মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

সুনামগঞ্জ-৪ : আ.লীগের সভাপতি-সম্পাদক দু’জনই চান সদর আসন

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৭ জুলাই, ২০১৭
  • ২৯ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
সুনামগঞ্জ-৪ আসনে (সদর-বিশ্বম্ভরপুর) দলীয় মনোনয়ন নিয়ে আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ব্যরিস্টার এনামুল কবির ইমন। মনোনয়ন লড়াইয়ে ছাড় দেবেন না আ.লীগ জাতীয় কমিটির সদস্য ও জেলা কমিটির সাবেক সাধারণ পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুলও।
তবে এই আসনে জাতীয় পার্টির টিকেট নিয়ে গত নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ। জোটগত অথবা একক- যেভাবেই হোক আগামী নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন জেলা জাপার আহ্বায়কের দায়িত্বে থাকা মিসবাহ।
গতকাল বৃহস্পতিবার শহরের হাজীপাড়ার নিজ বাসায় আয়োজিত কর্মীসভায় সুনামগঞ্জ-৪ (সদর-বিশ্বম্ভরপুর) আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মতিউর রহমানকে প্রার্থী হওয়ার দাবি জানান সভা উপস্থিত দলটির বিভিন্ন ইউনিটের নেতা-কর্মীরা।
এ সময় মতিউর রহমান বলেন, ‘আমি আপনাদের দাবির কথা নেত্রীকে বলবো, যাতে আগামী নির্বাচনে দলীয় আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেন। কারণ এই আসনে অতীতে আমি সংসদ সদস্য ছিলাম এবং আপনাদের সহযোগিতা নিয়ে রেকর্ড পরিমাণ উন্নয়ন করেছি।’
সাবেক এমপি মতিউর রহমান আরো বলেন, ‘বিগত দুইটি জাতীয় নির্বাচনে মহাজোটের স্বার্থে জাতীয় পার্টিকে ছাড় দেয়া হয়েছে। এবার জেলা সদরের আসন আর কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। এখানে আ.লীগের প্রার্থী থাকবে। মাঠ পর্যায়ের সকল নেতা-কর্মীদের দাবিও এটি।’
তিনি আরো বলেন, ‘আমি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে সদর আসনে প্রার্থী নির্বাচনের কথা জিজ্ঞেস করেছিলাম। তিনি বলেছেন, ‘দেশের সকল জেলা সদরের আসনে থাকবে আওয়ামী লীগের প্রার্থী। আমাদের সদর আসনেও এবার আওয়ামী লীগের প্রার্থী থাকবে। জাতীয় পার্টির প্রার্থী দেয়া হবে না। গত ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে মহাজোট সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় পার্টি প্রার্থী মমতাজ ইকবাল বিজয়ী হন। পরে ২০০৯ সালের ১৭ এপ্রিল মমতাজ ইকবাল ইন্তেকাল করেন। এরপর ওই বছর ১৫ জুনের উপ-নির্বাচনে আমি নির্বাচিত হই। এরপর আরেক বার জাতীয় পার্টিকে এ সদর আসন দেয়া হয়েছিল। আমি মনের বলে এগিয়ে চলেছি আগের মতো। সুনামগঞ্জ-৪ আসন (সদর-বিশ্বম্ভরপুর) সাংসদ থাকাকালীন সময়ে আমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল স্থাপন করেছি এবং রাস্তা-ঘাটের অনেক উন্নয়ন করেছি। এবারও আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন।’
এর আগে গত রমজানে বিশ্বম্ভরপুরে আয়োজিত এক ইফতার মাহফিলে নৌকা নিয়ে নির্বাচন করবেন বলে জানান জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এনামুল কবির ইমন।
প্রসঙ্গত, দ্বিধা বিভক্ত জেলা আওয়ামী লীগে একপক্ষের নেতৃত্বে সভাপতি মতিউর ও অপরপক্ষে রয়েছেন সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন।
এদিকে, সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের বাইরেও জোরালোভাবে দলীয় টিকেটই চাইবেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আয়ূব বখত জগলুল। যদিও দলীয় গ্রুপিংয়ে জগলুল সভাপতি মতিউরের সঙ্গে আছেন।
দলীয় নেতা-কর্মীরা মনে করছেন, আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এই তিন নেতা একটি আসন থেকে দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচনের ঘোষণা দেওয়ার কারণে কর্মীরাও বহুধাবিভক্ত হয়ে পড়ছেন। শেষ মুহূর্তে নৌকা যার ভাগ্যেই জুটুক না কেন এই বিভক্তি কাটিয় ওঠে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আগামী নির্বাচনে লড়া বেশ কষ্টসাধ্য হতে পারে।
এদিকে অনুষ্ঠিত কর্মীসভায় সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালামের সভাপতিত্বে এবং আ.লীগ নেতা অ্যাডভোকেট শফিকুল আলমের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট আলী আমজদ, অ্যাডভোকেট আব্দুল করীম, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি মো. মহরম আলী, সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার বর্মণ।
এছাড়াও বক্তব্য রাখেন বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা আ.লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোবারক আলী, সদস্য গিয়াস উদ্দিন ডিলার, তৈয়বুর রহমান, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মিয়া, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. কামরুজ্জামান, সলুকাবাদ ইউপি সাধারণ সম্পাদক এখলাছুর রহমান, আ.লীগ নেতা সাইফুল ইসলাম, পলাশ ইউপি সভাপতি আমান উল্লাহ, ফতেপুর ইউপি’র প্রসূন কান্তি দাস, বাদাঘাট ইউপি’র নবাব মিয়া, সদর উপজেলা গৌরারং ইউপি সহ-সভাপতি রেজাউল করীম, শাহনুর মিয়া, জাহাঙ্গীরনগর ইউপি চেয়ারম্যান মোকশেদ আলী, সুরমা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুছ ছত্তার, ইউপি সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম, আ.লীগ নেতা শফিকুর রহমান, শাহ নুর মিয়া, কুরবাননগর ইউপি’র সাধারণ সম্পাদক সুবাস চন্দ্র দাস, আব্দুল কাদির প্রমুখ।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24