1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
মসজিদের মালিকানা মহান আল্লাহর - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৯:০৯ পূর্বাহ্ন

মসজিদের মালিকানা মহান আল্লাহর

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৭ Time View
মসজিদ আল্লাহর ঘর। মসজিদের মালিকানা আল্লাহর। তাই মসজিদগুলো ‘বায়তুল্লাহ’ বা ‘আল্লাহর ঘর’ নামে পরিচিত। এই শব্দগুচ্ছ কোরআন ও হাদিসে ব্যবহৃত হয়েছে।ইবরাহিম (আ.) স্ত্রী হাজেরা ও পুত্র ইসমাঈল (আ.)-কে কাবা ঘরের পাশে রেখে এই বলে আল্লাহর কাছে দোয়া করেছিলেন—‘হে আমাদের রব! আমি আমার সন্তানদের একাংশকে তোমার এই পবিত্র (কাবা) গৃহের সন্নিকটে চাষাবাদহীন উপত্যকায় রেখে যাচ্ছি। হে আমাদের রব! যেন তারা সালাত কায়েম করে। অতএব, কিছু মানুষের অন্তর তুমি তাদের প্রতি আকৃষ্ট করে দাও এবং তাদের ফল-ফলাদি দ্বারা জীবিকা দান করো, যাতে তারা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে।’ (সুরা : ইবরাহিম, আয়াত : ৩৭)

সাঈদ বিন জুবায়ের (রা.) বলেন, আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, পৃথিবীতে মসজিদগুলো আল্লাহর ঘর

এগুলো আসমানবাসীর জন্য তেমনি আলোকিত, যেমনি দুনিয়াবাসীদের জন্য আকাশের তারকাগুলো আলোকিত। (মাজমাউজ জাওয়ায়েদ ২/১০)

 

 

মসজিদের মালিক আল্লাহ

পৃথিবীর সব কিছুর একচ্ছত্র মালিক হচ্ছেন আল্লাহ। এর পরও পবিত্র কোরআনে বিশেষভাবে মসজিদের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘অতএব তারা যেন ইবাদত করে এই গৃহের মালিকের।

’ (সুরা : কুরাইশ, আয়াত : ৩)অন্য আয়াতে আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই মসজিদগুলো আল্লাহর জন্য। অতএব, তোমরা আল্লাহর সঙ্গে অন্য কাউকে আহ্বান কোরো না।’ (সুরা : জিন, আয়াত : ১৮)

অন্য আয়াতে তিনি বলেন, ‘তার চেয়ে বড় জালিম আর কে আছে যে আল্লাহর মসজিগুলোতে তাঁর নাম উচ্চারণ করতে বাধা দেয় এবং সেগুলো বিরান করার চেষ্টা চালায়?’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১১৪)

 

মসজিদে নেওয়া হয় আল্লাহর নাম

মসজিদে শুধু আল্লাহর গুণকীর্তন হয়, শুধু তাঁরই নাম নেওয়া হয়। মহান আল্লাহ বলেন, ‘(উক্ত জ্যোতি থাকে) মসজিগুলোতে, যেগুলোকে আল্লাহ মর্যাদামণ্ডিত করার এবং সেখানে আল্লাহর নাম স্মরণ করার ও সকাল-সন্ধ্যায় তাঁর তাসবিহ-তিলাওয়াতের আদেশ করেছেন। (মসজিদ আবাদকারী) ওই লোকগুলো তারাই, যাদের ব্যবসা-বাণিজ্য বা ক্রয়-বিক্রয় আল্লাহর স্মরণ থেকে এবং সালাত কায়েম ও জাকাত প্রদান থেকে বিরত রাখে না।

তারা ভয় করে সেই দিনকে, যেদিন তাদের হৃদয় ও চক্ষু বিপর্যস্ত হবে।’

 

(সুরা : নুর, আয়াত : ৩৬-৩৭)

 

সালাত আল্লাহর, সালাত আদায়ের উত্তম স্থান মসজিদ

ঈমানের পর বান্দার ওপর ফরজ কাজ হলো সালাত আদায় করা। এই সালাত শুধু আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য আদায় করা হয়। ফরজ সালাত আদায়ের উত্তম স্থান হলো মসজিদ। আর নফল সালাতের উত্তম স্থান হলো বাড়ি। আবুদ্দারদা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, যে গ্রামে বা অঞ্চলে তিনজন মানুষ বসবাস করবে, সে স্থানে জামাতে সালাত আদায় করা না হলে তাদের ওপর শয়তান জয়ী হয়। অতএব, তুমি জামাতকে নিজের জন্য অপরিহার্য করে নাও। কারণ দলচ্যুত ছাগলকে নেকড়ে বাঘ ধরে খেয়ে ফেলে। (আবু দাউদ, হাদিস : ৫৪৭)

 

আল্লাহর জিকির ও কোরআন তিলাওয়াতের উর্বর ভূমি

মসজিদ শুধু সালাতের স্থান নয়, বরং সালাতের সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহর জিকির ও কোরআন তিলাওয়াতেরও স্থান। আনাস (রা.) বলেন, একদিন আমরা রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সঙ্গে মসজিদে ছিলাম। এমন সময় জনৈক বেদুইন এসে মসজিদে দাঁড়িয়ে পেশাব করতে লাগল। সাহাবিরা বলে উঠলেন, থামো, থামো। তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, তাকে পেশাব করতে বাধা দিয়ো না। তাকে পেশাব করতে বাধা দিয়ো না, তাকে তার অবস্থায় ছেড়ে দাও। তাই সাহাবিরা তাকে ছেড়ে দিলেন। পেশাব শেষ করলে রাসুলুল্লাহ (সা.) তাকে ডেকে বলেন, এই মসজিদগুলোতে পেশাব ও অপবিত্রকরণের কোনো কাজ করা জায়েজ নয়। বরং এটা শুধু আল্লাহর জিকির, সালাত ও আল্লাহর কালাম তিলাওয়াতের জন্য। অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সা.) মসজিদে উপস্থিত একজনকে নির্দেশ দিলেন—সে এক বালতি পানি এনে (পেশাবের ওপর) ঢেলে দিল।

(বুখারি, হাদিস : ১২২১)

সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com