1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
নারীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় মহানবী (সা.)-এর অতুলনীয় আদর্শ - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১২:০২ অপরাহ্ন

নারীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় মহানবী (সা.)-এর অতুলনীয় আদর্শ

  • Update Time : শনিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ১৩৫ Time View

বিশ্বমানবতা তথা বিশ্বসমাজের মুক্তির দূত বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)-কে আল্লাহ তাআলা পৃথিবীতে শান্তির বার্তা আল্লাহ প্রদত্ত সর্বশেষ আসমানী পয়গাম মহাগ্রন্থ আল-কুরআন দিয়ে পাঠিয়েছেন। তিনি এ কুরআন দিয়ে পরিবার সমাজ ও গোটা পৃথিবীর সর্বস্তরে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। এক্ষেত্রে তিনি শতভাগ সফলও হয়েছেন। তিনি কুরআন দিয়ে মানুষের উপর মানুষের প্রভুত্বের কবর রচনা করে মানুষের উপর আল্লাহর প্রভুত্বকে প্রতিষ্ঠা করে গেছেন। তিনি মানুষের উপর মানুষের অধিকার বিশেষকরে পুরুষের পাশাপাশি নারীর অধিকারের বিষয়টিও সুস্পষ্ট প্রতিষ্ঠা করেছেন। আধুনিক বিশ্বে নারী অধিকারের বিষয়টি বহুল আলোচিত। পাশ্চাত্য সভ্যতায় নারী অধিকারের ধারণাটি গত শতাব্দীর সৃষ্টি। কিন্তু ইসলাম নারী অধিকারের ধারণা উপস্থাপন করেছে আজ থেকে প্রায় দেড় হাজার বছর আগে।
ইসলাম নারীর অধিকারের সুস্পষ্ট ঘোষণায় নারীর যথাযথ মর্যাদার স্বীকৃতি দিয়েছে এবং মানবতার নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-ই সর্বপ্রথম নারী জাতির পূর্ণ মানবিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন। যা আমরা কুরআন-হাদীসের পাশাপাশি রাসূল (সা.)-এর সীরাত অধ্যয়ন থেকে বিস্তারিত জানতে পারি। ইসলামের আগে জাহেলি আরব সমাজে নারীর মর্যাদাপূর্ণ কোনো অবস্থান ছিল না। আমরা সকলেই জানি, আরব ছিলো একসময় অন্ধকারাচ্ছন্ন, কুসংস্কার আর নানা অনাচারে ঘেরা এক মরু উপত্যকা। যাকে আরবী ইতিহাসবিদগণ আইয়ামে জাহেলিয়াতের সময় বা ইসলামের ইতিহাসে অন্ধকার যুগ বলে অবিহিত করা হয়।

সে যুগে কন্যা সন্তানের জন্মকে তারা অমর্যাদাকর ও লজ্জাষ্কর মনে করতো। তাদের সমাজে ও পরিবারে কোনো অধিকার ছিল না। তারা ছিল পুরুষদের দাসীমাত্র। পরিবারের কর্তা ইচ্ছে করলে নারীকে ক্রয়-বিক্রয় ও হস্তান্তর করতে পারতো। পিতা এবং স্বামীর সম্পত্তিতে নারীদের অধিকার বলতে কোনো অংশই ছিল না। মেয়ে বা কন্যা শিশুদেরকে পিতার পক্ষ থেকে সম্পত্তি লাভের সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা হতো। ঘাড়ের বোঝা মনে করা হতো কান্য শিশুদের। এমন দৃশ্যও আছে যে, সে সময় কন্যাশিশুর মর্যাদা সমাজে এতোটাই নিচে ছিল যে কন্যাশিশুর জন্ম হলে তাকে জীবন্ত কবর দেওয়া হতো। এরকম কতো কন্যাশিশুকে যে জীবন্ত কবরে পুঁতে দেওয়া হয়েছে তা নিশ্চই আরবের সে অন্ধকার যুগের ইতিহাসের খাতায় লিপিবদ্ধ আছে।

জীবন্ত কন্যা পুঁতে দেওয়া (সমাধিস্থ করা) করা সম্পর্কে মহান আল্লাহ তায়ালা সেদিন জিজ্ঞেস করবেন এভাবে, যা কুরআন মাজীদে বর্ণিত হয়েছে : যখন জীবন্ত পুঁতে দেওয়া কন্যাকে জিজ্ঞেস করা হবে, কি অপরাধে তাকে হত্যা করা হয়েছিল? (সূরা তাকভীর, আয়াত: ৮, ৯)। আল্লাহ পাকের কাছে নারী-পুরুষের মর্যাদা আলাদা নয়। পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেছেন : অতঃপর তাদের পালনকর্তা তাদের দোয়া (এই বলে) কবুল করে নিলেন যে, আমি তোমাদের কোনো পরিশ্রমকারীর পরিশ্রমই বিনষ্ট করি না, তা সে পুরুষ হোক কিংবা স্ত্রীলোক। তোমরা পরস্পর এক। (সূরা আলে ইমরান, আয়াত: ১৯৫)।

এ আয়াত থেকে স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে, আমলের দিক থেকে সৃষ্টিকর্তার কাছে সবাই সমান। সে পুরুষ হোক কিংবা নারী। আমাদের সমাজে আমরা এখন দেখছি নৈতিক অবক্ষয় ও মূল্যবোধের অভাবে অনাচার ও বেহায়াপনা জেঁকে বসেছে। নারী নির্যাতনের মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলছে। সর্বত্রই নারীরা লাঞ্চিত হচ্ছে। প্রতিদিন পত্রিকার পাতায় নিত্যনতুন উপায়ে বা পদ্ধতিতে নারী লাঞ্চনার খবর আসে। অথচ ইসলাম একজন নারীকে কত উচ্চ মর্যাদা দান করেছে, তা আজকের সমাজবিজ্ঞানীরা ভুলতে বসেছে।

প্রকৃতপক্ষে, কুরআনুল কারীমের মাঝেই পুরুষের সঙ্গে নারীদের সম্পত্তির উত্তরাধিকার নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছিল। একইভাবে নারীদের মধ্যে মা, স্ত্রী, কন্যাদের তাদের পিতার ও স্বামীর সম্পত্তিতে এবং বিশেষ অবস্থায় বোনদের ভাইয়ের সম্পত্তিতে উত্তরাধিকার সাব্যস্ত করা হয়েছে। ইসলামের আগমনের আগে পৃথিবীর বুকে আর কোনো ধর্মই এভাবে নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা করেনি। একইভাবে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামও নারীদের স্বামীর সম্পদের মালিকানা দান করেছেন। স্বামীর অধিকার নেই যে, স্বামী হওয়ার কারণে সে তার স্ত্রীর সম্পত্তিতে হস্তক্ষেপ করতে পারবে। নারী তার সম্পদ খরচ করার ব্যাপারে পূর্ণ স্বাধীনতা রাখে।

পাশ্চাত্যের প-িতদের মুক্ত থিওরী আর ফ্যাশন সমাজের নারীসহ সকলেই স্মার্টনেস হয়ে দাঁড়িয়েছে। অথচ বর্তমান কন্যাশিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত সকলের প্রতি যে অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে, তা আইয়ামে জাহেলিয়াতকেও হার মানিয়েছে। জাহিলি যুগে পিতা কর্তৃক আপন কন্যা ধর্ষনের কোনো নজির নেই। কিন্তু এখন এমন ঘটনাসহ দড়ি বেঁধে প্রকাশ্যে নারীর উপর নির্যাতন সমাজে অহরহ দৃশ্যমান। আমরা যদি একটু চিন্তা করে দেখি, ইসলামের আগমনের পূর্বে নারীর সম্ভ্রম এবং মর্যাদা বলতে কিছুই ছিল না। নারী-পুরুষ অবাধে মেলামেশা করতো। রাতের বেলায় নারীরা মদ, গান-বাদ্যের মহোৎসব করতো। সমগ্র পৃথিবী যখন হেরার আলোর অভাবে এমনই এক ঘুটঘুটে অন্ধকার যুগে বসবাস করতে লাগলো; ঠিক সেই মুহূর্তে মহান আল্লাহ তায়ালার আখেরি পয়গাম মহাগ্রন্থ আল-কুরআনুল কারীম নিয়ে মানবতার মুক্তিরদূত, নবীকুল শিরোমনি হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আগমন ঘটে। আর তখন থেকেই নারীরা তাদের যথাযোগ্য চিরসম্মান ও চিরমর্যাদা লাভ করে। নারীদের প্রতি উত্তম আচরণের ব্যাপারে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিশেষভাবে দৃষ্টি রাখতেন। তিনিই সর্বপ্রথম নারীর উত্তরাধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন এবং সমাজে নারীদের অভূতপূর্ণ মর্যাদার কথা ঘোষণা করলেন। (চলবে)
সৌজন্যে ইনকিলাব

 

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com