রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

সৌদি আদালতে বাংলাদেশিদের ১৫০০ মামলা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৫ জুলাই, ২০১৭
  • ২১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: সৌদি আরবের বিভিন্ন আদালতে বাংলাদেশিদের প্রায় ১৫০০ মামলা ঝুলে আছে। ক্ষতিপূরণের জন্য দায়ের করা এসব মামলার বেশির ভাগই সড়ক দুর্ঘটনা, কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনা এবং অগ্নি দুর্ঘটনা সংক্রান্ত। তবে এ তালিকায় প্রতিপক্ষের হাতে খুন, কাজ করার পরও উপযুক্ত বেতন না পাওয়া, ইন্স্যুরেন্স বা সার্ভিস বেনিফিট সংক্রান্ত মামলাও রয়েছে। পররাষ্ট্র ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, এসব মামলার সঙ্গে বাংলাদেশের হাজারও পরিবারের কান্না জড়িয়ে আছে। ওই সব পরিবারের স্বজনরা প্রবাসে তাদের সর্বস্ব হারিয়েছে বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু কোনো ক্ষতিপূরণ পায়নি। বিদেশের মাটিতে ঘটনাগুলো হওয়ায় ভিকটিমের পরিবার মামলা পরিচালনায় সরাসরি সম্পৃক্তও হতে পারছে না। এ অবস্থায় ‘অপেক্ষা’ আর সৌদি এবং বাংলাদেশ সরকারের করুণা ছাড়া তাদের সামনে বিকল্প কোনো পথ নেই বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। অবশ্য দীর্ঘ সময় ধরে ঝুলে থাকা এসব মামলার দ্রুত-নিষ্পত্তিতে উদ্যোগী হয়েছে সৌদি সরকার। এ নিয়ে চলতি মাসের মাঝামাঝিতে রিয়াদের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল ঢাকা সফর করে গেছে। প্রবাসী কর্মীদের বিশেষত বাংলাদেশের কর্মীদের দায়ের করা ক্ষতিপূরণ মামলা নিয়ে এই প্রথম সৌদি সরকার এমন উদ্যোগ নিয়েছে জানিয়ে সরকারের এক কর্মকর্তা মানবজমিনকে বলেন, ৫ সদস্যের সৌদি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন দেশটির ডিজি লিগ্যাল অ্যাফেয়ার্স অফ ফরেন মিনিস্ট্রি ফর কনস্যুলার অ্যাফেয়ার্স ড. মুহাম্মদ আবদুর রহমান আল শামারি। ওই দলে সৌদি সরকারের পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র এবং আইন মন্ত্রণালয়ের পদস্থ কর্মকর্তারাও অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। রিয়াদের প্রতিনিধিরা ঢাকায় পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র, আইন ও বিচার এবং প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ সরকারের ১৪ সদস্যের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বিস্তৃত আলোচনা করে গেছেন। সেই সময়ে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিবের দায়িত্বে থাকা (অতিরিক্ত সচিব) জাভেদ আহমদ বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। সরকারি কর্মকর্তা জানান, সৌদি প্রতিনিধি দলের তরফে ঢাকাকে বলা হয়েছে, দেশটির আদালতে ক্ষতিপূরণের কোনো মামলাই তামাদি হয় না, এটি যতই পুরনো হোক না কেন। তবে এসব মামলা নিষ্পত্তিতে অবশ্যই ভিকটিম বা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি বা তার পরিবারের মনোনীত যথাযথ প্রতিনিধি এবং বাংলাদেশ সরকার তথা সরকার নিযুক্ত আইন কর্মকর্তা বা প্রতিষ্ঠানের স্বপক্ষে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি হাজির করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সৌদি সরকারের তরফে এও বলা হয়েছে, এতদিন দেশটির বিচার ব্যবস্থা ম্যানুয়ালি চললেও এখন তারা অনেক ক্ষেত্রেই ডিজিটাল বা তথ্যপ্রযুক্তির নির্ভরতা বাড়াচ্ছেন। এতে ভিন দেশে বসেও অনেকে অনলাইনে সৌদি সরকারের জাস্টিজ ডিপার্টমেন্টের সঙ্গে প্রয়োজনীয় যোগাযোগ, তথ্যের আদান-প্রদান করতে পারবেন। যা মামলার জট খুলতে সহায়তা করবে। ঢাকার তরফে রিয়াদকে এ নিয়ে সর্বোচ্চ সহায়তার অঙ্গীকার করা হয়েছে। বলা হয়েছে দীর্ঘ সময় ধরে ঝুলে থাকা ওই মামলাগুলো পরিচালনায় নানামুখী সীমাবদ্ধতা ছিল। তথ্যের ঘাটতি থাকার বিষয়টি মোটা দাগে আলোচনায় এসেছে। এ নিয়ে উভয়ের দায়-দায়িত্ব রয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। অবশ্য ঢাকার তরফে তথ্যের ঘাটতি দ্রুত দূর করার জোর প্রচেষ্টা নেয়ার অঙ্গীকার করা হয়েছে। বলা হয়েছে, রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস এবং জেদ্দা কনস্যুলেটে আইন কর্মকর্তার সংখ্যা বাড়ানো হবে। প্রয়োজনে দেশটির কোনো আইনি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার চিন্তাও সরকারের রয়েছে। বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের দায়-দায়িত্ব প্রসঙ্গে পাওয়ার অব অ্যাটর্নি বা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তির উত্তরাধিকারীদের মতামত বিলম্বে প্রেরণের বিষয়টি আলোচনায় এসেছে। সৌদি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকে অংশে নেয়া ঢাকার এক কর্মকর্তা গতকাল মানবজমিনকে বলেন, আমাদের অনেক সমস্যা এবং সীমাবদ্ধতা রয়েছে সেটি দূর করার বিষয়ে সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সরকারের তরফে বিশেষত কয়েকটি সমস্যা চিহ্নিত করা হয়েছে।
ওই কর্মকর্তা বলেন, সৌদি আরবের বিভিন্ন প্রদেশ ও শহরের আদালতে মামলাগুলো থাকায় তা নিয়মিত ফলোআপে আমাদের সমস্যা হয়। দূতাবাস ও কনস্যুলেটে আইন সরহকারীর অপ্রতুলতা এবং ট্রান্সপোর্টসহ প্রয়োজনীয় লজিস্টিক না থাকার সমস্যাগুলো অন্যতম উল্লেখ করে তিনি বলেন, জরুরি ভিত্তিতে আইন সহকারী এবং আরবি ভাষায় দক্ষ আরও স্টাফ নিয়োগের চিন্তা রয়েছে সরকারের। ওই কর্মকর্তা বলেন, সমস্যা বহুমুখী। হত্যা মামলার ক্ষেত্রে নিহত ব্যক্তির সন্তান বালেগ বা প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত মামলা নিষ্পত্তি হয় না। সৌদি আইনেই সেখানে বাঁধা রয়েছে। এদিকে উল্লিখিত মামলাগুলোর বিষয়ে রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম বিভাগের তরফে ঢাকায় একটি অগ্রগতি প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। ওই প্রতিবেদন উদ্ধৃত করে এক কর্মকর্তা গতকাল মানবজমিনকে বলেন, ২০০৭ সালে কেবল সড়ক দুর্ঘটনায় ২৩টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ৪টি নিষ্পত্তি হয়েছে। বাকিগুলো এখনও চলমান। ২০০৭ থেকে ’১৭ পর্যন্ত গত ১০ বছরে কেবল সড়ক দুর্ঘটনায় ৯৯৫টি মামলা হয়েছে। কর্মস্থলে দুর্ঘটনায় ২০০৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত ১০৫ টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে নিষ্পত্তি হয়েছে মাত্র ৪৮টি। অগ্নি দুর্ঘটনায় ৪৮ মামলার মধ্যে গত ১০ বছর ধরে ৩৬টি নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে। ২৮ হত্যা মামলার ২৬টি ১০ বছর ধরে ঝুলে আছে বলে উল্লেখ রয়েছে দূতাবাসের প্রতিবেদনে।

সুত্র-মানব জমিন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24