1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
তরুণদের বিষয়ে ইসলাম যা বলে - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৯:১৬ পূর্বাহ্ন

তরুণদের বিষয়ে ইসলাম যা বলে

  • Update Time : মঙ্গলবার, ২ জুলাই, ২০২৪
  • ২৫ Time View

যৌবনকাল জীবনের স্বর্ণ যুগ, শ্রেষ্ঠ সময়। নিজেকে গড়ে তোলা, ক্যারিয়ার গঠন ও নেক আমল করার মুখ্য সময়। এ সময় যে কাজে লাগাবে, সে উন্নতি করতে পারবে। আর যে এ সময় হেলাখেলায় নষ্ট করবে, সে জীবনে কোনো উন্নতি করতে পারবে না।
যৌবনকালই শক্তি। সুতরাং এ সময়কে সর্বোচ্চ কাজে লাগানোর চেষ্টা করা বুদ্ধিমানের কাজ।

 

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘কিয়ামতের দিন প্রত্যেক আদম সন্তানের পা একবিন্দু সামনে বাড়তে দেওয়া হবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত না তাদের থেকে পাঁচটি প্রশ্নের উত্তর নেওয়া হবে। তা হলো—১. তোমার জীবন কিভাবে কাটিয়েছ? ২. তোমার যৌবন কিভাবে কাটিয়েছ? ৩. তোমার আয় কোথা থেকে করেছ? ৪. তা কোথায় ব্যয় করেছ? ৫. অর্জিত জ্ঞান অনুপাতে কতটুকু আমল করেছ?’ (তিরমিজি, হাদিস : ২৪১৭)

আর যে যুবক তার যৌবনকে আল্লাহর ইবাদতে কাটিয়ে দেয়, রাসুলুল্লাহ (সা.) তার সম্পর্কে বলেছেন, আল্লাহ কিয়ামতের দিন তাকে স্বীয় (আরশের) ছায়ায় আশ্রয় দেবেন।

বুখারি, হাদিস : ৬৮০৬) 

আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রা.) বলেন, আল্লাহ তাআলা সাধারণত যুবক বান্দাকে জ্ঞান দান করেন। যাবতীয় কল্যাণ যৌবনেই লাভ করা সম্ভব। এরপর তিনি তাঁর দাবির পক্ষে যুক্তি-প্রমাণ হিসেবে আল্লাহ তাআলার বাণী তিলাওয়াত করে শোনান। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তাদের কেউ কেউ বলল, আমরা শুনেছি এক যুবক এই মূর্তিগুলোর সমালোচনা করে।

তাকে বলা হয় ইবরাহিম।’ (সুরা : আম্বিয়া, আয়াত : ৬০) 

আসহাবে কাহফের যুবকদের সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে এসেছে : ‘আমি তোমাকে তাদের সংবাদ সঠিকভাবে বর্ণনা করছি। নিশ্চয়ই তারা কয়েকজন যুবক, যারা তাদের রবের প্রতি ঈমান এনেছিল এবং আমরা তাদের হিদায়াত বাড়িয়ে দিয়েছিলাম।’ (সুরা : কাহফ, আয়াত : ১৩)

বর্তমানে যুবসমাজের সংকট

বর্তমানে যুবসমাজ অসংখ্য সংকট ও সমস্যায় জর্জরিত। নিম্নে তাদের কিছু সংকট সম্পর্কে বর্ণনা করা হলো :

মাদকতা

অনেক যুবককে মাদকাক্রান্ত হয়ে ধ্বংসে নিপতিত হতে দেখা যায়।

বিভিন্ন ধরনের মাদকের সহজলভ্যতায় যুবকরা কোনো না কোনোভাবে নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়ছে। এটি একটি অশনিসংকেত। একজন যুবক নষ্ট হয়ে যাওয়ার আগে তাকে মাদক থেকে দূরে রাখার জন্য সময়মতো যদি সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ না করা হয়, তাহলে যুবসমাজের কাছে জাতির যে প্রত্যাশা তা সম্পূর্ণ ব্যর্থ হতে বাধ্য। 

ইসলাম মানুষকে নেশা গ্রহণ ও মাদক সেবন করতে সম্পূর্ণ নিষেধ করে। মানুষকে ধ্বংস ও করুণ পরিণতি থেকে রক্ষা করার জন্য ইসলামী অনুশাসন মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই। রাসুলুল্লাহ (সা.) সতর্কবাণী উচ্চারণ করে বলেছেন, যেকোনো ধরনের নেশাজাত পানীয় হারাম। (বুখারি, হাদিস : ৫৫৮৫)

ব্যভিচার

বর্তমানে ব্যভিচার একটি মারাত্মক সমস্যা। অভিজাত ফ্যামিলির ছেলেমেয়েরা এসব অপকর্ম কোনো অন্যায় মনে করছে না। তারা মনে করছে, এটি তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার ও ব্যক্তিস্বাধীনতা। তারা বলে, উন্নত বিশ্বের মেয়েরা রাস্তাঘাট, হোটেল, পার্ক সব জায়গায় যেভাবে জৈবিক চাহিদা মিটিয়ে ঘরে ফেরে, তারাও এমন সমাজব্যবস্থার পক্ষপাতী। এসব ব্যভিচারের কারণে সমাজে অশান্তি, পারিবারিক কলহ ও খুনের মতো ঘটনা ঘটছে। জিনা-ব্যভিচার নিষিদ্ধ করে আল্লাহ বলেন, ‘আর ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। নিশ্চয়ই তা অশ্লীল ও নিকৃষ্ট আচরণ।’ (সুরা : বনি ইসরাঈল, আয়াত : ৩২)

যেসব যুবক নিজেকে পবিত্র রাখতে চায়, তাদের জন্য করণীয় হলো :

গায়রে মাহরাম নারীদের সঙ্গে দেখা করা ও কথা বলা ত্যাগ করা। সেটা খালাতো, মামাতো, চাচাতো, ফুফাতো বোন হোক; ভাবি, চাচি, মামি হোক, আর ক্লাসমেট, কলিগ হোক। ‘জাস্ট ফ্রেন্ড’, ‘বোনের মতো’, ‘মায়ের মতো’—এমন ধোঁকায় পড়া যাবে না। ফ্রি মিক্সিংয়ের আশঙ্কা আছে, এমন জায়গায় যাওয়া পরিহার করা। যেতে বাধ্য হলে নারীদের থেকে দূরে থাকা। দ্বিনি ভাইদের সঙ্গে সময় কাটানো। একা থাকবেন না। সামর্থ্য থাকলে বিয়ে করুন। সেটি সম্ভব না হলে নফল রোজা রাখুন।

মোবাইল ফোন আসক্তি

ইন্টারনেট, চ্যাটিং, অডিও, ভিডিওসহ সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা সংবলিত মোবাইল ফোনসেট এখন সবার হাতে। যুবসমাজ ফেসবুক, ইন্টারনেটের প্রতি সারাক্ষণ হুমড়ি খেয়ে পড়ছে। লেখাপড়া ফাঁকি দিয়ে ফেসবুকে চ্যাট করে কেউ কেউ রাত পার করে দিচ্ছে। পড়ালেখা নষ্ট হচ্ছে, সময় নষ্ট হচ্ছে, তার প্রতি কোনো ভ্রুক্ষেপ তারা করছে না। ঘণ্টার পর ঘণ্টা তাদের জীবনের মহামূল্য সময় এখানে ব্যয় করছে। ফলে তারা পড়ালেখা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে এবং যুবক-যুবতির সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে নানা সমাজবিরোধী কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়ছে।

বিশিষ্ট তাবেঈন হাসান বসরি (রহ) বলেন, ‘আমি এমন লোকদের পেয়েছি এবং সংস্রবে থেকেছি, যাঁরা তাঁদের জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে সোনা-রুপার চেয়েও বেশি মূল্যবান মনে করতেন। মানুষ যেভাবে সোনা-রুপাকে বড়ই হেফাজতে রাখে, যাতে চুরি বা নষ্ট হতে না পারে। এভাবে তাঁরাও জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে বর্ণনাতীতভাবে হেফাজত করতেন, যাতে জীবনের একটি মুহূর্তও কোনো অযথা বা অসমীচীন কাজে ব্যয় না হয়। তাঁরা ভাবতেন, সময় আল্লাহর দেওয়া একটি বড়ই অমূল্য নিয়ামত, যার নেই কোনো নির্দিষ্ট সীমারেখা। আর কত দিন এই নিয়ামত বিদ্যমান থাকবে তা-ও জানা নেই। তাই অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে ব্যয় করতে হবে এই সময়কে।’ (জীবনের শ্রেষ্ঠ সম্পদ; মুফতি তাকি উসমানি, পৃষ্ঠা ২২)

অবসর

চিন্তা-চেতনা, বিচারবুদ্ধি ও শারীরিক শক্তি বিনষ্টের জন্য অবসর হলো একটি ধংসাত্মক ব্যাধি। মানুষের যখন কাজ থাকে না, তখন তার চিন্তা-ভাবনা স্থবির হয়ে যায়, বুদ্ধিমত্তা স্থূল হয়ে পড়ে এবং মনের উৎসাহ-উদ্দীপনা দুর্বল হয়ে পড়ে। আর মনের সেই শূন্যস্থান দখল করে নেয় কুমন্ত্রণা ও নোংরা চিন্তা-ভাবনা।

পথভ্রষ্ট লোকজনের সঙ্গে চলাফেরা ও সখ্য

অসৎ সঙ্গ যুবকদের মস্তিষ্কে, চিন্তা-চেতনায় ও আচরণে ব্যাপক প্রভাব ফেলে। এ জন্যই মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘প্রত্যেক ব্যক্তি তার বন্ধুর বৈশিষ্ট্যে প্রভাবিত হয়। অতএব তোমাদের উচিত কার সঙ্গে বন্ধুত্ব করছ, সে ব্যাপারে খেয়াল করা।’ (তিরমিজি, হাদিস : ২৩৭৮)

ইসলাম সম্পর্কে অজ্ঞতা

কিছু যুবক ধারণা করে, ইসলাম মানুষের স্বাধীনতা সীমাবদ্ধ করে দেয় এবং শক্তিকে ধ্বংস করে ফেলে। ফলে তারা ইসলাম থেকে দূরে সরে যায় এবং একে পশ্চাদমুখী ধর্ম হিসাবে মনে করে। আসলে ইসলামের প্রকৃত স্বরূপ এসব যুবকের সামনে সুস্পষ্ট নয়। ইসলাম স্বাধীনতা সীমাবদ্ধকারী নয়; বরং স্বাধীনতা সুসমন্বিতকারী এবং সঠিক দিকনির্দেশনা প্রদানকারী, যাতে একজন ব্যক্তিকে বল্গাহীন স্বাধীনতা প্রদান করলে তা অন্যদের স্বাধীনতার সঙ্গে সাংঘর্ষিক না হয়ে যায়। কেননা যে ব্যক্তিই বল্গাহীন স্বাধীনতা চাইবে, তার স্বাধীনতা অন্যদের মতোই হবে। ফলে স্বাধীনতাগুলোর মধ্যে সংঘাত অনিবার্য হয়ে পড়বে, সর্বত্র নৈরাজ্য ছড়িয়ে পড়বে এবং বিপর্যয় নেমে আসবে।

আর হ্যাঁ, একজন মুসলমানের ঘুম থেকে ওঠা নিয়ে আবার ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক, রাষ্ট্রীয় ও আন্তর্জাতিক—সব কিছুর ওপর ইসলামের বিধান আরোপিত। ইসলামের আংশিক ধারণ করে, বিশেষ ক্ষেত্রে ইসলাম বর্জন করার সুযোগ ইসলামে নেই। ইরশাদ হয়েছে, ‘হে ঈমানদারগণ! তোমরা পরিপূর্ণভাবে ইসলামে প্রবেশ করো এবং শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ কোরো না। নিশ্চয়ই সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ২০৮)

মুসলমান হতে হলে এ কথায় বিশ্বাসী হতে হয় আল্লাহ তাআলা সৃষ্টিজগতের স্রষ্টা, মালিক, প্রতিপালক ও একচ্ছত্র কর্তৃত্বের অধিকারী। সুতরাং তাঁর বান্দাদের জীবনযাত্রার নিয়ম-কানুন নির্ধারণের নিরঙ্কুশ ক্ষমতাও তাঁর। এ বিষয়ে পবিত্র কোরআনে এসেছে, ‘তুমি কি জানো না, আসমান ও জমিনের সার্বভৌমত্ব একমাত্র আল্লাহরই?’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১০৭)। সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com