1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
জগন্নাথপুরের মেয়ে আইএস শামীমার যুক্তরাজ্যে ফেরার আপীল খারিজ - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০২:০৯ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরের মেয়ে আইএস শামীমার যুক্তরাজ্যে ফেরার আপীল খারিজ

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ২০২ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক-
২০১৫ সালে ১৫ বছর বয়সে লন্ডন থেকে সিরিয়ায় গিয়ে আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটে (আইএস) যোগ দেওয়া বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত শামীমা বেগম তাঁর ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল করার সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আবেদন (আপিল) করেছিলেন। যুক্তরাজ্যের একটি আদালত তাঁর এ আপিল খারিজ করে দিয়েছেন।
স্থানীয় সময় বুধবার বিচারক রবার্ট জে শামীমা বেগমের আপিল খারিজ করে দেন। শামীমা বেগমের ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল করার সরকারি সিদ্ধান্ত বৈধ বলেও রায় দিয়েছেন আদালত। তবে শামীমা যুক্তরাজ্যে ফিরতে পারবেন কি না, এ সিদ্ধান্ত দেননি। এর আগে গত নভেম্বরে এ নিয়ে আদালতে পাঁচ দিন শুনানি হয়েছিল।
শামীমার আপিল আবেদন খারিজ করে যুক্তরাজ্যের স্পেশাল ইমিগ্রেশন আপিলস কমিশনের (এসআইএসি) বিচারক রবার্ট জে বলেছেন, ‘আমাদের সংবিধান অনুযায়ী, (শামীমার নাগরিকত্ব ফেরত দেওয়ার) এসব সংবেদনশীল বিষয় স্পেশাল ইমিগ্রেশন আপিলস কমিশন নয়; বরং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মূল্যায়ন করে সিদ্ধান্ত নেবেন।’
পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিন একাডেমির ছাত্রী শামীমা বেগম ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাঁর আরও দুই বান্ধবীসহ সিরিয়ায় যান। সিরিয়ায় যাওয়ার পরে শামীমা আইএসে যোগ দেন। এরপর তিনি ডেনমার্কের বংশোদ্ভূত এক ধর্মান্তরিত ‘জিহাদি’কে বিয়ে করেন। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় আল—হওর শরণার্থীশিবিরে শামীমার দেখা পান এক ব্রিটিশ সাংবাদিক। তখন শামীমা অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। সাক্ষাৎকারে তিনি সন্তান জন্ম দিতে যুক্তরাজ্যে ফিরে আসার আকুতি জানান।
২০১৯ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাজ্যের তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে শামীমার ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল করেন। পরের মাসে শামীমা বেগমের নবজাতক সন্তানের মৃত্যু হয়। তখন তিনি সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে একটি শরণার্থীশিবিরে ছিলেন। এরপর আরও জানা যায়, শামীমা বেগম এর আগেও দুই সন্তানের জন্ম দিয়েছিলেন। একাধিক ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, তাঁর আগের দুই সন্তানেরও খুব কম বয়সেই মৃত্যু হয়।
ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিলের সে সরকারি সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করেন শামীমা বেগম। এরপর তিনি যুক্তরাজ্যে ফিরে মামলা লড়ার জন্য সরকারের কাছে আবেদন করেন। তবে ২০১৯ সালের জুনে ব্রিটিশ সরকারের পক্ষ থেকে শামীমার আবেদন গ্রহণে অস্বীকৃতি জানিয়ে বলা হয়, শামীমা বেগম যুক্তরাজ্যে ফিরতে পারবেন না।
তবে ২০২০ সালে যুক্তরাজ্যের আপিল আদালত মামলা লড়ার জন্য শামীমা বেগমকে যুক্তরাজ্যে ফিরতে দেওয়ার পক্ষে রুল জারি করেন। আপিল আদালতের পক্ষ থেকে তখন এর পেছনে যুক্তি হিসেবে বলা হয়েছিল, শামীমা বেগম যদি যুক্তরাজ্যে না ফেরেন, তাহলে আদালতে মামলার শুনানি ন্যায্য ও কার্যকর হবে না।
তবে এর পরের বছর (২০২১ সাল) যুক্তরাজ্যের সুপ্রিম কোর্ট আপিল আদালতের সেই সিদ্ধান্তের বিপক্ষে রায় দেন। সুপ্রিম কোর্ট তখন বলেছিলেন, মামলা লড়ার জন্য শামীমা বেগমকে যুক্তরাজ্যে ফিরতে দেওয়া উচিত বলে আপিল আদালতের পক্ষ থেকে যে রুল জারি করা হয়েছে, তাতে চারটি ভুল করেছেন আপিল আদালত। সুপ্রিম কোর্টের এ রায়ের পর স্পেশাল ইমিগ্রেশন আপিলস কমিশনে আপিল করেন শামীমা বেগম। নভেম্বরে শুনানির পর বিশেষ আদালত আজ এই রায় দিলেন। শামীমার বাবার বাড়ি জগন্নাথপুর উপজেলার দাওরাই গ্রামে।
সূত্র : প্রথমআলো

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com