1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ০৫:১৭ অপরাহ্ন
Title :

প্রসঙ্গ:মুজিববর্ষ

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৭ মার্চ, ২০২০
  • ১৫৫ Time View

বংগবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালে ১৭মার্চ গোপালগঞ্জের টুংগীপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। সে হিসেবে ১৭ মার্চ ২০২০ সাল হচ্ছে তাঁর জন্মের শতবর্ষ। জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ১৭ মার্চ ২০২০ থেকে ১৭ মার্চ ২০২১ সাল পর্যন্ত সময়কে “মুজিববর্ষ” হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। এই সারাটা বছর নানা রকম কর্মসূচি পালনের মাধ্যমে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে।
১০ জানুয়ারি ১৯৭২ সালে পাকিস্তানের বন্দীশালা থেকে মুক্ত হয়ে তিনি স্বাধীন বাংলাদেশে পা রাখেন। পূর্ণতা পায় আমাদের স্বাধীনতা। তাঁর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসকে স্মরণ করে ১০ জানুয়ারি ২০২০ থেকেই মুজিববর্ষের ক্ষণ গননা শুরু হয়েছে।
আমরা অত্যান্ত সৌভাগ্যবান যে, আমাদের জীবন কালেই সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাংগালী, বাংগালী জাতিসত্বা নির্মাণের প্রধান কারিগর, স্বাধীন বাংলার রূপকার, যার হাতে বাংগালী জাতি ধারণার বীজটি বপন হয়েছিলো, যিনি একটি ঘুমন্ত জাতিকে দ্রোহের চেতনায় উদ্ভাসিত করে স্বদেশ অন্বেষণে অনুপ্রাণিত করেছিলেন, বাংগালী মুসলমানের চিন্তা – চেতনায় বিবর্তনের ধারা সৃষ্টি করে স্বাধীনতার পটভূমিতে জীবন যাপনের রূপরেখা প্রনয়নের মাধ্যমে তাদের মধ্যে প্রত্যয় ও প্রত্যাশার নব জাগরণ সৃষ্টিতে এক অনন্য ভূমিকা পালন করেন- সেই মহাপুরুষ জাতির জনক বংগবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপিত ও পালিত হচ্ছে।
বংগবন্ধুর বাংলার রাজনীতিতে আগমনের মধ্য দিয়ে অমাবস্যার নিশীথে হঠাৎ সূর্যোদয়, বাংগালী জাতির এ যেন কাঁচা ঘুম ভেংগে জেগে উঠা। জেগে উঠার এই ঊষালগ্নে – জাতি চকিতে-চমকিত, রাজনৈতিক মানস বিশ্বাস অনুসারে কেউ বিমূঢ়, কেউ বিরক্ত, কেউ কৌতুহলী আবার কেউ আশাবাদী।
বংগবন্ধু এক আশ্চর্য মানুষ। জীবন প্রভাত থেকে মৃত্যু মুহুর্ত অবধি তিনি রাজনীতির নব নব পথে বাংগালী মুসলমানের সার্বিক মুক্তির পথ খুঁজেছেন। পাকিস্তান আন্দোলন থেকে ৫২ ভাষা আন্দোলন, ৫৪ যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন থেকে ৬৬ ছয়দফা, ৭০ এত নির্বাচন – সর্বত্রই বাংগালী মুসলমানের মুক্তির আলোক বর্তিকা নিয়ে পথ হেটেছেন। সেই পথ চলায় অনেক সময়ই তাঁকে নিঃসংগ ভাবে জাতিকে নেতৃত্ব দিতে হয়েছে। ৬ দফা দাবীতে কোন রাজনৈতিক দলের সমর্থন পাননি, ৭০ এর নির্বাচনেও অনেকেই শ্লোগান দিয়েছে ‘ভোটের বাক্সে লাথি মারো, সমাজতন্ত্র কায়েম করো।” তবুও তিনি নির্বাচনে গিয়েছেন, বিজয়ী হয়েছেন এবং শেষ পর্যন্ত স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছেন।
এই বাংলাদেশ আর বাংলাদেশের মানুষকে ঘিরে তাঁর কিছু স্বপ্ন ছিল। তিনি চেয়েছিলেন, ক্ষুধামুক্ত, দুর্নীতি মুক্ত ও অসাম্প্রদায়িক এক সোনার বাংলা। তাঁর সেই স্বপ্ন আজ বাংলাদেশে একটি স্থির চিত্র না হলেও অনেক ক্ষেত্রেই এখনো আমরা তাঁর বেশীর ভাগ স্বপ্নই বাস্তবায়ন করতে পারিনি।
“মানি ইজ নো প্রবলেম” রাজনীতির মাঠে এই দর্শনে বিশ্বাসীদের হাত ধরেই রাজনীতিতে মূল্যবোধের অবক্ষয়ের যে ধারার সূচনা হয়েছিল আজও তা বহমান। সেদিন রাজনীতিতে, সমাজের সর্বত্র দুর্বৃত্তায়নের যে অর্থনীতি চালু হয় তা জ্যামিতিক হারে বাড়তে বাড়তে এক নিয়ন্ত্রণ অযোগ্য দানবে পরিনত হয়েছে। যার ফলশ্রুতিতে ২০০১ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত পর পর পাঁঁচ বার বাংলাদেশ দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়। অথচ এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন উচ্চকন্ঠ। দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি অনেক কথা বলেছেন। তাঁর একটি ভাষণের কিয়দংশ নিম্নরূপ
” এত চোরের চোর, চোর কোথা থেকে যে পয়দা হয়েছে আমি জানিনা। পাকিস্তানে সব নিয়ে গেছে কিন্তু এই চোরটুকু তইয়া গেছে আমার কাছে। এই চোর নিয়া গেলে আমি বাঁচতাম। আজকে একটা প্রশ্ন আমার, এই যে দুর্নীতির কথা বললাম, আমার কৃষক দুর্নীতি করে? না। আমার শ্রমিক? না। তবে কে? ঘুষ খায় কারা? এই আমরা, যারা শতকরা ৫ জন লোক শিক্ষিত।আমাদের মধ্যে ঘুষখোর, দুর্নীতিবাজ। আমাদের চরিত্র সংশোধন করতে হবে। আত্মসমালোচনা করতে হবে।”
আমাদের একটা কথা বুঝতে হবে তাহলো- বংগবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে শুধু আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকেই হত্যা করার চেষ্টা হয়নি, চেষ্টা হয়েছিল আমাদের উন্নয়নের জয় রথ থামিয়ে দিতে, দুর্নীতির মহোৎসবের মাধ্যমে সমস্ত রকম মূল্যবোধকে ধ্বংস করে দিয়ে একটি স্বার্থপর, লোভী প্রজন্ম গড়ে তুলতে। তাদের সে প্রচেষ্টা অনেকটাই সফল হয়েছিল। তাই চেষ্টা করেও আজ শেখ হাসিনা দুর্নীতির রাশ নিয়ন্ত্রণে আনতে পারছেন না অনেক ক্ষেত্রেই।
এই মুজিববর্ষে প্রতিটি মানুষকে বংবন্ধুর সারা জীবনের রাজনীতি পাঠ করতে হবে। বুঝতে হবে তার রাজনৈতিক দর্শন।
তাঁঁর রাজনীতি ছিল ত্যাগের রাজনীতি। বাংগালীর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির আন্দোলনে তিনি তার যৌবন কাল কাটিয়েছেন কারাভ্যন্তরে, জীবন দিয়েছেন সপরিবারে। বিশ্ব রাজনীতির ইতিহাসে কোন নেতার ত্যাগের ইতিহাস এত করুন নয়। এ এক অনন্য, অদ্বিতীয় ও কালোত্তীর্ণ আত্মত্যাগ।
যাদের জন্য তাঁর এই ত্যাগ আজ তাদের দায় সেই ত্যাগের প্রতিদান দেয়া। তাঁর অসমাপ্ত কাজকে সমাপ্ত করার মাধ্যমে, তাঁর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানের মাধ্যমে।
তাই মুজিববর্ষ যেন কেবলমাত্র উদযাপনের উপলক্ষ না হয়। উদযাপনের সাথে সাথে আমরা যেন মুজিববর্ষকে পালনও করি। উদযাপনে আনন্দের শিহরণ থাকে আর পালনে থাকে আদর্শকে নিজের মধ্যে ধারণ ও পালন করার দায়বদ্ধতা। মুজিববর্ষে প্রতিটি মুজিব ভক্তের শপথ হোক দুর্নীতি ও দুর্নীতিবাজ মুক্ত বংগবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়।
যদি আমরা কোন রকম নতুন বিনিয়োগ ছাড়াই বর্তমান জি ডি পি গ্রোথ ১% বাড়াতে পারি তাহলেই বংবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মানের কাজ তরান্বিত করতে পারি। শুধু মাত্র দুর্নীতিকে অর্ধেক হ্রাস করতে পারলেই বর্তমান জিডিপি গ্রোথ ১% বেড়ে যাবে। অর্থনীতিবিদরা মনে করেন কেবলমাত্র দুর্নীতির কারনে আমাদের অর্থনীতিতে ২% জিডিপি গ্রোথ কম হয়।
আমরা যে যেখানে আছি সেখানে নিজ নিজ দায়িত্ব যদি সততা ও দায়ত্বশীলতার সহিত পালন করি, যদি দুর্নীতি দমন কমিশনকে আরো শক্তিশালী করতে পারি, জাতির জনক প্রনীত সংবিধানের ন্যায়পাল পদটি কার্যকর করতে পারি এবং সমাজের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে মূল্যবোধের শুদ্ধাচার প্রতিষ্ঠা করতে পারি তাহলে সমাজে দুর্নীতি কমতে বাধ্য।
তাছাড়া একটি জাতির উন্নতির চাবিকাঠি হচ্ছে শিক্ষা। দারিদ্র বিমোচনের লক্ষ্য পূরণে শিক্ষাই হচ্ছে প্রধান অবলম্বন। মেধা ও মননে আধুনিক এবং চিন্তা – চেতনায় প্রাগ্রসর একটি সুশিক্ষিত জাতিই একটি দেশকে উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছে দিতে পারে। দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনায় নিশ্চয়ই সরকার এ বিষয়গুলো ভাববেন। কিন্তু মুজিববর্ষে যদি সরকার নিম্নোক্ত কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়নে কার্যকর উদ্যোগ নেয় তাহলে সত্যিকার অর্থেই মুজিববর্ষ পালিত হবে।
১. মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুত প্রতিটি ঘরে ঘরে যদি বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া হয়।
২. মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রতিটি গৃহহীন পরিবারকে যদি সরকারের বা দলের পক্ষ থেকেও একটি করে ঘর দেয়া হয়।
৩. ন্যায়পাল পদে নিয়োগদান করা হয়।
৪. প্রতিটি মন্ত্রণালয় জনবান্ধন একটি কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে।
৫. প্রতিটি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত অধিদপ্তর বা পরিদপ্তর অটোমেশনের আওতায় নিয়ে আসা।
৬.কর্মকর্মচারীদের বিদেশ ভ্রমন নিরোতসাহিত করে দক্ষতা বৃদ্ধি সংক্রান্ত কর্মসূচি গ্রহণ এবং
৭. বংগবন্ধু সততা পুরস্কার প্রবর্তন।
সরকারের নীতিনির্ধারণী মহল এমনতর জনবান্ধব নানা কর্মসূচি শুরু করতে পারেন যা অবশ্যই মুজিববর্ষেই সম্পন্ন করতে হবে।
পরিশেষে কবি গুরুর সেই সতর্ক বাণী দিয়েই শেষ করতে চাই
” আমরা আরম্ভ করি, শেষ করিনা; আড়ম্বর করি, কাজ করিনা; যাহা অনুষ্ঠান করি, তাহা বিশ্বাস করিনা; যা বিশ্বাদ করি, তাহা পালন করিনা।”
অন্ততঃ মুজিব বর্ষে বংগবন্ধুকে ঘিরে যা কিছু হবে তাতে যেন কবিগুরুর উপরোক্ত পংক্তিমালা সত্য প্রমানিত না হয়।
সেই মহামানবের জন্ম শতবার্ষিকীতে আমার বিনম্র শ্রদ্ধা।
মনোরঞ্জনতালুকদার
সহকারী অধ্যাপক
জগন্নাথপুর সরকারি কলেজ
e-mail-formonoranjan@gmai. com

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Customized By BreakingNews