মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০২:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আহত ৩ জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের উদ্যাগে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান জগন্নাথপুর আ,লীগের সন্মেলন কে স্বাগত জানিয়ে সৈয়দপুর বাজারে মিছিল জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সন্মেলন ১ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে ফের বুধবার থেকে ধর্মঘট, এলাকায় মাইকিং জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের থানায় মামলা জগন্নাথপুরে ভুয়া নাগরিক সনদপত্র সংগ্রহকারী ২৫ জন সনাক্ত জগন্নাথপুরে ফাঁদে পড়ে খাঁচায় বন্দি মেছোবাঘ সুনামগঞ্জে ওয়ার্ড-ইউনিয়ন সম্মেলন না করেই উপজেলা সম্মেলনের তারিখ ঘোষণায় দলের তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিক্রিয়া

সুনামগঞ্জে ভৌতিক টেলিফোন বিল : ১৯ বছর ধরে ন্যায় বিচারের জন্য লড়ছেন এক মুক্তিযোদ্ধা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৪৩ Time View

শামস শামীম ::
সুনামগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সদস্যসচিব ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মালেক হুসেন পীর টিএন্ডটির ‘ভৌতিক টেলিফোন বিলে’র মামলায় ন্যায় বিচারের জন্য দীর্ঘ ১৯ বছর ধরে লড়াই করছেন। এই মামলায় জেলার বিশিষ্ট আইনজীবী, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদরা আসামি হলেও তাদের অনেকেই হাল ছেড়ে দিয়েছেন। অনেকে প্রেস্টিজ ইসু্যুতে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সমঝোতাও করেছেন। কিন্তু হাল ছাড়েননি মালেক হুসেন পীর। দুর্নীতি, অনিয়মের বিরুদ্ধে যেভাবে নিজের সর্বস্ব খুইয়ে জনস্বার্থে লড়াই করেছেন সেভাবে নিজের অধিকারের জন্যও লড়াই করছেন। জানা গেছে, যে মামলায় নিজের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য লড়েছেন সেই মামলার কাগজপত্র আদালত থেকে গায়েব হয়ে গেছে! এখন এই গায়েব হওয়া কাগজপত্র উদ্ধারে আইনগত হস্তক্ষেপের জন্য লড়াইয়ে নামার ঘোষণা দিয়েছেন।
জানা গেছে, ১৯৮৮ সনে সুনামগঞ্জে টেলিফোনের ভৌতিক বিলকে কেন্দ্র করে একটি গ্রাহক সমিতি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বাস্তবের বিপরীতে ১০-১৫ গুণ বেশি বিল দেওয়ায় গ্রাহক সমিতির নেতারা জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় এ নিয়ে কথা বলেন। বিস্তর লেখালেখি হয় জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায়। ১৯৮৮ সনের গ্রাহকদের ওই সময় ৫০ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত বিল দেওয়া হতো। মালেক হুসেন পীরের ৩৮৮ নম্বর ফোনে এক মাসেই ওই সময় ১ লক্ষ ৫০ হাজার ৯৮৩ টাকা ভূতুড়ে বিল দিয়েছিল টিএন্ডটি কর্তৃপক্ষ। এই ভৌতিক বিলের বিরুদ্ধে ১৯৯০ সনে টেলিফোন গ্রাহক সমিতি আদালতে মামলা দায়ের করে। এর আগে সমিতি ১৯৮৯ সনের ১৫ এপ্রিল টেলিফোন বিভাগকে ভৌতিক বিলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছিল। টেলিফোন বিভাগ মালেক হুসেন পীরের কাছে ২ লাখ ৩৪ হাজার ৩৪৩ টাকা বিল পায় মর্মে ১৯৯৮ সনের ১০ মে ভূতুড়ে বিলের নোটিশ দেয়। তবে এক মাসের বিলই ছিল দেড় লাখ টাকারও উপরে। এই ভূতুড়ে বিলের বিরুদ্ধে শুরু থেকেই প্রতিবাদ করে আসছিলেন তিনি।
জানা গেছে, গ্রাহক সমিতি আপিল মামলায় হেরে যাওয়ার পর টেলিফোন বিভাগ আমলগ্রহণকারী প্রথম ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিবিধ ৬১/৯৮ ও বিবিধ ৬২/৯৮ স্বত্ত মামলা দায়ের করে। এই মামলায় মালেক হুসেন পীরসহ ৯ জনকে এবং বিবিধ ৬২/৯৮ মামলায় আরো ৫জনকে আসামি করা হয়। ১৯৯৮ সনের ১০ মে মালেক হুসেন পীর ভূতুড়ে টেলিফোন বিলের নোটিশ পান। ভূতুড়ে বিলের বিরুদ্ধে তিনি ১৯৯৮/১৬৯৩ হাইকোর্টে রিট পিটিশন দায়ের করেন। ২০১৫ সনের ৮ নভেম্বর মামলাটি খারিজ করে দেন হাইকোর্ট। এরপর মালেক হুসেন পীর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে সিভিল পিটিশন ফর লীভটু আপিল ১০৪০/২০১৬ হাইকোর্টের আদেশ স্থগিতের আবেদন করেন। এই সময়ে টেলিফোন বিভাগের ভূতুড়ে মামলার আসামি রমিন হায়দারও হাইকোর্টে ১৬৭২/৯৮ পৃথক মামলা দায়ের করেন। অপর আসামি দেওয়ান ইমদাদ রেজা চৌধুরীও হাইকোর্টে ৬২৩২/২০০৫ মামলা দায়ের করেন।
১৯৯০ সনে টেলিফোন বিভাগের ভূতুড়ে বিলের বিরুদ্ধে মামলার বাদীরা হলেন ওয়াকিফুর রহমান গিলমান, ইমদাদ রেজা চৌধুরী, জালাল আহমদ, মনজির আলী, মনোয়ার বখত নেক, মালেক হুসেন পীর, মনোহর মিয়া, গোলাম সরোয়ার, আব্দুর রশিদ, অ্যডাভোকেট সৈয়দ কবীর আহমদ, দিলীপ চৌধুরী, কমরুননূর, রমীন হায়দার, নূরজাহান বখত, সিরাজুল ইসলাম, জগদীশ চন্দ্র রায়, অ্যাডভোকেট আব্দুর রউফ, রফিক আহমদ, অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম চৌধুরী, রাবেয়া বারী চৌধুরী ও অ্যাডভোকেট জহুর আলী।
এদিকে সুপ্রিম কোর্টে আপিলের পর আপিলকারী মুক্তিযোদ্ধা মালেক হুসেন পীর জানতে পারেন বিবিধ ৬১/৬২ মামলার নথি আদালতে পাওয়া যাচ্ছেনা। মালেক হুসেন পীরের বিরুদ্ধে লেভিওয়ারেন্ট জারির পর তিনি আদালতে হাজির হয়ে নথি না পাওয়ায় বিবিধ ৬১/৯৮ মামলার জাবেদা নকলের জন্য ২০১৫ সনের ৫ সেপ্টেম্বর সুনামগঞ্জ আমলগ্রহণকারী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবেদন করেন। ২০১৫ সনের ১১ নভেম্বর আবেদনের প্রেক্ষিতে জানানো হয় এই নথি অন্য আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। নোটিশে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দায়েরের আবেদন জানানো হয়। ২০১৬ সনের ২০ এপ্রিল তথ্য অধিকার আইনে মালেক হুসেন পীর সুনামগঞ্জ টেলিফোন বিভাগে বিবিধ ৬২/৯৮ মামলার তথ্যের জন্য আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্টরা আবেদনকারীকে লিখিত জানান, বিচারাধীন বিষয়ে তথ্য সরবরাহ করা সম্ভব নয়। মালেক হুসেন পীর জানিয়েছেন তিনি তথ্য নিয়ে আবেদনের পর ৬১/৯৮ মামলার নথি পাওয়া গেলেও ৬২/৯৮ মামলার নথি গায়েব হয়ে গেছে।
২০১৬ সনের ১৪ মার্চ মালেক হুসেন পীর আমলগ্রহণকারী সদর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে লিখিতভাবে জানান, তিনি মুক্তিযোদ্ধা ভাতা হিসেবে প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর ৩০ হাজার টাকা পান। তাই তাকে এই ভূতুড়ে বিল পরিশোধের জন্য মানবিক কারণে তিন মাস অন্তর অন্তর ২ হাজার টাকা করে পরিশোধ করার আবেদন করেন। এই আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০১৭ সনের ৮ অক্টোবর ১৩ নং আদেশে বিচারক তাকে ৫ মাসে প্রতি কিস্তিতে ৫০ হাজার টাকা করে পরিশোধের আদেশ দেন।
মুক্তিযোদ্ধা মালেক হুসেন পীর বলেন, আমি শুরু থেকেই এই ভৌতিক টেলিফোন বিলের বিরুদ্ধে লড়াই করে আসছি। নি¤œ আদালত থেকে উচ্চ আদালত পর্যন্ত লড়াই করেছি। কিন্তু এখন জানতে পারছি আদালত থেকে মামলার নথিই গায়েব হয়ে গেছে। তিনি বলেন, আমি আদালতকে প্রতি মাসে প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর মুক্তিযোদ্ধা ভাতা হিসেবে (মাসিক ভাতা ১০ হাজার টাকা হিসেবে) ৩০ হাজার টাকা পাই। কিন্তু আদালত আমার আবেদনের প্রেক্ষিতে জানিয়েছেন আমি প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর ৪৫ হাজার টাকা করে পাই। আদেশে আরো উল্লেখ করেছেন আমি প্রতি মাসে ২হাজার টাকা করে খেলাপি বিল দিতে ইচ্ছুক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24