ভাড়া করা হয় জাউয়াবাজারস্থ লক্ষমসোম গ্রামের ফাহিম কমিউনিটি সেন্টার। বরপক্ষকে দেয়ার জন্য ক্রয় করা হয় এক লক্ষ টাকার ফার্নিসার,ফ্রিজ ও টেলিভিশনসহ অন্যান্য সামগ্রী। ৩ মাস আগে বিবাহের দেনমোহর সাব্যস্ত করা হয় ২ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা। নির্ধারিত দিনে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করার জন্য এক সপ্তাহ আগে দুবাই থেকে বাড়িতে ফিরে আসেন বর। কিন্তু বরের পক্ষ থেকে যৌতূক হিসেবে কনে পক্ষের কাছে হঠাৎ করে মোটর সাইকেল দেয়ার দাবী করায় উভয় পক্ষের মধ্যে মনোমালিন্যর সৃষ্টি হয়। সরজমিনে বরের বাড়িতে গিয়ে বিবাহের গেইট ও আলোক সজ্জার প্রস্তুতি দেখা যায়। এতসব প্রস্তুতির পরও কেন বিয়ে হচ্ছেনা জানতে চাইলে বরের পিতা জালাল উদ্দিন ও চাচা আইনজীবী সহকারী আফরোজ মিয়াসহ উপস্থিত লোকজন জানান,গায়ে হলুদের জন্য কনে পক্ষকে দেয়া শাড়ি নিয়ে মৌখিক বাদানুবাদের জের ধরে তারা নিজ উদ্যোগে বিবাহ ভেঙ্গে দিয়েছেন। বরের বাড়িতে পাঠানো কাপড় চোপড় কনেপক্ষ এসে নিয়ে গেছেন। এছাড়া ফেইসবুকে বরপক্ষের বিরুদ্ধে মোটর সাইকেল চাওয়ার মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপন করে ০১৭২৩২৮৮৯৯৯ নং মোবাইল নাম্বার থেকে শাবি ছাত্র পরিচয়ধারী অজ্ঞাত এক যুবকের হুমকীর কারনে আমরা প্রানভয়ে বিবাহের সিদ্বান্ত থেকে সরে দাড়িয়েছি। অন্যদিকে কনে পক্ষের শাহেদ আলীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে জানা যায়, বরপক্ষের যৌতূকের দাবী পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ায় বিবাহের সকল আয়োজন সম্পন্ন ও বিশাল ব্যায়ের পরও তারা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। বরপক্ষের কারনে আমাদের অনেক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এখন আল্লাহর কাছে বিচার দেয়া ব্যতিত আমাদের সামনে আর কোন পথ নেই। বরপক্ষকে মোবাইলে হুমকীদানকারী ব্যক্তির সাথে কনেপক্ষের চেনাজানা নেই বলেও কনেপক্ষ চ্যালেঞ্জ করেছেন। বড়কাপন গ্রামের ইউপি সদস্যা হেপি বেগম ও বড়কাপন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুর রশিদ বলেন, মেয়েটিকে ভাল হিসেবে জেনে বুঝে বরপক্ষ আমাদের জ্ঞাতসারেই বিবাহের জন্য সম্মত হয়েছিলেন। আমরা কনের বাড়িতে এসে বিয়ের প্রস্তুতি দেখেছি। এখন বিবাহটি ভেঙ্গে যাওয়ায় তারা মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। বর্তমানে কনের বাড়িটিকে মৃত মানষের বাড়ির মতো মনে হচ্ছে। সারা বাড়িতে আনন্দের বদলে কান্নার আওয়াজ শুনা যাচ্ছে। মনে হচ্ছে সুযোগ সন্ধানী অতি উৎসাহী কোন কুচক্রীমহল অপপ্রচার ও গুজব ছড়িয়ে বিয়েটি ভেঙ্গে দিয়েছে। অন্যদিকে হুমকীদাতার বিরুদ্ধে বরপক্ষ থানায় জিডি দায়ের করেছেন বলে জানা গেছে। হুমকীদাতার মোবাইল ফোনে পরবর্তীতে একাধিকবার কল করেও সংযোগটি বন্ধ পাওয়া যায়। শেষ পর্যন্ত ঘটনাটি কোনদিকে মোড় নেয় সেদিকে দৃষ্টি এখন সকলের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24