1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
আল্লাহ কোনো কিছু অনর্থক সৃষ্টি করেননি - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন

আল্লাহ কোনো কিছু অনর্থক সৃষ্টি করেননি

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০২২
  • ১৪৪ Time View

মহান আল্লাহ বলেন, ‘আকাশ ও পৃথিবী এবং মধ্যভাগে যা রয়েছে আমি তা ক্রীড়াচ্ছলে সৃষ্টি করিনি। আমি তা ক্রীড়ার উপকরণ হিসেবে গ্রহণ করতে চাইলে আমার কাছে যা আছে তাই গ্রহণ করতাম, আমি তা করিনি।’ (সুরা আম্বিয়া, আয়াত : ১৬-১৭)
তাফসির : আলোচ্য আয়াতে নভোমণ্ডল ও ভূমণ্ডল সৃষ্টির পেছনে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যের কথা বিবৃত হয়েছে। বিশাল সৃষ্টিজগৎ শুধু ক্রীড়া-কৌতুক ও উপভোগের স্থান বলে মনে করেছিল কাফিররা। তাদের কঠিন ধমকি দিয়ে আল্লাহ বলেন, ‘আমি আকাশ-পৃথিবী ও এর মধ্যবর্তী কোনো কিছুই অনর্থক সৃষ্টি করিনি, কাফিরদের ধারণাই এমন। সুতরাং কাফিরদের জন্য রয়েছে জাহান্নামের দুর্ভোগ।’ (সুরা সাদ, আয়াত : ২৭)
পবিত্র কোরআনের অসংখ্য আয়াতে মানুষ সৃষ্টির লক্ষ্য-উদ্দেশ্য সম্পর্কে সতর্ক করা হয়েছে। পার্থিব জীবনে শুধু পানাহার ও আনন্দ-উল্লাসে লিপ্ত থাকা ব্যক্তিদের উদ্দেশে মহান আল্লাহ বলেন, ‘তোমরা কি মনে করেছিলে যে আমি তোমাদের অনর্থক সৃষ্টি করেছি এবং তোমরা আমার কাছে প্রত্যাবর্তিত হবে না? মহিমান্বিত আল্লাহ যিনি প্রকৃত মালিক, তিনি ছাড়া কোনো স্রষ্টা নেই, তিনি সম্মানিত আরশের অধিপতি।’ (সুরা মুমিনুন, আয়াত : ১১৫-১১৬)। অন্যত্র ইরশাদ হয়েছে, ‘মানুষ কি মনে করে যে তাকে নির্থক ছেড়ে দেওয়া হবে?’ (সুরা কিয়ামা, আয়াত : ৩৬)

ইহকালে সৃষ্টিকর্তার নির্দেশনা মান্য না করে শুধু পানাহার ও উপভোগে লিপ্ত থাকাকে পশুর জীবন হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। পরকালে জাহান্নাম হবে তাদের চিরস্থায়ী ঠিকানা। ইরশাদ হয়েছে, ‘আর যারা কুফুরি করে তারা ভোগ-বিলাসে মত্ত থাকে এবং জন্তুর মতো উদর পূর্তি করে, আর জাহান্নামই তাদের নিবাস।’ (সুরা মুহাম্মদ, আয়াত : ১২)
মহান আল্লাহ পার্থিব জীবনের ভালো ও মন্দ কাজের জন্য প্রতিদানের ব্যবস্থা করেছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘আকাশমণ্ডলীতে যা আছে ও পৃথিবীতে যা আছে তা একমাত্র আল্লাহর, যারা মন্দ কাজ করে তিনি তাদের মন্দ ফল দেন এবং যারা ভালো কাজ করে তিনি তাদের উত্তম পুরস্কার দেন।’ (সুরা নাজম, আয়াত : ৩১)
পার্থিব জীবন পরকালীন মুক্তির জন্য পরীক্ষাক্ষেত্র। এখানে ভালো ও মন্দ কাজের সুযোগ আছে এবং পরকালে এসবের জন্য পুরস্কার দেওয়া হবে। ইরশাদ হয়েছে, ‘আর তিনিই আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবী ছয় দিনে সৃষ্টি করেছেন, তখন তার আরশ ছিল পানির ওপর, তোমাদের মধ্যে কে কাজে শ্রেষ্ঠ তা পরীক্ষা করার জন্য, আপনি যদি বলেন মৃত্যুর পর তোমরা অবশ্য পুনরুত্থিত হবে তখন যারা কাফির তারা বলবে, এটা তো স্পষ্ট জাদু।’ (সুরা হুদ, আয়াত : ৭)

স্ত্রী ও সন্তান-সন্তুতি গ্রহণ করে পার্থিব ক্রীড়া-কৌতুকে লিপ্ত হওয়া মহান আল্লাহর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। যেমন ঈসা (আ.) ও উজাইর (আ.)-কে আল্লাহর পুত্র বলে খ্রিস্টানদের অনেকে মনে করে। যদি তিনি এসবের ইচ্ছা করতেন তাহলে মানুষের মধ্য থেকে নয়; বরং নিজের পক্ষ থেকেই গ্রহণ করতেন। কিন্তু বিশ্বজগতের প্রতিপালকের ক্ষেত্রে তা শোভনীয় নয়। ইরশাদ হয়েছে, ‘আপনি বলুন, আল্লাহ এক অদ্বিতীয়। আল্লাহ কারো মুখাপেক্ষী নন, সবাই তাঁর মুখাপেক্ষী। তিনি কাউকে জন্ম দেননি এবং তাঁকেও জন্ম দেওয়া হয়নি। এবং তাঁর সমকক্ষ কেউ নেই।’ (সুরা ইখলাস, আয়াত : ১-৪)
সৌজন্যে কালের কণ্ঠ





শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com