সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৩:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে প্রতিবাদের ঝড় বইছে, পাথরই হাতিয়ার, নিহত ট্রাক চালক ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ,গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ফারুক হত্যা মামলায় এক রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম

হাওর রক্ষাবাঁধ দুর্নীতি মামলা- আসামি ঠিকাদার হান্নানকে নিয়ে আ.লীগ নেতা মিসবাহ সিরাজের ভারত সফর

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৪৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে হাওর রক্ষাবাঁধ দুর্নীতি মামলার আসামি। খোদ সরকারি আইন কর্মকর্তার সঙ্গে বিদেশ সফরে গেলেন। অথচ দুদক বলছে, মামলা দায়েরের পরই আসামিদের বিদেশ গমন রোধ করতে চিঠি দেয়া হয়েছে পুলিশকে।
কিন্তু সিলেট সীমান্ত এলাকায় থাকা ইমিগ্রেশন পুলিশ জানায়, কোনো চিঠিই তারা পায়নি! এ অবস্থায় মঙ্গলবার সিলেটের সরকারি আইন কর্মকর্তা (পাবলিক প্রসিকিউটর) ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. মিসবাহ উদ্দিন সিরাজের সঙ্গে বিনা বাধায় ভারতের শিলংয়ে যান ‘পলাতক’ আসামি পাউবোর ঠিকাদার সিলেট জেলা যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল হান্নান।
এঘটনায় গত বৃহস্পতিবার জাতীয় দৈনিক প্রথম আলো, দৈনিক যুগান্তর ও দৈনিক সমকাল পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।
হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতির ঘটনায় দুদকের দায়ের করা মামলায় ২১ নম্বর আসামি মেসার্স হান্নান এন্টারাইজের স্বত্বাধিকারী হান্নান আহমেদ। দুদকের মামলা এবং তামাবিল ইমিগ্রেশনে হান্নানের ভিন্ন নাম থাকলেও উভয় ঠিকানায় সিলেট নগরীর জালালাবাদ আবাসিক এলাকার ১০/৪ নম্বর বাসার বাসিন্দা বলে উল্লেখ রয়েছে।
প্রসঙ্গত, হাওরে ফসলহানির পর কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী শাল্লায় কৃষকদের আশ্বস্ত করেছিলেন, হাওরে এ ক্ষতির জন্য যারা দায়ী, তাদের কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। হাজার কোটি টাকার এ ফসলহানির ঘটনায় দুটি মামলা হয়েছে।
ফসল রক্ষাবাঁধ নির্মাণে দুর্নীতির অভিযোগে প্রথম মামলাটি দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। পরে সুনামগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির দায়ের করা মামলা আদালতের
নির্দেশে দুদকের মামলার সঙ্গে একীভূত করা হয়। মামলায় আসামি ১৩৯ জন। এ মামলায় তিন মাসে গ্রেফতার হয়েছে মাত্র তিনজন। বাকি ১৩৬ আসামির কেউ ধরা না পড়ায় দুদকের ভূমিকা নিয়েও ক্ষুব্ধ হাওরপারের কৃষকরা।
এবারের বোরো মৌসুমে সুনামগঞ্জের হাওরে বাঁধ ভেঙে ব্যাপক ফসলহানি ঘটে। জেলার ১৫৪টি হাওরের ফসল তলিয়ে যায়। এতে আবাদ হওয়া ২ লাখ ২৩ হাজার ৮২ হেক্টর জমির বোরো ধানের ৯০ ভাগ ফসল সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যায়।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের হিসাবে এতে জেলার ৩ লাখ ২৫ হাজার ৯৯০ কৃষক পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফসলহানির পরই বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। দুদকের তদন্ত কমিটি প্রাথমিকভাবে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়ায় ২ জুলাই সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) ১৫ কর্মকর্তা, বাঁধের কাজের ৪৬ জন ঠিকাদারসহ ৬১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে।
মামলার বাদী দুদকের প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. ফারুক আহমেদ। তিনি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার দায়িত্বেও রয়েছেন। আসামির তালিকায় পাউবোর ১৫ জন ছাড়া সুনামগঞ্জের ১৩, ঢাকার ৯, সিলেটের ৬, কুমিল্লার ৩, চট্টগ্রামের ২, মৌলভীবাজারের ২, সাতক্ষীরার ২, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, পটুয়াখালী, খুলনা, ময়মনসিংহ, হবিগঞ্জ, রাজশাহী, কুষ্টিয়া ও চুয়াডাঙ্গার একজন করে ঠিকাদার রয়েছেন।
সর্বশেষ মঙ্গলবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সিলেট জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাড. মিসবাহ উদ্দিন সিরাজের সঙ্গে ভারতের শিলংয়ে সস্ত্রীক সফরে যান মামলার অন্যতম ‘পলাতক’ আসামি আবদুল হান্নান। নিজের ফেসবুক পেজে সফরের ছবিও পোস্ট করেন হান্নান। সেখানে দেখা যায়, তামাবিল ইমিগ্রেশনে দলীয় নেতাকর্মীরা ফুল দিয়ে স্বাগত জানাচ্ছেন মিসবাহ উদ্দিন সিরাজকে আর তার পেছনে দাঁড়িয়ে আছেন হান্নান। এর পর ভারতে প্রবেশ করে ডাউকি ইমিগ্রেশনের সামনে দাঁড়িয়ে ছবি তুলে তা নিজের ফেসবুকে আপলোড করেন। সঙ্গে এক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘ভারতের মেঘালয় স্টেটে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, ফারজানা মিসবাহ, সাবিয়ান মিসবাহ, আমি এমএ হান্নান, নুরজাহান তাবাসসুম হান্নান, তহামিদ হান্নান।’
বুধবার আরও একটি স্ট্যাটাসে হান্নান এক ছবি দিয়ে লেখেন, ‘ভারতের শিলংয়ের সিটি হোটেলে নাশতার টেবিলে মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ পরিবার ও হান্নান পরিবার।’ এরপরই এ ছবি নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে। প্রশ্ন ওঠে, রাষ্ট্রীয় একজন আইন কর্মকর্তা কীভাবে দুর্নীতির মামলায় পলাতক এক আসামিকে নিয়ে বিদেশে যান।
সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, এটি কোনোভাবেই নৈতিকতার মধ্যে পড়ে না। এটিকে তিনি রাষ্ট্রীয় আইন কর্মকর্তার নৈতিক স্খলন বলে অভিহিত করেন।
মামলার বাদী এবং তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদক প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ফারুক আহমেদ গণমাধ্যমকে জানান, গ্রেফতার হওয়া তিনজনের মধ্যে দুই জন জামিন পেয়েছেন। বাকি সবাই পলাতক। তাদের ধরতে চেষ্টা চলছে। পলাতক আসামি বিদেশে গেলেন কীভাবে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোনোভাবেই যেতে পারেন না। মামলার পরই পুলিশকে আসামিদের বিদেশ গমন রোধে চিঠি দেয়া হয়েছে। তারপরও কীভাবে বিদেশে যান, তা তার বোধগম্য নয়। তিনি আবারও নতুন করে চিঠি দেবেন বলে জানান।
দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম জানান, একজন পাবলিক প্রসিকিউটর যদি জেনেশুনে পলাতক আসামিকে নিয়ে বিদেশ সফরে যান, তার বিরুদ্ধে আইন মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ করা উচিত। আইন মন্ত্রণালয় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
এ বিষয়ে মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ ভারতে থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। এদিকে তামাবিল ইমিগ্রেশন চেক পোস্টের ইনচার্জ উপপরিদর্শক আবদুল হান্নান চৌধুরী গণমাধ্যমকে জানান, মঙ্গলবার দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে হান্নান ইমিগ্রেশন শেষে ভারতে যান। তাদের কাছে তার মামলা এবং বিদেশ গমন রোধে কোনো নির্দেশনা ছিল না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24