1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
ভালা মানুষ জয়ী হইছে, আমরা খুশি - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ১২:১২ পূর্বাহ্ন

ভালা মানুষ জয়ী হইছে, আমরা খুশি

  • Update Time : শনিবার, ২৭ মে, ২০২৩
  • ৬৫৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি – সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বড় জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী সবার কাছে ভালো মানুষ হিসেবে পরিচিত নুরুল ইসলাম। নৌকা প্রতীকে তিনি ১১ হাজারের বেশি ভোটের ব্যবধানে বড় জয় পান। তাঁর এ চমকপ্রদ জয়ের পেছনে রয়েছে ভালো মানুষ হিসেবে তাঁর পরিচিতি ও দলের ঐক্য।
আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জানান, গত ২ নভেম্বর জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল হোসেন নৌকা প্রতীকে ২৩ হাজার ৩২৪ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন।তাঁর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় ছিলেম জমিয়ত উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী তালহা আলম তিনি পান ১৮ হাজার ৬৬৭ ভোট।
২৬ ডিসেম্বর আকমল হোসেন মৃত্যু বরণ করলে ৫ মাসের ব্যবধানে আবারও উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ১২ জন প্রার্থী দলের মনোনয়ন সংগ্রহ করেন। কিন্তু দলের মনোনয়ন বোর্ড জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক পরিকল্পনামন্ত্রীর অনুসারী নুরুল ইসলাম কে মনোনয়ন দেন। নুরুল ইসলাম একজন সজ্জন রাজনীতিবীদ ও ভালো মানুষ হিসেবে সর্বমহলে পরিচিত। তাঁর মনোনয়ন কে চমক হিসেবে দেখেন নেতাকর্মী ও ভোটাররা। এরপরও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আজিজুস সামাদ ডন অনুসারী হারুণ রাশীদ বিদ্রোহী প্রার্থী হন। এছাড়াও প্রার্থী হন গত নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বী যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী তালহা আলম, জমিয়ত উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুল কাইয়ুম কামালী, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী আতাউর রহমান (লাঙ্গল)। প্রচারণার শুরুতে কালো টাকা ছড়িয়ে প্রবাসী প্রার্থীরা নির্বাচনী মাঠে আলোড়ন তোলার চেষ্টা করলেও ভালো মানুষ হিসেবে নুরুল ইসলাম প্রচারণায় বাড়তি সুবিধা পান। ফলাফলে নুরুল ইসলাম ২২ হাজার ২১২ আর প্রতিদ্বন্দ্বী তালহা আলম ১১ হাজার ২০৩ ভোট পান।
জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির এক জ্যেষ্ট নেতা হবিবপুর গ্রামের বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার অনুরোধে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, বিএনপি দলীয়ভাবে নির্বাচনে যায়নি। তবে একজন ভালো মানুষ আমরা নুরুল ইসলাম কে দলমতের উর্ধে উঠে ভোট দিয়েছি। যার প্রমাণ হবিবপুর গ্রামের বিএনপি আধিক্যের দুটি ভোট কেন্দ্রে নৌকার বিজয়।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমেদ মুক্তা বলেন, সব মহলে গ্রহনযোগ্যতা ও দলীয় ঐক্যের কারণে কালো টাকার বিরুদ্ধে বড় জয় পেয়েছেন তিনি। তাঁর পক্ষে প্রচারণায় যেখানে গিয়েছি সবাই বলেছেন তিনি ভালো মানুষ। তিনি জানান, জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন ধরে দুই ধারায় বিভক্ত। আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আজিজুস সামাদ নৌকার পক্ষে এসে মাঠে কাজ করায় দলের বিভক্তি দুর হয়ে যায়।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু বলেন, পরিকল্পনা মন্ত্রীর উন্নয়নের ধারাকে এগিয়ে নিতে তাঁর সমর্থিত প্রার্থী ও একজন ভালা মানুষ হিসেবে জনগণ বিপুল ভোটে নৌকা প্রতীকে তাকে নির্বাচিত করেছেন। তিনি বলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কঠোর বার্তা দলীয় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে বিজয়ের পথ কে সুদৃঢ় করেছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ সাবেক চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলার মানুষ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে সব সময় সঠিক রায় দিয়েছে। প্রথম উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু খালেদ চৌধুরী থেকে নুরুল ইসলাম সবাই স্বমহিমায় সমৃদ্ধ। নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান আমার কলেজ জীবনের অগ্রজ।তিনি নিঃসন্দেহে একজন ভালো মানুষ। তাকে বিজয়ী অভিবাদন।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com