শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই

পবিত্র মহররম মহিমা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৬৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
মহররম হিজরি বর্ষের প্রথম মাস। ইসলামের ইতিহাসে এই মাসটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব নানা কারণে তাৎপর্যবহ। এই মাসের ১০ মহররম আশুরা পালিত হয়ে থাকে। আর এদিনেই ইরাকের তৎকালীন রাজধানী কুফার ২৫ মাইল উত্তরে কারবালা প্রান্তরে হজরত ইমাম হোসেন (রা.) নরপিশাচ সিমারের হাতে শাহাদতবরণ করেন। মুসলিম জাহানসহ গোটা বিশ্বে এই মর্মান্তিক বিষাদময় ঘটনা মানব হূদয়ে শোকের মাতম তুলেছে।
হজরত ইমাম হোসেন (রা.) শাহাদতবরণের হূদয়বিদারক এই শোকাবহ ঘটনার পাশাপাশি ইসলামের ইতিহাসে ১০ মহররমের অসংখ্য তাৎপর্যময় ঘটনা উজ্জ্বল হয়ে আছে। যেমন এই পৃথিবীর সৃষ্টি, হজরত আইউবের (আ.) কঠিন পীড়া থেকে মুক্তি, হজরত ঈসার (আ.) আসমানে জীবিতাবস্থায় উত্থিত হওয়া এবং হজরত নূহর (আ.) নৌকা ঝড়-তুফানের কবল থেকে মুক্তি পাওয়াসহ অসংখ্য ঐতিহাসিক ঘটনার সঙ্গে ১০ মহররম অর্থাৎ ইয়াত্তমে আশুরা একটি মর্যাদাপূর্ণ দিন হিসেবে স্ট্মরণীয়। সর্বোপরি এই পৃথিবীর মহাপ্রলয় বা কিয়ামত ১০ মহররমে ঘটবে বলে বিভিম্ন গ্রন্থে উল্লেখ রয়েছে।
আইয়ামে জাহেলিয়াত অর্থাৎ অন্ধকার যুগের আগেও মহররমের পবিত্র ঐতিহ্য ছিল। হজরত ইমাম হোসেনের (রা.) শাহাদতবরণের মধ্য দিয়ে এ দিনটি সত্য, ন্যায়, আদর্শ ও আত্মত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত। হজরত ইমাম হোসেন (রা.) এই মহান দিনে ইয়াজিদের স্বেচ্চারিতার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছিলেন, বলিষ্ঠ প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে। এ দিনে শিশু-পুত্র আজগর এক ফোঁটা পানির জন্য নিহত হন। সেদিন অন্যায় ও অমানবিক যুদ্ধে অত্যাচারী ইয়াজিদের বাহিনী ছলনার আশ্রয় নিয়ে জয়ী হয়েছিল এবং নির্মম হত্যা করেছিল হজরত ইমাম হোসেনকে (রা.)।
ঐতিহাসিক ১০ মহররম শুক্রবার কারবালার প্রান্তরে যুদ্ধ শুরু হয়। একদিকে ইসলামের প্রতীক হোসেন পরিবার, অন্যদিকে ইয়াজিদি স্বৈরশাসনের প্রতিনিধিত্বকারী প্রায় ২২ হাজার সশস্ত্র সৈন্য এদের নেতৃত্ব দিচ্ছিল ইবনে, জিয়াদ ও সিমার। হজরত ইমাম হোসেন সুস্পষ্টভাবে অনুভব করেন, ইয়াজিদি সৈন্যরা তাকে প্রাণ নিধন করতে চায়। তিনি শিবিরে প্রবেশ করে সবাইকে নিয়ে জামাতের সঙ্গে ফরজের নামাজ আদায় করেন। নামাজান্তে তিনি তাঁবুতে প্রবেশ করলেন। তিন দিন ধরে হজরত ইমাম হোসেনের (রা.) শিবিরে পানি সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। অনাহারক্লিষ্ট সঙ্গী-সমর্থকদের প্রতি দৃষ্টিপাত করে হজরত ইমামের প্রাণ কেঁদে উঠল। তিনি নিশ্চিতভাবে অনুভব করলেন, এরা সবাই শত্রুদের হাতে নির্মমভাবে নিহত হবে। তিনি রণক্ষেত্রে গেলেন। শত্রুদের উদ্দেশে এক মর্মস্পর্শী ভাষণে বললেন :ভাই সকল, তোমরা নিশ্চয়ই জান যে, আমার পিতা-মাতা এবং রাসুলুল্লাহর দরবারে আমার মর্যাদা কত? স্ট্মরণ রাখ, আমি সেই ব্যক্তি যাকে মহব্বত করা রাসুলুল্লাহকে মহব্বত করার নামান্তর। অতএব, কাউকে অন্যায়ভাবে হত্যা করো না, তাহলে আল্লাহর গজব নেমে আসবে। আমি কাউকে হত্যা করিনি, কারও ঘরে আগুন লাগাইনি, কাউকে আক্রমণও করিনি। তবুও তোমরা কেন আমাকে হত্যা করতে চাইছ? তোমরা কোনোক্রমেই আমাকে খুন করার অপরাধ থেকে অব্যাহতি পাবে না। বরং আমার পথ ছাড়, আমি যেখান থেকে এসেছি, সেখানেই চলে যাই।
হজরত ইমামের (রা.) এই হূদয়বিদারক ভাষণেও পাষাণ শত্রুদের মন এতটুকু কোমল হলো না। বরং তারা বিভিম্ন কটূক্তি করে ইমামকে যুদ্ধের জন্য আহ্বান করল। হজরত ইমাম এবার শাহাদতের জন্য প্রস্তুত হলেন। জীবনের শেষ মুহূর্তে আল্লাহর দরকারে আরজি পেশ করলেন :হে রাব্বুল আলামিন, যে কোনো অবস্থাতেই আমরা আপনারই আশ্রয় প্রার্থনা করছি। আপনি আমাদের সবই দেখছেন। আমরা এখন বিপদগ্রস্ত। এরা আমাকে হত্যা করতে চায়, অথচ আমি নির্দোষ। এক ফোঁটা পানির জন্য নবী (সা.) পরিবারের সদস্যরা ছটফট করছে। এসবই আপনি দেখছেন। অতএব, আমরা আপনার কাছেই মিনতি করছি।
হজরত ইমামের এই মোনাজাতের পরই শুরু হলো কারবালার ঐতিহাসিক যুদ্ধ। হজরত ইমামের পক্ষে মাত্র ৭২ জন যোদ্ধা নারী (নারী ও শিশুসহ দশ জন যুদ্ধ থেকে বিরত ছিল)। পিপাসায় অর্ধমৃত ও বিবস্ত্রপ্রায় মুজাহিদরা শত্রু নিধন করে চলেছেন। যুদ্ধের এক পর্যায়ে একটি তীর এসে ইমামের কপালে বিদ্ধ হলো। তিনি প্রচন্ড বেদনা অনুভব করলেন। এই সময় মালেক ইবনে নাসির তাকে তলোয়ার দ্বারা আঘাত করেন। পিপাসায় কাতর ইমাম তখন আর তলোয়ার চালাতে পারছেন না। এদিকে ইয়াজিদের সৈন্যরা তাকে চারদিক থেকে আঘাত করতে থাকল। তবুও ইমাম ফোরাতের দিকে ছুটলেন, কিন্তু পারলেন না। হোসেইন ইবনে নোমাইর ও জোরাল ইবনে শোরাইক নামে দুই ব্যক্তির তীর নিক্ষেপ ও আঘাতে তিনি মাটিতে পড়ে যান। এরপরের ঘটনা বড় নির্মম। সিমারের হাতে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের প্রতীক হজরত ইমাম হোসেন (রা.) শাহাদতবরণ করেন।
১০ মহররমের বিভিম্ন দিক পর্যালোচনা করে এ কথা বলা যায়, মুসলিম জাহান এদিনটিতে কারবালা ময়দানের বিষাদময় স্ট্মৃতিকে ব্যথিতচিত্তে যেমন স্ট্মরণ করে, তেমনি এদিন এ শিক্ষাই গ্রহণ করে যে, সব মানবজাতির জন্য অন্যায়কারী সাময়িক বিজয় ইতিহাসে কোনোদিনই মর্যাদা পায়নি। অন্যায়কারীর প্রতি মানুষের প্রবল ঘৃণা এবং শাহাদতবরণকারী শ্রেষ্ঠ ব্যক্তি ইমাম হোসেনের (রা.) প্রতি অপার শ্রদ্ধা আজও আমরা দেখতে পাই এই মহান দিনটিতে। ১০ মহররম শুধু শোকের কালো দিবসই নয়, এর মধ্যে রয়েছে অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর জন্য কঠিন শপথ নেওয়ার আকাগ্ধক্ষা। কাজী নজরুল ইসলাম তাই বলেছেন, ‘ত্যাগ চাই মর্সিয়া, ক্রন্দন চাহি না।’ কারবালার মর্মান্তিক ঘটনার মধ্য দিয়ে এ শিক্ষাই গ্রহণ করতে পারি যে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে জীবনপণ সংকল্প গ্রহণ মানবতার প্রতি চরম মূল্য দেওয়াই নামান্তর। এই মহৎ প্রাণদের জন্য শোকাশ্রু ও বেদনার্ত বিলাপ হূদয়ের গভীর ভালোবাসা ও মানবতার প্রতি অবিচল বিশ্বাস থেকে উৎসারিত।
মুসলিম জাহানের কাছে ঐতিহ্যমন্ডিত আশুরার দিন অত্যাচারী ইয়াজিদ মানুষের জীবনের আনন্দকে হত্যা করতে চেয়েছে। পবিত্রতাকে কলুষিত করতে চেয়েছে। কিন্তু পাষাণ হূদয় সিমারের খঞ্জর হজরত ইমাম হোসেনের (রা.) শিরশ্ছেদ করলেও মানুষের মহত্ত্বকে, মহানুভবতাকে এবং পবিত্র ধ্যান-ধারণাকে হত্যা করতে পারেনি। কারবালার নৃশংস হত্যাকান্ড, রাজ্যলোভী ইয়াজিদের উন্মত্ততার পর শত শত বছর অতিবাহিত হয়েছে; কিন্তু ১০ মহররম আসে তেমনি তরতাজা শোকের মাতমে, মর্মবিদারক হাহাকারে অন্যায়কারীর প্রতি তীব্রতম ধিক্কার বহন করে। ন্যায়ের জন্য ত্যাগ, এমনকি জীবন বিসর্জন দেওয়ার অপূর্ব দৃষ্টান্ত হিসেবে ১০ মহররম সব মানুষের কাছে অনুসরণীয় আদর্শ হিসেবে গণ্য হবে; অনাগত যুগ-যুগান্তর ধরে ঐতিহাসিক ১০ মহররম চিরকালে নির্যাতিত মানুষের অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার অনুপ্রেরণা জোগাবে।
সত্যের জন্য শাহাদতবরণের এই দৃষ্টান্ত সব আনুষ্ঠানিকতার গন্ডি ছাড়িয়ে এর অন্তর্গত ত্যাগ ও তিতিক্ষার তাৎপর্য তুলে ধরার মধ্যেই রয়েছে মহররমের ঐতিহাসিক তাৎপর্য। এদিন শিক্ষা দিয়েছে যে, সত্য কখনোই অবনত শির হতে জানে না। জীবনের চেয়ে সত্যের শ্রেষ্ঠত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য হজরত ইমাম হোসেনের (রা.) অভূতপূর্ব আত্মবিসর্জন মুসলিম বিশ্বে এক ঐতিহাসিক নজির। আশুরার শিক্ষা আর শোক নয়, প্রতিবাদের সংগ্রামী চেতনা নিয়ে এবং সত্য প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই, প্রয়োজনে আত্মবিসর্জন- এটাই মহররমের তাৎপর্যমন্ডিত শিক্ষা।
সভাপতি, বাংলাদেশ সীরাত মিশন, ঢাকা

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24