1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের যা বললেন রিমঝিম মম - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের যা বললেন রিমঝিম মম

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৫৯৮ Time View

সবাইকে নববর্ষের আন্তরিক শুভেচ্ছা। তোমাদের স্বপ্ন পূরণের মধ্য দিয়ে এই বছরটা তোমাদের কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকুক এই প্রত্যাশায় আমি আমার বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার দীর্ঘ জার্নির মধ্য দিয়ে যে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি তাই তোমাদের সাথে শেয়ার করতে চাই।
যারা এ বছর এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছো আর কিছুদিনের মধ্যেই তোমাদের রেজাল্ট দিয়ে দেবে। তোমরাও নিশ্চয়ই ইতিমধ্যে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে তোমার পছন্দের সাবজেক্টটি পাবার জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছো। তোমাদের সবার জন্য আমার আন্তরিক শুভ কামনা রইলো।
এখন আমি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নের ধরণ, মানবন্টন, পরীক্ষায় পাশের ধাপ সমূহ সহ নানা বিষয়ে আমার যে অভিজ্ঞতা হয়েছে তাই তোমাদের সাথে শেয়ার করবো। এতে যদি আমার সুনামগঞ্জ জেলার একজন শিক্ষার্থীও উপকৃত হয় তবে আমি কৃতার্থ হবো।
আমি প্রথমেই বলে নেই আমি জগন্নাথপুর উপজেলার স্কুল কলেজে পড়াশুনা করেছি। জগন্নাথপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয় থেকে ৪.৫০ জিপিএ নিয়ে মানবিক বিভাগ থেকে এসএসসি এবং জগন্নাথপুর সরকারি কলেজ থেকে জিপিএ ৫ নিয়ে এইচএসসি পাশ করেছি। আমি কোন অফ লাইন কোচিং সেন্টারে ভর্তি হইনি। নিজে নিজেই পড়াশুনা করেছি এবং কিছুদিন অনলাইনে ফ্রি ক্লাস ও করেছি। তাছাড়া আমি মনে করি যে কোন কোচিং এর চেয়ে বেশী প্রয়োজন তোমার নিজের ইচ্ছার দৃঢ়তা ও নিরন্তর প্রচেষ্টা। আমি বাংলাদেশের একটি বিশ্ববিদ্যালয় (BUP) ছাড়া সব বিশ্ববিদ্যালয়েই ভর্তি পরীক্ষা দিয়েছি কিন্তু কোথাও অকৃতকার্য হইনি। গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের মধ্যে চাইলে আমি যেকোন বিশ্ববিদ্যালয়ে যে কোন সাবজেক্টে ভর্তি হতে পারতাম। গুচ্ছভুক্ত পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়ে আমি আবেদন করেছিলাম সেখানে পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়েই ইংরেজি সাহিত্য, ইংংরেজি ভাষা, লোকপ্রশাসন, সমাজবিজ্ঞান সাবজেক্ট পেয়েছি। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি ভাষা পেলেও যেহেতু আমার ইচ্ছে ছিল সাস্টে ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে পড়ার তাই সাস্টেই ইংরেজি সাহিত্য বিভাগে ভর্তি হই। আমি রাজশাহীতে আইবিএ তে ভর্তির সুযোগ পেয়েও ভর্তি হইনি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে একাউন্টটিং বিষয়ে ভর্তি হয়েও গুচ্ছের রেজাল্ট দেবার সাথে সাথেই আমি সেই ভর্তি বাতিল করেছি। নিজের সম্পর্কে এতগুলো কথা বলেছি আত্মপ্রচারের জন্য নয়, তোমাদেরকে এই বিশ্বাসটা দেবার জন্য যে, জগন্নাথপুরের মত জায়গায় থেকেও যদি আমি সফল হতে পেরেছি তোমারদের জন্য তো তা আরো সহজ হবে। শুধু একটু চেষ্টা করতে হবে বুঝে শুনে। তোমার/তোমাদের সেই প্রচেষ্টা কেমন হওয়া উচিত বিশ্ববিদ্যালয় ধরে ধরে আমি সে আলোচনার চেষ্টা করবো।
প্রথমেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কথায় আসি। আমারও স্বপ্ন ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্ত অনভিজ্ঞতার কারনে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভালো সাবজেক্ট পাইনি। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এমসিকিউ অংশে বিশটি প্রশ্নের উত্তর দেইনি সংশয়ের কারনে। যে সমস্ত প্রশ্নের দুটো উত্তরের মধ্যে আমার সংশয় ছিল যদি আমি সেগুলোর উত্তর সাহস করে দিতাম তবে আমার আরো দশ নম্বর বেড়ে যেতো এবং আমি আমার প্রত্যাশিত সাবজেক্ট পেয়ে যেতাম। যেহেতু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা সবার আগে হয়েছে তাই কোন প্রকার রিক্সে যাইনি। তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অভিজ্ঞতা আমাকে পরবর্তী পরীক্ষাগুলোতে প্রচুর সাহায্য করেছে। যখনই আমি কোন প্রশ্নের শুধুমাত্র দুটো উত্তর নিয়ে সংশয়ে পড়েছি তখন আমি সাহস করে উত্তর দিয়েছি এবং ৮০% ক্ষেত্রেই তা সঠিক হয়েছে। তবে সংশয় যদি দুইয়ের অধিক উত্তরের ক্ষেত্রে সৃষ্টি হয় তবে সে সমস্ত উত্তর না দেওয়াই উচিৎ। যাহোক এখন আসি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নের ধরন সম্পর্কে।
অন্য যেকোন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হবার পদ্ধটি সম্পূর্ণ ভিন্ন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় সাতটি ধাপে পাশ করতে হয়। প্রথম চারটি ধাপের যে কোন একটিতে ফেল করলেই আউট।
প্রথম ধাপের এমসিকিউ অংশে চারটি ধাপ। বাংলা, ইংরেজি ও সাধারণ জ্ঞানের উপর পরীক্ষা হয়ে থাকে। বাংলায় পাশমার্ক ৫, ইংরেজিতে পাশমার্ক ৫ এবং সাধারণ জ্ঞানের পাশমার্ক ৫। আবার এই তিনটি বিষয় মিলিয়ে ২৪ পেলে এমসিকিউ তে পাশ ধরা হয়। তখনই শুধুমাত্র লিখিত খাতা দেখা হয়। লিখিত অংশেও বাংলা এবং ইংরেজিতে আলাদা আলাদা ভাবে পাশ করতে হয় বাংলাতে ২০ এর মধ্যে ৫ পেতে হয় এবং ইংরেজিতে ও ২০ এর মধ্যে ৫ পেতে হয় আবার দুই বিষয় মিলে নূন্যতম ১১ পেতে হয়। আবার এমসিকিউ ও সিকিউ মিলিয়ে নূন্যতম ৪০ পেতে হয়। আর জিপিএ এর উপর মার্কস থাকে ২০।তাই সত্তর হাজার পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিলেও খাতা দেখা হয় সর্বোচ্চ দশ হাজার পরীক্ষার্থীর।
প্রশ্নের ধরণঃ
বাংলা সাহিত্য ও সহপাঠ থেকেই প্রশ্ন থাকে। ব্যাকরণ অংশের প্রশ্ন পাঠ্যবই অনুসারে হলেও বেসিক কতটা স্ট্রং তা বাংলা ও ইংরেজি এমসিকিউ তে যাচাই করা হয়। সাধারণ জ্ঞানে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের অপেক্ষা সাম্প্রতিক বিষয়ের উপর প্রশ্ন বেশী থাকে।
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আসন সংখ্যা খুবই কম। তাছাড়া সব বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্ন অপেক্ষা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্ন অনেক বেশী কঠিন হয়। রাজশাহী ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে সেকেন্ড টাইমারা বেশী ভর্তি হয়। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা হয় ৮০ মার্কের উপর আর জিপিএ থাকে ২০ মার্ক। প্রসঙ্গত রাজশাহীতে জিপিএ এর উপর কোনো নম্বর থাকে না। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এমসিকিউ প্রশ্ন থাকে মোট ৮০ টি কিন্তু পরীক্ষা হয় ১০০ মার্কস এর অর্থাৎ ১ টি প্রশ্নের মান ১.২৫ নম্বর।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ঃ বাংলা অধ্যায়ের পাশাপাশি লেখকের উপর বেশী গুরুত্ব দেয়া হয়। ইংরেজি বিষয়ে Cliffs Toefl পড়াটা খুব প্রয়োজন। ‘বি’ ইউনিটের চেয়ে ‘ডি’ ইউনিটের প্রশ্ন তূলনামূলক ভাবে কঠিন হয়। প্রশ্ন হয় সম্পূর্ণ সিলেবাস থেকে। আই কিউ থেকেও প্রশ্ন থাকে।
সবশেষে গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন নিয়ে দুচারটা কথা বলেই লিখাটা শেষ করবো। গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে বিষয়ভিত্তিক আলাদা পাশ মার্ক নেই। বাংলা, ইংরেজি, জিকে মিলিয়ে মোট ৩০ পেলেই পাশ। কিন্তু চান্স পাওয়ার জন্য আরো বেশি নম্বরের প্রয়োজন হবে। ৫৬-৬০ সেইফ জোন।
বাংলা প্রশ্ন মোটামুটি সহজ হয়। ইংরেজি প্রশ্ন স্ট্যান্ডার্ড হয় আর সাধারণ জ্ঞানের প্রশ্ন বিষয় ভিত্তিক হয়। যেমন- অর্থনীতি, সমাজবিজ্ঞান, ইতিহাস, পৌরনীতি ও সুশাসন, যুক্তিবিদ্যা ও আইসিটি থেকে হয়। আর সাম্প্রতিক বিষয়াবলী থেকেও কিছু প্রশ্ন থাকে। গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো কোনোটিতে জিপিএ এর উপর মার্ক থাকে আর কোনো কোনোটিতে থাকে না। যেমনঃ নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে জিপিএ এর উপর মার্ক ছিলো ১০০। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিলো ২০ আর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিপিএ এর উপর কোনো মার্ক ছিলো না।
উপরোক্ত বিষয়গুলো বিবেচনা করে যদি তুমি ভালভাবে প্রস্তুতি নাও তবে সফল হবেই। আর কারো যদি কিছু জানার থাকে আমার ইমেইলে যোগাযোগ করতে পারো। সাধ্যনুযায়ী চেষ্টা করবো তোমাদের সহযোগিতা করতে।
সবার সাফল্য কামনায়
রিমঝিম মম
ইংরেজি বিভাগ (প্রাথমিক ভর্তি)
শিক্ষাবর্ষ ২০২১-২০২২
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট।
email :rimjhimmomo@gmail.com

শিরোনাম ঃ যারা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চাও





শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com