1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
পণতীর্থ গঙ্গাস্নান বারুণী মেলা ও শাহ আরেফিন (র.) এর বাৎসরিক ওরস শুরু - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৭:৪২ অপরাহ্ন

পণতীর্থ গঙ্গাস্নান বারুণী মেলা ও শাহ আরেফিন (র.) এর বাৎসরিক ওরস শুরু

  • Update Time : শুক্রবার, ৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৮৯ Time View

 

 

সজিব দে-
৬ এপ্রিল শনিবার মধুকৃষ্ণা ত্রয়োদশীতে পণতীর্থ গঙ্গাস্নান ও বারুণী মেলা এবং ৫, ৬ ও ৭ এপ্রিল শাহ আরেফিন (র.) এর বাৎসরিক ওরস অনুষ্ঠিত হবে। আগামী শনিবার মধুকৃষ্ণা ত্রয়োদশীতে মহাবারুণী গঙ্গাস্নান সকাল ৭টা ৫২ মিনিট ১৬ সেকেন্ড থেকে দুপুর ১টা ৪৯ মিনিট ২৪ সেকেন্ডের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে। গঙ্গাস্নান ও বারুণী মেলা এবং ওরসকে কেন্দ্ করে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত ও বিদেশ থেকে বিপুল সংখ্যক পুণ্যার্থীদের সমাগম হয়। ইতিমধ্যে পূর্নার্থীরা আসতে শুরু করেছেন।পুণ্যার্থীদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে পুলিশের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। আব্দুজ জহুর সেতু থেকে পুরো চলাচল পথে পুলিশ সদস্যগণ মোতায়েন থাকবে। অদ্বৈত বাড়ি, ইসকন মন্দিরের ইনডোর ও আউটডোর থাকবে সিসি ক্যামেরার আওতায়।

পণতীর্থ গঙ্গাস্নান ও বারুণী মেলা এবং লাউড়ের গড়ের মোকামে শাহ আরেফিন (র.) ওরস উপলক্ষে আগত পুণ্যার্থীদের সুবিধা ও যানজট নিরসনে ওয়ানওয়ে রাস্তায় যানবাহন চলাচল করবে। সুনামগঞ্জ আব্দুজ জহুর সেতু থেকে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার চালবন্দ পয়েন্ট-পলাশ বাজার-ধনপুর বাজার- মমিন বাজার-আনন্দবাজার-অদ্বৈতবাড়ি অথবা আব্দুজ জহুর সেতু থেকে চালবন্দ পয়েন্ট-পলাশ বাজার-কারেন্টের বাজার-ধনপুর স্কুলের পাশের রাস্তা আনন্দবাজার-চরগাঁও-অদ্বৈতবাড়ি-লাউড়েরগড়-শাহ আরেফিন (র:) আস্থানা পর্যন্ত ওয়ানওয়ে ট্রাফিক ব্যবস্থা থাকবে। অপরদিকে ফিরতি পথে পণতীর্থ বারুণী মেলা ও শাহ আরেফিন (র:) ওরস প্রাঙ্গণ থেকে স্বরূপগঞ্জ বাজার-মাছিমপুর বাজার-চিনাকান্দি বাজার-মথুরকান্দি বাজার-বাঘবেড় বাজার-চালবন্দ পয়েন্ট- সুনামগঞ্জ আব্দুজ জহুর সেতু পর্যন্ত ওয়ানওয়ে ট্রাফিক ব্যবস্থা থাকবে।

এছাড়াও ৩ এপ্রিল থেকে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ট্রাক, ট্রাক্টর, কোস্টার, কোচ, মাহিন্দ্র ট্রাক্টর ইত্যাদি ভারী যানবাহন আব্দুজ জহুর সেতুর পূর্ব পাশে থাকবে। মোটরসাইকেল, সিএনজি, অটোরিক্সা, লেগুনা, লাইটেস, কার শুধুমাত্র ওয়ানওয়ে রাস্তায় চলাচল করতে পারবে।

আব্দুজ জহুর সেতু থেকে দুইটি মেলা পর্যন্ত মোটরসাইকেলের ভাড়া জনপ্রতি ২৫০ টাকা এবং ২ জনে ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। দুইজনের বেশি যাত্রী মোটরসাইকেলে পরিবহন করা যাবে না। পলাশ বাজার থেকে জনপ্রতি ভাড়া ২০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। আব্দুজ জহুর সেতু থেকে লেগুনা ও সিএনজি ভাড়া জনপ্রতি ১৭০ টাকা এবং পলাশ বাজার থেকে মেলা পর্যন্ত জনপ্রতি ১২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

জানা যায়, চৈত্র মাসের কৃষ্ণপক্ষের ত্রয়োদশী তিথিকে বারুণী যোগ বলা হয়। যদি ত্রয়োদশী তিথির সঙ্গে শতভিষা নক্ষত্র যোগ হয়, তবে সেটাকে মহাবারুণী যোগ বলা হয়। আর মহাবারুণী যোগ শনিবারে পড়লে সেটাকে মহা-মহা-বারুণী যোগ বলা হয়। প্রতি বছর চৈত্র মাসে তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের যাদুকাটা নদীর রাজারগাঁও সংলগ্ন স্থানে গঙ্গাস্নান অনুষ্ঠিত হয়। ভক্তরা এখানে তর্পণও (পিতৃ পুরুষের বিদেহী আত্মার শান্তির জন্য) করেন। এ উপলক্ষে এখানে লক্ষ লক্ষ ভক্তের সমাগম হয় এবং মেলা বসে। আনুমানিক ১৪৩৪ খ্রিস্টাব্দের মাঘ মাসে শ্রীশ্রী অদ্বৈত আচার্য তাহিরপুর উপজেলার লাউড় পরগণার অন্তর্গত নবগ্রামে আবির্ভূত হন। তবে নবগ্রাম যাদুকাটার নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে বহু আগেই। বর্তমানে অদ্বৈত আচার্য প্রভুর মন্দির গড়ে উঠেছে নবগ্রাম সংলগ্ন রাজারগাঁওয়ে।

‘অদ্বৈত প্রকাশ’ গ্রন্থে উল্লেখ আছে, একদিন রাত্রিতে অদ্বৈত জননী নাভাদেবী স্বপ্নে দেখেন যে, তিনি নানা তীর্থ জলে স্নান করছেন। প্রভাতে তিনি স্বপ্নের কথা স্মরণ করে ও তীর্থ গমনের নানান অসুবিধার বিষয় চিন্তা করে বিমর্ষ হয়ে পড়েন। এমন সময়ে পুত্র অদ্বৈতাচার্য সেখানে উপস্থিত হয়ে মাতার বিমর্ষতার কারণ জিজ্ঞাসা করলে তাঁর মাতা তাঁকে স্বপ্ন দর্শনের কথা অবহিত করেন এবং তীর্থযাত্রায় অপারগতার কথা প্রকাশ করেন। অদ্বৈাতাচায্যর্ মাকে বিষন্ন দেখে পণ করলেন যে, এই স্থানেই সকল তীর্থের আবির্ভাব করাবেন। অদ্বৈতাচার্য মন:শক্তির অসীম প্রভাব ও যোগবলের অসাধারণ শক্তিতে তীর্থ সমূহকে আকর্ষণ করে লাউড়ের এক শৈলের উপর আনয়ন করেন। ঐ শৈল খণ্ডের একটি ঝরণাতীর্থবারি পরিপূরিত হয়ে ঝরঝর করে পড়তে লাগলো। অদ্বৈত জননী তাতে স্নান করে পরিতৃপ্তা হলেন। এইভাবে লাউড়ে এই তীর্থের উৎপত্তি হয়। অদ্বৈতের ন্যায় তীর্থ সমূহও পণ করেছিলো যে, প্রতি বারুণীতেই এই স্থানে তাঁদের আবির্ভাব হবে। এই পণ শব্দ থেকেই নাম হয়েছে পণাতীর্থ।

এদিকে রাজারগাঁওয়ের নিকটবর্তী লাউড়েরগড় এলাকায় শাহ আরেফিনের মোকামে হযরত শাহজালালের (র.) সঙ্গী হযরত শাহ আরেফিনের (র.) বার্ষিক ওরস মোবারক শুরু হচ্ছে ৫ এপ্রিল। ৩৬০ আউলিয়াদের মধ্যে হযরত শাহ আরেফিন (র.) হলেন একজন। প্রকৃতপক্ষে হযরত শাহ আরেফিনের (র.) মোকাম সীমান্তের ওপারে ভারতের মেঘালয় পাহাড়ে অবস্থিত হলেও দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মুসলমান নর—নারী ওরস মোবারকে আসেন এবং দূর থেকে মোকাম জিয়ারত করেন। দুই উৎসবকে কেন্দ্র করে এলাকায় হিন্দু —মুসলমানদের মধ্যে এক মহামিলনমেলা দেখা যায়। শাহ আরেফিন (র.) অনেকের কাছে জিন্দাপীর হিসেবে পরিচতি। প্রতি বছর ওরস মোবারককে কেন্দ্র করে ভক্ত আশেকানের সমাগমে প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে ওরস মোবারক। সাধারণ দর্শনার্থীরা আসেন শাহ আরেফিনের স্মৃতি বিজড়িত বাংলাদেশ আস্তানায় এবং সেখান থেকেই একবার চোখ দিয়ে পরখ করে নেন অদূরে ভারতের মেঘালয় পাহাড়ে অবস্থিত শাহ আরেফিনের আস্তানার স্মৃতি চিহ্নের দিকে। কেউ আসেন মানত নিয়ে, আবার কেউ দোয়া নেন, কেউবা মোকাম জিয়ারত করেন।

অদ্বৈত জন্মধাম পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অদ্বৈত রায় বলেন, উৎসবে আগত পুণ্যার্থীদের সুবিধা ও যানজট নিরসনে ওয়ানওয়ে রাস্তায় যানবাহন চলাচল করবে। আব্দুজ জহুর সেতু থেকে যানবাহনের ভাড়াও নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। ৩ এপ্রিল থেকে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ট্রাক, ট্রাক্টর, কোস্টার, কোচ, মাহিন্দ্র ট্রাক্টর ইত্যাদি ভারী যানবাহন আব্দুজ জহুর সেতুর পূর্ব পাশে থাকবে। এছাড়াও আগত পুণ্যার্থীদের মধ্যে প্রসাদ বিতরণ ও থাকার যাত্রী নিবাসের ব্যবস্থাও আছে। সুষ্ঠুভাবে উৎসব সম্পন্ন করতে জোরেসোরে প্রস্তুতি চলছে।

অদ্বৈত জন্মধাম পরিচালনা কমিটির প্রচার সম্পাদক স্বপন কুমার বর্মন বলেন, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভাবে যাতে পুণ্যার্থীরা উৎসবে অংশগ্রহণ করতে পারেন সেজন্য উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসনের পাশাপাশি আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। ওয়ানওয়ে রাস্তা, ইভটিজিং রোধ, চাঁদাবাজি বন্ধে প্রশাসন কাজ করবে। পাশাপাশি ইউনিয়ন পরিষদ, গ্রাম পুলিশ, বিভিন্ন সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকরা সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে কাজ করবে।

হযরত শাহ আরেফিন (র.) আস্তানার সহ সভাপতি, বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন বলেন, ৫, ৬ ও ৭ এপ্রিল শাহ আরেফিন (র.) এর বাৎসরিক ওরস অনুষ্ঠিত হবে। ওরস উদযাপনে জোর প্রস্তুস্তি চলছে আমাদের।

তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন বলেন, উৎসবকে কেন্দ্র করে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে ইতোমধ্যে আমরা জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে মিটিং করেছি। আজ (শনিবার) অদ্বৈতবাড়ি ও ইসকন মন্দির ভিজিট করেছি। আগামীকাল (আজ রবিবার) তাহিরপুর উপজেলার স্থানীয় নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, চেয়ারম্যান, মেম্বার সকলকে নিয়ে আমরা বসব। এখানেও আইনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে। সবকিছু এখন ফাইনাল হয়নি, তবে আমরা গুছিয়ে আনছি।

তিনি আরও বলেন, ইনডোর এবং আউটডোর মিলিয়ে আমাদের সাড়ে ৫শ’—৬শ’ মতো পুলিশ নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে। অদ্বৈত বাড়ি, ইসকন, মন্দির সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হবে। হাই ফ্রিকোয়েন্সির ক্যামেরা ইনস্টল করা হয়েছে।

বিশ্বম্ভরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিক বলেন, গঙ্গাস্নান ও বারুণী মেলা এবং শাহ আরেফিন (র.) কেন্দ্র করে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। ভ্যানু কেন্দ্রিক, ট্রাফিক এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষা অর্থাৎ ছিনতাই প্রতিরোধে। উৎসবে আগতদের কাছ থেকে যেনো অতিরিক্ত ভাড়া আদায় না করা হয় সেদিকের আমাদের দৃষ্টি থাকবে। এছাড়াও আমাদের নৌ—টহল, ফুট পেট্রল, মোটরসাইকেল টহল থাকবে। আগামী ৪ এপ্রিল থেকে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত আমাদের এই কার্যক্রম চলবে।

তিনি আরও বলেন, এ বিষয়ে আজ (রবিবার) বিকাল ৪টায় থানায় মতবিনিময় সভা হবে। সভায় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ এহসান শাহ উপস্থিত থাকবেন।

অদ্বৈত জন্মধাম পরিচালনা কমিটির পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চোধুরী বাবুল বলেন, জনস্বার্থ এবং জনসেবায় সকল ব্যবস্থা আমরা গ্রহণ করেছি। প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজের সকলের সহযোগিতায় সার্বিক ব্যবস্থাপনার কাজ চলমান রয়েছে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই আমাদের প্রস্তুতি শেষ হবে ও পুণ্যার্থীদের সেবায় আমরা প্রস্তুত থাকবো।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস্) রাজন কুমার দাস বলেন, আমাদের ট্রাফিক ব্যবস্থা, টহল পার্টি, ফুট পেট্রল পার্টি থাকবে। উৎসব কেন্দ্রেও আমাদের পুলিশ মোতায়েন থাকবে। নতুন বাস্টস্টেশন, আব্দুজ জহুর সেতু, চালবন সহ পুরো চলাচলের পথে আমাদের নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে।( সূত্র – সুনামগঞ্জের খবর)

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com