বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন

দেবী দূর্গার আবির্ভাব

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৫ অক্টোবর, ২০১৮
  • ৬২ Time View

যা দেবী সর্বভূতেষু মাতৃরূপেন সংস্থিতা
নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমো নমঃ।

অর্থঃ যে দেবী সকল জীবের মাতৃরূপে বিরাজিতা তাঁকে নমস্কার, নমস্কার, নমস্কার।

দূর্গাপূজা বাঙ্গালী হিন্দুদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব। দেবী মর্ত্যূলোকে বছরে তিন ঋতুতে তিনবার তিন নামে আবির্ভূত হন। শরৎকালে শারদীয় দূর্গা, হেমন্তকালে কাত্যায়ানী দূর্গা এবং বসন্তকালে বাসন্তী দূর্গা নামে তিনি আসেন। কিন্তু শরৎকালের শারদীয় দূর্গা উৎসবই সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কাছে প্রধান। দূর্গা দেবী জগৎজননী হয়েই মহিষাসুরের বিরুদ্ধে রণে অবতীর্ন হয়েছিলেন। মাতৃরূপে তিনি সর্বজীবে বিরাজ করে জীবের দূর্গতি নাশ করেন বলেই তাঁর নাম দূর্গা। শ্রী শ্রী চন্ডী মতে, দূর্গম নামে এক অসুরকে বধ করায় মায়ের নাম হয়েছে দূর্গা। রম্ভাসুরের পুত্র মহিষাসুর এক দুধর্ষ পরাক্রমশালী অসুর। জন্মের পর মহিষাসুর ব্রহ্মার তপস্যা করে ব্রহ্মার নিকট থেকে এই অমরত্ব লাভ করেন যে, কোন পুরুষ লোক তাকে বধ করতে পারবে না। এ বর পেয়ে মহিষাসুর তার অসুর সৈন্যদের নিয়ে স্বর্গরাজ্য আক্রমন করেন। দেবতা ও অসুরদের মধ্যে প্রবল সংঘর্ষ হওয়া স্বত্ত্বেও দেবরাজ ইন্দ্র সহ কোন দেবতাই তাকে পরাজিত করতে পারেননি। অবশেষে দেবগণ স্বর্গ থেকে বিতারিত হয়ে পর্বত শৃঙ্গে অবস্থান করেন। অতপর দেবগণ সকল মিলে ব্রহ্মার নিকট উপনীত হয়ে তার কৃপা প্রার্থনা করে। তখন ব্রহ্মা-শিব সহ সকল দেবতাকেই সঙ্গে নিয়ে বৈকুন্ঠে ভগবান বিষ্ণুর নিকট উপস্থিত হন। বিষ্ণু বললেন “যেহেতু মহিষাসুর বর প্রাপ্ত হয়েছে সেহেতু স্ত্রীলোক ছাড়া অন্য কারো দ্বারা সে নিধন প্রাপ্ত হবেন না”। তাই যদি আমরা দেবতাদের শক্তির সমন্বয়ে একজন স্ত্রী লোক সৃষ্টি করতে পারি তাহলে তার সাহায্যে আমরা মহিষাসুরকে নিধন কতে পারব। ভগবান বিষ্ণু এ কথা বলা মাত্রই ব্রহ্মার মুখমন্ডল থেকে একটি অত্যুজ্জ্বল তেজ প্রকাশিত হলো। মুহূর্তের মধ্যে সমস্ত দেবতার শক্তি একত্রিত হয়ে এক দিব্য দেবী মূর্তিতে প্রকাশিত হলেন। সমস্ত দেবতার তেজ সমন্বিত রমনীর এই দিব্য মূর্তিই হচ্ছেন দেবী দূর্গা। অতপর ভগবান বিষ্ণুর কথা অনুযায়ী দেবগণ এ দেবীকে বিবিধ রতœালঙ্কার ও পোষাকে সজ্জিত করলেন। এবং সেই সঙ্গে তারা বিভিন্ন রকমের অস্ত্র দান করলেন। বিবিধ অস্ত্রে সজ্জিত সিংহের উপর আরূঢ়া দেবীকে অত্যন্ত রূপময়ী দেখাচ্ছিল। নানাবিধ অলংকার ও অস্ত্রে পরিশোভিত হয়ে দেবী অট্টহাস্য করে ঘন ঘন গর্জন করতে লাগলেন। সেই গর্জন চর্তুদিকে প্রতিধ্বনি হতে লাগল। সেই ভয়ানক গর্জনে সমুদ্র, পৃথিবী, পর্বত সমূহ কম্পিত হয়ে উঠল। যেন চতুর্দিকে ভূমিকম্প। দেবতারা তার স্তবস্তুতি করতে লাগলেন। অসুররা ত্রিভূবন কম্পিত দেখে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হলো। দেবী দূর্গা তৎক্ষনাৎ মহিষাসুরকে প্রতিদ্বন্ধিতার জন্য যুদ্ধে আহবান করলেন। দেবীকে প্রথম দর্শনেই মহিষাসুর তার রূপে আকৃষ্ঠ হয়ে পড়ে এবং দেবীকে পরাজিত করে তার পাণি গ্রহণ করার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়। যুদ্ধ শুরু হল। মহিষাসুর মহিষের রূপ ধারণ করে দেবীকে আক্রমণ করতে ছুটে এল। দেবী তাকে মহাপাশ দিয়ে বেঁধে ফেললেন। দেবী তার মাথা কেটে ফেলা মাত্র এক পুরুষ রূপ ধারণ করল। সেই পুরুষকে দেবী বান দ্বারা ছেদন করে ফেললে-সেই অসুর এক বিশাল হাতির রূপ ধারণ করে। দেবী খড়গ দ্বারা হাতির শূঁড় কেটে ফেলেন। তারপর আবার মহিষের রূপ ধারণ করে শিং দুটি দ্বারা পর্বত সমূহ দেবীর দিকে ছুড়ে মারতে লাগল। দেবী বানের দ্বারা সেগুলো চুর্ন-বিচূর্ণ করে দিলেন। এক পর্যায়ে দেবী বিষ্ণুর চক্রের দ্বারা তার গলা ছেদন হওয়া মাত্রই মহিষাসুর নিধন হলেন।

বিজয়া দশমী তিথিতে মহিষাসুর দেবীর হাতে নিধন প্রাপ্ত হয়েছিল। তাই ভুবন পূজিতা দেবীর যুদ্ধরতা অবস্থার প্রতিমূর্তি প্রতি বছর জাঁকজমক সহকারে বাংলাদেশ ও ভারতবর্ষ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সনাতন ধর্মাবলম্বীগণ দ্বারা সর্বত্র পূজিত হয়। ভগবান শ্রীকৃষ্ণের বহিরঙ্গা মায়াশক্তির প্রতিমূর্তি হচ্ছেন দূর্গা।

দূর্গাপূজার প্রথম প্রচলন ঘটে সত্য যুগে। রাজা সুরথ নাথ ও সমাধি বশ্য সে যুগে প্রথম দূর্গাপূজার আয়োজন করেন। এ পূজা বসন্তকালে হত বলে একে বাসন্তীপূজা বলা হয়।

ত্রেতাযুগে রামচন্দ্রের অকালবোধন, দ্বাপরযুগে অর্জুনসহ পঞ্চ পান্ডবের দেবী দূর্গার স্তুতি প্রমাণ করে যে, প্রাচীন ভারতে দূর্গা পূজার প্রচলন ছিল। তবে বাংলাদেশে প্রথম দূর্গাপূজার প্রচলন হয় স¤্রাট আকবরের রাজত্বকালে ষোড়শ শতাব্দীতে। রাজশাহীর তাহিরপুরের রাজা কংস নারায়ণ রায় প্রায় সাড়ে আট লক্ষ টাকা ব্যয় করে প্রথম শারদীয় দূর্গোৎসবের আয়োজন করেন। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ভাদুরিয়ার (রাজশাহী) জগৎ নারায়ন প্রায় নয় লক্ষ টাকা ব্যয় করে বাসন্তী দূর্গোৎসব করেন। পরে এক সময় দূর্গাপূজা রাজা-জমিদারদের উঠান থেকে সাধারণের উঠানে চলে আসে। সাধারণ মানুষ ঘরে ঘরে গিয়ে ধান, শষ্য ও অর্থ তুলে আয়োজন করে দূর্গাপূজার। ফলে দূর্গা গণদেবীতে আর দূর্গাপূজা পরিণত হয় সর্বজনীন উৎসবে। রামচন্দ্র শরৎকালে অর্থাৎ অকালে দূর্গাপূজা করেছিলেন বলে এ সময়ে পূজাকে কেউ কেউ অকালবোধন ও বলে থাকেন। শক্তির দেবী দূর্গা ভক্তদের সকল দূর্গতি নাশ করবে এই প্রার্থনা মায়ের কাছে।

“সৃষ্টিস্থিতি বিনাশনাং শক্তিভূতে সনাতনী গুণাশ্রয়ে গুণময়ে নারায়ণী নমোহস্তুতে”
(শ্রী শ্রী চন্ডী (১১/১১)
অর্থ: হে সৃষ্টিস্থিতি বিনাশের শক্তি স্বরূপিনী, সনাতনী, গুণের আশ্রয়ভূতা, গুণময়ী ও নারায়ণী তোমাকে নমস্কার।

[ বিঃদ্রঃ বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও ধর্মীয় গ্রন্থাবলী থেকে তথ্যাবলী সংগৃহিত]

(রাখাল চন্দ্র চৌধুরী)
সমাজসেবক ও ধর্মানুসারী
সিএ মার্কেট (নিকেতন), বাসা নং-১১
জগন্নাথপুর, সুনামগঞ্জ।
মোবাইল: ০১৭৯২৩৪০৮৬০

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24