1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
জার্মানির বৃহৎ যে মসজিদে শোনা গেল আজানের ধ্বনি - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৪৯ অপরাহ্ন

জার্মানির বৃহৎ যে মসজিদে শোনা গেল আজানের ধ্বনি

  • Update Time : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২২
  • ১৯০ Time View

জার্মানির সবচেয়ে বড় মসজিদগুলোর একটি কোলন শহরের সেন্ট্রাল মসজিদ। প্রথমবারের মতো এখানে উচ্চৈঃস্বরে আজান শোনা গেছে। গত শুক্রবার (১৪ অক্টোবর) মসজিদে জুমার নামাজ উপলক্ষে শহর কর্তৃপক্ষের সম্মতিক্রমে সীমিত পরিসরে এই আজান শোনা যায়। আলজাজিরার প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গত বছর মসজিদে আজান দেওয়ার অনুমতি প্রার্থনার প্রক্রিয়া শুরু করে জার্মানির চতুর্থ বৃহত্তম শহরটির কর্তৃপক্ষ।
\দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৩টার মধ্যে সর্বোচ্চ পাঁচ মিনিটে আজান দেওয়া যাবে। মসজিদের অবস্থান অনুসারে আওয়াজের সীমারেখা নির্ধারণ করা হয়। জার্মানিতে আজান শুনতে পাওয়ার ঘটনা এবারই প্রথম না হলেও দেশটির বৃহত্তম এই মসজিদে জুমার দিনে উচ্চৈঃস্বরে আজান দেওয়ার ঘটনা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণ মসজিদগুলোতে উচ্চৈঃস্বরে আজান শোনা যায় না। ফলে জুমার দিনের আজানের ধ্বনি মুসল্লিদের অন্তরে তৈরি করে অন্য রকম আবেগ।

সেন্ট্রাল মসজিদটি কোলন শহরের ঠিক পশ্চিমে এহরেনফেল্ড জেলার একটি ব্যস্ততম সড়কের পাশে অবস্থিত। মসজিদের দুই পাশে আছে সুউচ্চ দুই মিনার। ফুলের কুঁড়ির আকৃতিতে তৈরি মসজিদটি কাচ দিয়ে আবৃত। তাতে রয়েছে প্রাকৃতিক আলো-বাতাস। ফলে দর্শকদের কাছে মসজিদের পাশাপাশি তা অন্য রকম স্থাপনা, যা দেখলে চোখ ও মন প্রশান্তিতে ভরে ওঠে। এতে একসঙ্গে এক হাজার ২০০ মুসল্লি নামাজ পড়তে পারেন।

তুরস্কভিত্তিক সংগঠন তার্কিশ ইসলামিক ইউনিয়ন ফর রিলিজিয়াস অ্যাফেয়ার্স (ডিআইটিআইবি) মসজিদটি পরিচালনা করে। ২০১৮ সালে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান এর উদ্বোধন করেন। এত দিন কেবল মসজিদের ভেতর থেকেই আজানের শব্দ শোনা যেত। এক বিবৃতিতে ডিআইটিআইবি জানায়, গত বুধবার শহর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তাদের দুই বছরের জন্য পরীক্ষামূলক আজান সম্প্রচারের চুক্তি হয়েছে। চুক্তি অনুসারে, লাউডস্পিকারের মাধ্যমে আজান দেওয়া হবে এবং তা মসজিদের বাইরে থেকেও শোনা যাবে। তবে স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে তা ৬০ ডেসিবেলের মধ্যে সীমাবদ্ধ হতে হবে।

ডিআইটিআইবির সেক্রেটারি জেনারেল আবদুর রহমান আতাসোয় বলেন, ‘মসজিদে আজান শুনে আমরা খুবই আনন্দিত। উচ্চৈঃস্বরে আজানের অর্থ, এখানে মুসলিমদের আবাস রয়েছে। ’ বৃহত্তম এই মসজিদে প্রথমবার উচ্চৈঃস্বরে আজান দিতে পেরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন মসজিদটির ইমাম মোস্তফা কাদের।

এদিকে কোলন শহরের মেয়র হেনরিয়েট রেকার বলেছেন, আজান দেওয়ার অনুমোদনের মাধ্যমে এই শহরের বৈচিত্র্যময়তা প্রকাশিত হয়েছে এবং স্থানীয় মুসলিমদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা হয়েছে। এ উদ্যোগ মুসলিম জনগোষ্ঠীকে আইনের ন্যায্যতা দিয়েছে।

অবশ্য আজানের অনুমোদন প্রকল্পের ওপর নানা বিধি-নিষেধের মাধ্যমে বিষয়টির সংবেদনশীলতা বোঝা যায়। জার্মানিতে ৫০ লাখের বেশি মুসলমানের বসবাস, যা দেশটির মোট জনসংখ্যার ৬ শতাংশ। সুউচ্চ ডোম ক্যাথিড্রালের জন্য বিখ্যাত কোলন শহরে লক্ষাধিক মুসলিম বসবাস করে। ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় জার্মানিতে ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক বিতর্ক বেশ কম। অন্যদিকে বিভিন্ন কারণে ফ্রান্সে ২৪টি মসজিদ বন্ধ করেছে দেশটির সরকার এবং প্রায় এক শ মসজিদ নজরদারির মধ্যে রেখেছে।

১৯৮৫ সালে সর্বপ্রথম ডুরেন শহরে লাউডস্পিকারের মাধ্যমে আজান দেওয়ার অনুমোদন দেওয়া হয়। এরপর ২০২০ সালের এপ্রিলে করোনার প্রাদুর্ভাবে যখন পুরো বিশ্ব থমকে যায়, তখন মানসিক প্রশান্তি তৈরি করতে বার্লিনে প্রথমবারের মতো আজান শোনা যায়। তখন বিষয়টি বিশ্বজুড়ে ব্যাপক আলোচিত হয়েছিল।

সৌজন্যে কালের কণ্ঠ





শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com