1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
খরচে মধ্যপন্থা অবলম্বনের গুরুত্ব - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৩:০৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

খরচে মধ্যপন্থা অবলম্বনের গুরুত্ব

  • Update Time : সোমবার, ১৯ জুন, ২০২৩
  • ৮৪ Time View

অর্থ-সম্পদ মহান আল্লাহর দান। মহান আল্লাহ মানুষকে এগুলো দেওয়ার পাশাপাশি এগুলো পরিচালনা করার বিভিন্ন নির্দেশনা দিয়েছেন। কোনো ব্যক্তি যদি তার অর্থ-সম্পদ কোরআন-হাদিসের নির্দেশনা মেনে পরিচালনা করে, তাহলে এই অর্থ-সম্পদ তার দুনিয়া ও আখিরাতের শান্তি ও মুক্তির মাধ্যম হতে পারে। আর যদি তা না করা হয়, তাহলে দুনিয়াতে যেমন অনিয়ন্ত্রিত খরচের কারণে কষ্ট পেতে হবে, তেমনি অপাত্রে খরচের কারণে আখিরাতেও জবাদিহি করা কঠিন হবে।

তাই আমাদের উচিত, অর্থ-সম্পদ পরিচালনায় কোরআন-হাদিসের নির্দেশনা মেনে চলা। অপচয়, অপব্যয় এবং কৃপণতা থেকে বিরত থাকা। কারণ এই দুটোই মানুষের রিজিকের বরকত তুলে নেয়। মানুষকে বিপদে ফেলে।

বর্তমানে মানুষ যে কঠিন সময় অতিবাহিত করছে, এই সময় তো এই বিষয়গুলো মেনে চলা আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ। 

পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ বলেন, ইরশাদ হয়েছে, ‘হে আদম সন্তান, প্রত্যেক সালাতের সময় সুন্দর পোশাক পরিচ্ছদ গ্রহণ করো, আর খাও এবং পান করো। তবে অপব্যয় ও অমিতাচার করবে না, নিশ্চয়ই আল্লাহ অপব্যয়কারীদের ভালোবাসেন না।’ (সুরা : আরাফ, আয়াত : ৩১)

অন্য আয়াতে ইরশাদ হয়েছে, ‘আর তিনিই সৃষ্টি করেছেন এমন বাগানসমূহ, যার কিছু মাচায় তোলা হয় আর কিছু তোলা হয় না এবং খেজুরগাছ ও শস্য, যার স্বাদ বিভিন্ন রকম, জয়তুন ও আনার, যার কিছু দেখতে এক রকম, আর কিছু ভিন্ন রকম।

তোমরা তার ফল থেকে আহার করো, যখন তা ফল দান করে এবং ফল কাটার দিনেই তার হক দিয়ে দাও। আর অপচয় করো না। নিশ্চয়ই তিনি অপচয়কারীদেরকে ভালোবাসেন না।’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ১৪১) 

আরেক আয়াতে আরো শক্ত ভাষায় বলেছেন, ‘আর আত্মীয়-স্বজনকে তাদের প্রাপ্য অধিকার দাও এবং মিসকিন ও মুসাফিরদেরও, আর অপব্যয়ে অপচয় করো না। অপচয়কারীরা শয়তানের ভাই; আর শয়তান তো তার প্রতিপালকের প্রতি অকৃতজ্ঞ।

’ (সুরা : বনি ইসরাঈল, আয়াত : ২৬-২৭) 

ওপরের আয়াতগুলোতে মহান আল্লাহ তাঁর বান্দাদের তাঁর দেওয়া রিজিক থেকে প্রয়োজনমতো খাওয়া ও পান করা এবং সামর্থ্য অনুযায়ী উত্তম পোশাক পরিধানের নির্দেশ দিয়েছেন এবং পাশাপাশি মানুষের উপার্জিত অর্থ সম্পদে যে মিসকিনের হক রয়েছে, সে ব্যাপারে সতর্ক করেছেন। উপার্জনের নির্দিষ্ট অংশ মিসকিনদেরও দান করতে হবে। দান-খয়রাত বিলাসিতা নয়, দান-খয়রাত মহান আল্লাহর নির্ধারণ করে দেওয়া অধিকার। মিতব্যয়ী হওয়ার নামে দান-খয়রাত এড়ানোর কোনো সুযোগ নেই।

আর মানুষ নিজের জন্য যা খরচ করবে, তার খাবারে হোক কিংবা পোশাকে, তাতে যেন কোনো অহংকারের অনুপ্রবেশ না ঘটে, তা খেয়াল রাখতে হবে। মানুষের দৈনন্দিন প্রয়োজনের সঙ্গে যখন অহংকার মিশ্রিত হয়ে যায়, তখন তা মানুষকে অপরাধের দিকে ঠেলে দেয়। তার চাহিদা বাড়িয়ে দেয়। আল্লাহর নাফরমানিতে লিপ্ত করে। এ জন্য নবীজি (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা পানাহার করো, দান-খয়রাত করো এবং পরিধান করো, যাবৎ না তার সঙ্গে অপচয় বা অহংকার যুক্ত হয়।’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ৩৬০৫)

এর মানে হলো খরচের ক্ষেত্রে অবশ্যই মধ্যপন্থা অবলম্বন করতে হবে। কোনো অবস্থাতেই অপাত্রে খরচ করা যাবে না, যে পথে খরচ করলে আল্লাহ অসন্তুষ্ট হন, সে পথে খরচ করা যাবে না। আবার খরচে এতটা সংকীর্ণ হওয়া যাবে না যে তা কৃপণতার পর্যায়ে পড়ে যায়। ইরশাদ হয়েছে, ‘আর তুমি তোমার হাত তোমার ঘাড়ে আবদ্ধ রেখো না এবং তা পুরোপুরি প্রসারিত করো না, তাহলে তুমি নিন্দিত ও নিঃস্ব হয়ে বসে পড়বে।’ (সুরা : বনী ইসরাঈল, আয়াত : ২৯)

মহান আল্লাহ আমাদের অপচয় থেকে দূরে থাকার তাওফিক দান করুন।

সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com