সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

সুনামগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা সম্পর্কে কটুক্তিকারী এসআই এমরানের শাস্তির দাবী জানালেন এডভোকেট আলী আমজাদ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০১৫
  • ১৭১ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার এসআই এমরান হোসেনের শাস্তি দাবী করেছেন,৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের যুদ্ধকালীন কোম্পানী কমান্ডার ও বিশিষ্ট আইনজীবী মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট আলী আমজাদ। ১৫ জুলাই বুধবার এক প্রেস বিবৃতিতে তিনি জানান,গত ১৪ জুলাই সুনামগঞ্জ সদর থানার কাইয়ারগাও গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আলীর বাড়িতে ২য় দফায় অভিযান পরিচালনা করতে গিয়ে এসআই এমরান মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সাথে আপত্তিজনক আচরনসহ মুক্তিযোদ্ধার মা সম্পর্কে অশ্লীল শব্দ বাক্য ব্যাবহার করে কটুক্তি করেছেন। যা স্থানীয় পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদটি দেখে তিনি এর প্রতিবাদ ও এস আই এমরানসহ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন। বিবৃতিতে এডভোকেট আলী আমজাদ বলেন,বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলার শ্রেষ্ট সন্তান। মৃত্যুর পর পুলিশ প্রশাসন তাদেরকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করবে এ সত্যটি গেজেট করে সকলকে অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু জীবদ্ধশায় বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় গোটা কতেক পুলিশ সদস্যরা মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের স্ত্রী সন্তানদের সাথে যেসব আচরন করছে তা কোনক্রমেই বরদাশত করা যায়না। কার স্বার্থে এসআই এমরান মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সাথে অসদাচরন করে এখনও বহাল তবিয়তে রয়েছেন সুনামগঞ্জবাসী তা জানতে চায়। জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট আলী আমজাদ বলেন,এসআই এমরানের আচরন শুধু রাষ্ট্রদ্রোহিতার সামিলই নয় বরং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী।
উল্লেখ্য এর আগে ধোপাজান নদীর অবৈধ ইজারাদার তোফাজ্জল হোসেন এর দায়েরকৃত এক অভিযোগে কন্সস্টেবল বারিক হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত এক পরিচিত গডফাদারের স্বার্থে সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি গাজী শাখাওয়াৎ হোসেনের নির্দেশে গভীর রাত ২টায় কাইয়ারগাও গ্রামে ১ম দফায় মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আলীর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তার পুত্র আনোয়ার হোসেন আনুকে আটক করেন এসআই এমরান। আটকের পর এসআই এমরান ও তার সাথে থাকা পুলিশ সদস্যদের বেদম মারপিঠের একপর্যায়ে এমরানসহ অপর এক পুলিশ সদস্যের হাতে কামড় বসিয়ে আনোয়ার হোসেন আনু পুলিশের পড়ানো হাতকড়া নিয়ে পালিয়ে যায়। দুইদিন পর পুলিশ একজন সোর্সের মাধ্যমে মোটা অঙ্কের টাকাসহ হাতকড়াটি উদ্ধার করে। কিন্তু চাহিতো ঘুষ নেওয়া ও হাতকড়া ফিরিয়ে দেয়ার পরও দ্বিতীয় দফায় অভিযান পরিচালনা করে মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে পরিকল্পিত নাশকতা চালানো হয় বলে ভূক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারবর্গ সাংবাদিকদের জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24