1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
জ্বাজল্যমান হিংস্রতার ক্ষত একুশে আগষ্ট মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০১:১৮ অপরাহ্ন

জ্বাজল্যমান হিংস্রতার ক্ষত একুশে আগষ্ট মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা

  • Update Time : সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০২৩
  • ৬০ Time View

জ্বাজল্যমান হিংস্রতার ক্ষত
একুশে আগষ্ট

মুক্তাদীর আহমদ মুক্ত

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের কালো রাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের কৃষ্ণতম অধ্যায় শুরু। তারপর থেকে একাধিক সামরিক শাসন, হত্যা আর পাল্টা হত্যার রাজনীতিতে ক্ষত বিক্ষত হয় বাংলাদেশ।

বঙ্গবন্ধু বিহীন বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠা করা হয় পাকিস্তানী ভাবধারার রাষ্ট্রতন্ত্র। নিষিদ্ধ করা হয় মহান মুক্তিযুদ্ধের মৌল নীতি ও আদর্শ। রাজনীতিকে রাজনীতিবিদদের জন্য কঠিন করে দিয়ে সামরিক, বেসামরিক আমলা ও ধর্মাশ্রয়ী রাজনীতির মাধ্যমে স্বাধীনতা বিরোধীদের সুকৌশলে রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠা করা হয়। দেশকে ঠেলে দেওয়া হয় মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী স্বৈরতান্ত্রিক শাসনে।

১৯৮১ সালে স্বজনহারা শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব নিয়ে দেশে ফিরে এসে শুরু করেন জনমত সংগ্রহের লড়াই। দমন, পীড়ন,নির্যাতন মোকাবিলা করে বার বার মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসে জনগণের ঐক্য প্রতিষ্ঠা করে নেতৃত্ব দেন সম্মিলিত বিরোধী দলের সংঘবদ্ধ আন্দোলনে। উজ্জীবিত হয় গণতান্ত্রিক চেতনা। মানুষ ভরসা খুঁজে প্রতিবাদের মাধ্যমে পরিবর্তনে। ১৯৯০ এর স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের পর ১৯৯১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজনৈতিক মূল্যবোধ ও নীতি নৈতিকতা বিসর্জন দিয়ে বিএনপি শুরু করে মনোনয়ন বাণিজ্য ও স্বাধীনতা বিরোধীদের সঙ্গে গোপন আঁতাত। নিশ্চিত বিজয় হাতছাড়ার পরও গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা বজায় রাখার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বিরোধী দলের নেতার দায়িত্ব গ্রহণ করে দেশে সংসদীয় গণতন্ত্র প্রবর্তনে রাখেন যুগান্তকারী ভূমিকা। সরকারি প্রতিষ্ঠান সমূহ দলীয়করণ ও নির্বাচনের নামে প্রহসন, দুর্ণীতি ও স্বজনপ্রীতির বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা সোচ্চার থাকলেও রাজনৈতিক পরিবেশ যাতে সহনশীল থাকে তার জন্য ছিলেন সচেতন। রাষ্ট্র যেন অকার্যকর না হয় তার জন্য পালন করেন সংশপ্তকের ভূমিকা। ধৈর্য্য ও বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়ে গণতান্ত্রিক অভিযাত্রা রক্ষার সংকল্পে ১৯৯৬ সালে ঐক্যমতের সরকারের মাধ্যমে দেশে প্রতিষ্ঠা করেন সত্যিকারের গণতান্ত্রিক আবহ। দেশকে বিকশিত করেন অর্থনৈতিক উন্নয়নে। গ্রহণ করেন রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক নিরাপত্তার দূরদর্শী কর্মসূচি। বিরোধী দল সমূহের সঙ্গে সহনশীল আচরণের মাধ্যমে দেশে প্রতিষ্ঠিত করেন স্থিতিশীল পরিবেশ। দেশ যখন সমৃদ্ধির পানে ছুটছে তখনই আবার বিপর্যয় নেমে আসে ২০০১ সালের নির্বাচনের পর বিভীষিকাময় নির্যাতনের মাধ্যমে। আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতাকর্মী নির্যাতনের শিকার হলেও গণতন্ত্র যাতে অব্যাহত থাকে, মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার যাতে সুরক্ষিত থাকে তার জন্য গড়ে তুলেন গণ আন্দোলন। জনগণের আন্দোলনের ভয়ে ৭৫ এর সেই নৃশংসতার অনুসরণে তৎকালীন বিএনপি – জামাত জোট ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মাধ্যমে দেশের রাজনীতিতে স্থাপন করে আরেক কলংকজনক অধ্যায়।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে মেরে ফেলার যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করে চালানো হয় একের পর এক গ্রেনেড হামলা। যারা এ হামলার বীভৎসতা দেখেছেন তারা একে নৃশংসতম বলতেও ইতস্তত করেন। দেশে -বিদেশে মারাত্মক প্রতিক্রিয়া হয়। ঘৃণা আর নিকৃষ্ট অপরাজনীতি মানুষের কাছে পরিস্কার হয়ে যায়। দেশের রাজনীতিতে যে কটি পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে নানা সময়ে, তার মধ্যে ছকের দিক থেকে এটি ছিল সবচেয়ে কুৎসিত। দেশের প্রধান ও জনপ্রিয় একটি রাজনৈতিক দলের ওপর চালানো এ হামলার নেপথ্য কুশীলব ছিল রাষ্ট্র স্বয়ং! নিখাদ জ্বাজল্যমান হিংস্রতার এ ক্ষত কখনো শুকনোর নয়।

সুপরিকল্পিত অথচ চরম নিন্দনীয় এক সহিংসতার চরম রূপ এটি। যার পেছনে কাজ করেছে নৃশংসতা, ফ্যাসিবাদী মনোভাব ও বিরোধীদলকে সমূলে উৎপাটনের ঘৃণ্য চক্রান্ত । যে ঘটনার তুলনা হতে পারে কেবল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নাজিদের দ্বারা সংঘটিত বর্বরতার সঙ্গে।

সেদিন আওয়ামী লীগের সমাবেশে একের পর এক গ্রেনেড হামলায় কেবল চব্বিশটি প্রাণ ঝরে যায়নি, আহত হয়েছেন শত শত মানুষ । সে সঙ্গে ঘটনাটি এদেশের রাজনৈতিক মানচিত্রেও এমন একটা ছাপ রেখে যায় যা কখনও প্রত্যাশিত ছিল না। বিএনপির নেতৃত্বাধীন তদানীন্তন চারদলীয় জোট সরকারের শাসনামলে গুজরে ওঠা এক ষড়যন্ত্রের ঝড়েরই ঘৃণ্য প্রকাশ দেখা গেল এই গ্রেনেড হামলার মাধ্যমে। একুশে আগস্টের হামলা কি ইতিহাসের কোনো এক বিচ্যুতির স্বাক্ষর? মোটেই তা নয়। দেশকে সহিংসতার পথে নিয়ে গিয়ে নেতৃত্ব শূন্য করার সেই পুরনো চক্রান্তেরই অংশ এটি।

২০০১ সালের নির্বাচনে বাংলাদেশ বিরোধী আন্তর্জাতিক কিছু গোষ্ঠীর প্রশ্রয়ে বিএনপি জামায়াতের অশুভ চক্রান্ত সফল হওয়ার পর তাদের ছায়াতলে বেড়ে উঠল একটি দৈত্য। যার নাম হরকাতুল জিহাদ আল-ইসলামী বাংলাদেশ (সংক্ষেপে, হুজি)— সহিংস চরমপন্থী একটি গ্রুপ। ১৯৯২ সালে ঢাকায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে জনসমক্ষে আত্মপ্রকাশ ঘটল দলটির। যে ঘটনায় বিএনপি সরকার বিস্ময়করভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি।

তাতে যে কারও পক্ষে এটা অনুমান করাই স্বাভাবিক যে, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া এমন একটি গ্রুপ এত নির্বিঘ্নে নিজেদের উপস্থিতির কথা জানান দিতে পারত না।

খালেদা জিয়ার প্রথম জমানায় এমন ধারায় চরমপন্থী তোষণ ও পোষণের ফলেই, ১৯৯৬ সালের ১২ জুন অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জিতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেও, দেশে একটির পর একটি বোমা হামলার ঘটনা ঘটতে থাকে।

যশোরে বাম ঘরানার সাংস্কৃতিক সংগঠন উদীচির সম্মেলনে হামলার ঘটনা ঘটে ১৯৯৯ সালে। যে ঘটনায় মারা যান ১০ জন। আহত হন আরও অসংখ্য। ২০০০ সালে গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায় তখনকার ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশস্থলে বোমা পুঁতে রাখা হয়। সে সময় ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (এফবিআই) ঘটনার তদন্ত করে হরকাতুল জিহাদকে এজন্য দায়ী করেছিল।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন বাংলাদেশে এলেন ২০০০ সালেরই মার্চে। এটাই প্রথম ও একমাত্র কোনো মার্কিন রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ সফর। সে সময় তাঁর মানিকগঞ্জ সফরের কর্মসূচি বাতিল করা হয়েছিল হরকাতুলের হুমকির মুখে। এর পরই হরকাতুল বাংলাদেশের প্রধান মুফতি হান্নানের ভয়ংকর নামটি উঠে আসে পাদপ্রদীপের আলোয়।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com