বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:২৪ অপরাহ্ন

হযরত শাহজালাল (রঃ) এর মাজারের ওরসে ভক্তদের উপচেপড়া ভীড়

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৬
  • ১০৮ Time View

সিলেট প্রতিনিধি:: হযরত শাহজালাল (রঃ) এর মাজার প্রাঙ্গন এখন ‘লালে লাল- শাজালাল’, ‘নারায়ে তকবীর-আল্লাহু আকবার’ ইত্যাদি শ্লোগানে মুখরিত ওলীকুল শিরোমণি হযরত শাহজালাল (রঃ) এর মাজার প্রাঙ্গন। চারদিকে চলছে জিকির, মিলাদ এবং আধ্যাত্মীক গান।

সোমবার রাত থেকে শুরু হওয়া ৬৯৭তম ওরসে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত, এমন কি বিদেশ থেকে ও এসেছেন অনেক আশেকান।

মঙ্গলবার সারাদিন ছিল মাজারে আনুষ্ঠানিকভাবে গিলাফ প্রদান। বিভিন্ন স্থান থেকে ভক্তবৃন্দ মিছিল সহকারে এসে গিলাফ প্রদান করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী এবং অর্থমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ও গিলাফ প্রদান করেছেন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। তাদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্য সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান এবং মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক মেয়র বদর উদ্দীন আহমদ কামরান।

মঙ্গলবার বিকেলে সরজমিনে দেখা যায় লোকারণ্য মাজার প্রাঙ্গন। চৌহাট্টার সিভিল সার্জন অফিসের সামনে থেকে শুরু হয়েছে বিভিন্ন জিনিস পত্রের স্টল। এসব স্টলে আছে, আয়না চিরুনী চুলের ফিতা ফুলদানী হাতপাখাসহ বাচ্চাদের বিভিন্ন খেলনা।

মাজারের মূল গেটের পূর্ব প্রান্তে ব্যবসায়ীদের উদ্যোগে স্থাপন করা হয়েছে একটি অভিযোগ কেন্দ্র। এখান থেকে মাইকে বিভিন্ন ঘোষনা দেওয়া হচ্ছে। রাস্তায় জট না পাকানোই তার প্রধান।

মূল গেইটের বাইরে স্থায়ী পুলিশ বক্স। সেখানে দায়িত্ব পালন করছেন নারী এবং পুরুষ পুলিশ সদস্যরা। একজন কর্মকর্তা জানালেন এখনো কোন অঘটন ঘটেনি।

ভেতরে নারী এবং পুরুষ ভক্তবৃন্দ। বলতে গেলে পা ফেলার জায়গা নেই। কেউ বিশ্রাম নিচ্ছেন, কেউবা তসবিহ পড়ছেন।

মসজিদ এবং মহিলা ইবাদতখানার উপরে পুলিশ সদস্যদের সতর্ক পাহারায় দেখা যায়।

মাজারের উত্তর এবং পশ্চিমে স্থাপন করা হয়েছে আশেকানদের জন্য অস্থায়ী তাবু। শতাধিক তাবুতে দেখা গেল নারী পুরুষ নাচ গানে মশগুল।

মহিলা ইবাদতখানার উত্তরের খালি জায়গায় শিরণির মশলা বাটা হচ্ছে। সাদা পোষাকে সজ্জিত স্বেচ্ছাসেবকদের কাজ আগত দর্শনার্থীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে বেশ ভালোভাবেই।

পশ্চিম-উত্তর দিকের গেটে ও কাজ করছে নিরাপত্তা বাহিনী। এখানে এবং জামেয়া ক্বাসীমুল উলুম মাদ্রাসার সামনেও স্থাপন করা হয়েছে একটি অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প। এছাড়া মাজার কর্তৃপক্ষের নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবকদের ও দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়।

দরগা অফিসের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এবার শিরণির জন্য ৭৩টি গরু এবং ২ শতাধিক খাসী জবাই করা হচ্ছে। ২৫ চুলায় প্রায় হাজারখানেক ডেকচিতে রান্না করা হবে এ শিরণি।

বুধবার ফজরের নামাজ শেষে শিরণি বিতরনের জন্য মূল গেইটের বাইরে বিতরণ কেন্দ্র তৈরির কাজও শুরু করে দিয়েছেন মাজার কর্তৃপক্ষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24