বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৭:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করতে হাঁস ও নগদ অর্থ বিতরণ সুনামগঞ্জে বিদেশী অস্ত্রসহ আটক ৪ হলিমপুর অনন্ত জিউর আখড়ার গুরুশ্রীল প্রভূপাদ জগদানন্দন দাস বৈষ্ণব মহারাজ পরলোকগমন দক্ষিণ সুনামগঞ্জে খিরা খাওয়া নিয়ে বিরোধে নিহত-১ প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে সরকার সবধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে : শিক্ষামন্ত্রী চীনে করোনাভাইরাসে মৃত্যু ১৩২ জনের, আক্রান্ত প্রায় ৬ হাজার জগন্নাথপুরে সোনা মিয়ার মৃত্যু শোক সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে জননী ক্রিকেট ক্লাবের বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল আজ জগন্নাথপুর বাজারের তরুণ ব্যবসায়ীর অকাল মৃত্যু জগন্নাথপুরের সামাজিক সংগঠন স্টুডেন্ট’স কেয়ার’র নতুন কমিটি গঠন

সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের মৃত্যু বার্ষিকী আজ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৮৪ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
বিশিষ্ট পার্লামেন্টারিয়ান, মুক্তিযোদ্ধা, সাবেক সাংসদ ও মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ ৫ ফেব্রুয়ারি। ২০১৭ সালের এই দিনে তিনি ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে পরলোকগমন করেন।
মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে তাঁর জন্মস্থান সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত স্মৃতি পরিষদ ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন দলীয় কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, স্মরণসভা, শোভাযাত্রা, প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ ও বিশেষ প্রার্থণার আয়োজন করেছে। সুনামগঞ্জের হাওর জনপদের মানুষ সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে বলতেন ‘ভাটি বাংলার নেতা’।
ষাটের দশকের উত্তাল রাজনীতি থেকে উঠে আসা বামপন্থি এই নেতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে। দীর্ঘ ৫৯ বছর রাজনীতি করেছেন দাপটের সঙ্গে। যে কোন জটিল বা কঠিন বিষয় হাস্যরসের মাধ্যমে বলার অসামান্য ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন তিনি। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে ৫ নং সেক্টরের অধীন টেকেরঘাট সাব সেক্টরে প্রথম সাবসেক্টর কমান্ডার এবং পরে সংগঠক, ১৯৭২ সালে সাংবিধানিক সংসদ সদস্য ছিলেন। দিরাই-শাল্লা থেকে পরপর অনেক বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।
বাবা চিকিৎসক দেবেন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত ও মা সুমতি বালা সেনগুপ্ত। তিনি দিরাই উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং সিলেট এমসি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে অনার্স গ্র্যাজুয়েট ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। পরে ঢাকা সেন্ট্রাল ল কলেজ থেকে এলএলবি ডিগ্রিও অর্জন করেন। দেশের এই প্রবীণ রাজনীতিক ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ছিলেন। তুখোর পার্লামেন্টারিয়ান সুরঞ্জিতের রাজনীতির শুরু বামপন্থী সংগঠনে। সাম্যবাদী দর্শনে দীক্ষা নিয়ে ছাত্রাবস্থায় রাজনৈতিক জীবন শুরু করা এই নেতা দীর্ঘ ৫৯ বছর দাপটের সঙ্গেই চলেছেন। তবে শেষ জীবনে রোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি বেশ দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন।
বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ১৯৪৫ সালের ৫ মে দিরাই উপজেলার আনোয়ারপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।
আইনে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। ‘ল’ পাসের পর কিছু দিন তিনি আইন পেশায় যুক্ত ছিলেন। ছাত্রজীবনে ছাত্র ইউনিয়নের পক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের ভিপি প্রার্থী হয়েছিলেন। ১৯৬৭ সালে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) পিকিং ও মস্কো ধারায় দুই ভাগ হলে মাওলানা ভাসানীর পক্ষ ত্যাগ করে সুরঞ্জিত অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের নেতৃত্বাধীন অংশে যোগ দেন। ১৯৭০-এর নির্বাচনে ন্যাপ থেকে বিজয়ী হন। পরে ন্যাপের ভাঙনের পর গণতন্ত্রী পার্টি প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৮৬ ও ১৯৯১- এর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে জয়ী হন।
পঞ্চম সংসদের সদস্য থাকাকালেই আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে প্রথমে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং পরে দলটির সভাপতিমন্ডলীর সদস্য হন। ১৯৯৬ সালের সংসদ নির্বাচনে সুরঞ্জিত সেন ভোটে হেরে গেলেও পরে হবিগঞ্জের একটি আসনে উপ-নির্বাচন করে তিনি বিজয়ী হন। ওই সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংসদ বিষয়ক উপদেষ্টা নিযুক্ত হন তিনি।
২০০১ ও ২০০৮ সালের নির্বাচনেও তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে মহাজোটের নিরঙ্কুশ বিজয়ের পর সুরঞ্জিতকে আইন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়। পরে ২০১১ সালের ২৮ নভেম্বর রেলমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন সুরঞ্জিত। সর্বশেষ ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের সম্মেলন তিনি পুনরায় উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মনোনীত হন। তিনি ছিলেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হলে তিনি আবারও আইন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্ব পালন করে গেছেন।
তাঁর মৃত্যুর পর সুনামগঞ্জ-২ আসনের (দিরাই ও শাল্লা) উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্ত্রী জয়া সেনগুপ্তা সাংসদ নির্বাচিত হন। সর্বশেষ গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে তিনি আবার সাংসদ হয়েছেন। সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ও জয়া সেনগুপ্তার একমাত্র ছেলে সৌমেন সেনগুপ্ত।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের এই দিনে সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ভোর ৪টা ২৯ মিনিটে রাজধানী ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আজ সকাল সাড়ে ১০ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের ২য় তলার জহুর হক মিলনায়তনে এক স্মরণ সভার আয়োজন করেছে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24