1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শাল্লায় একটি হত্যাকাণ্ডকে ধামাচাপা দিতে আরেকটি হত্যা! - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১০:৩০ অপরাহ্ন

শাল্লায় একটি হত্যাকাণ্ডকে ধামাচাপা দিতে আরেকটি হত্যা!

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৬ জুলাই, ২০২৩
  • ১১৮ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

সুনামগঞ্জের শাল্লায় বাজার ভিটের দখল নিয়ে দুইপক্ষের সংঘর্ষে সাবেক একজন ইউপি সদস্যসহ দুই খুনের ঘটনা নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পর স্থানীয় রাজনীতিকরাও দুইপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। একপক্ষ বলছে, সংঘর্ষের সময় হওয়া খুনের ঘটনাকে ধামাপাচা দিতে নিজেরাই নিজেদের লোককে খুন করে অপরপক্ষকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে।
স্থানীয় লোকজন জানান, সাতপাড়া বাজারের একটি ভিট নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই পাশের কার্তিকপুরের মুজিবুর রহমান ও ইউসুফ মিয়ার লোকজনের বিরোধ ছিল। ঘটনার দিন (২৭ জুন) একপক্ষ ভিটায় দোকান নির্মাণ শুরু করলে অপরপক্ষ বাঁধা দেয়। এসময় সংঘর্ষ বাঁধে। সংঘর্ষের সময় মুজিবুর রহমানের চাচা হাবিবুর রহমান প্রতিপক্ষের ঠেটার আঘাতে মারা যান। এই সংঘর্ষ ঠেকাতে পুলিশও আহত হয়। পরে বিকালে প্রচার হয় ইউসুফ মিয়ার ভাতিজা হেলাল মিয়াও সংঘর্ষের ঘটনায় খুন হয়েছেন। পুলিশ রাতে দুটি খুনের মামলা গ্রহণ করে। একটি মামলায় হাবিবুর রহমানের স্ত্রী মিনা বেগম বাদী হয়ে ইউসুফ মিয়া, নিজাম উদ্দিনসহ ৩৬ জনকে আসামী করা হয়। অপর মামলা দায়ের করেন হেলাল মিয়ার চাচাতো বোন মিনারা বেগম বাদী হয়ে। এই মামলায় মুজিবুর মিয়াসহ ৩৪ জনকে আসামী করা হয়। আরেকটি মামলা হয় পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর রাজীব দে বাদী হয়ে। পুলিশ এসল্টের ঘটনায় দায়ের করা এই মামলায় ১৯ জনকে আসামী করা হয়।

পুলিশের এই পাল্টাপাল্টি মামলা নেবার ঘটনায় ক্ষুব্ধ হন স্থানীয় রাজনীতিবিদদের বড় অংশ। তারা বলেছেন, একটি খুনকে ধামাচাপা দেবার জন্য আরেকটি খুনের ঘটনা হয়েছে। অর্থাৎ যারা প্রথম খুন করেছে, দ্বিতীয় খুনের জন্য তাদেরকেই দায়ী করতে চান এই পক্ষের লোকজন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি শাল্লা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছত্তার মিয়া বললেন, সংঘর্ষের সময় পুলিশের সঙ্গে আমিও ঘটনাস্থলে ছিলাম। অনেক চেষ্টা করেও সংঘর্ষ ঠেকাতে পারি নি। হেলাল মিয়া আমার পরিচিত। সংঘর্ষের সময় আমি তাকে দেখি নি। আমি শুনেছি ঘটনার সময় সে আজমিরিতে ছিল। সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে সাড়ে দশ টা থেকে ঘণ্টা খানেক। কিন্তু বেলা একটার পর একজন মাঝি তাকে  (হেলাল মিয়াকে) পাশের আদিত্যপুরে দেখেছে। তিনি বললেন, বিকালে যখন হেলাল মিয়ার মৃত্যুর খবর প্রচার হলো, তখন সকলে হতবাক হয়ে গেছে। হেলাল ও হাবিবুর দুজনের বাড়ী কার্তিকপুরে। অথচ. হেলালের মৃতদেহ দাফন হলো কার্তিকপুরের চার কিলোমিটার দূরের শ্রীহাইলে। যেখানে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাহেব আলামিন চৌধুরী’র বাড়ী। এর আগে কার্তিকপুরের কোন মৃতদেহ শ্রীহাইলে দাফন হয় নি।
কার্তিকপুরের পাশের নেত্রকোণার খালিয়াজুড়ী উপজেলার মুরাদপুরের সুনীল সরকারও দাবি করলেন, হেলাল মিয়াকে ঘটনার দিন বেলা দেড়টায় আদিত্যপুরে পেয়েছেন তিনি। পরে বিকালে শুনেন সে খুন হয়েছে।
হেলাল মিয়ার প্রতিবেশী সংরক্ষিত নারী আসনের ইউপি সদস্য রেহেনা আক্তার জানালেন, সংঘর্ষের পর তিনি দুইপক্ষেরই খোঁজ নিয়েছেন। হাবি মেম্বার (সাবেক ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান) কে গুরুতর আহত অবস্থায় যেতে দেখেছেন তিনি। হেলাল মিয়া’র আহতের কোন খবর তার কোন স্বজন  (হেলালের আত্মীয় স্বজন) তাকে কেউ জানায় নি। তিনি বললেন, আমি শুনেছি সংঘর্ষের পর তাদের লোকজনের সঙ্গেই হেলাল নৌকায় করে হাওরের দিকে গেছে।
স্থানীয়ভাবে প্রচার আছে হেলালের চাচা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলামিন চৌধুরী’র ঘনিষ্টজন।
আলমিন চৌধুরী’র কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বললেন, ঘটনার দিন আমি সিলেটে রওয়ানা দিয়েছি। এরমধ্যেই সাতপাড়া থেকে দুইপক্ষই মারামারি ঘটনা জানায় তাকে। পরে থানার ওসি ফোন দিয়ে জানিয়েছেন, সাতপাড়ায় খুন হয়েছে, তিনি ওখানে যাচ্ছেন। এরপর বিকালে আরেকজন নিহতের খবর পান তিনি। তিনি বললেন, ঘটনার পর একপক্ষ এই ঘটনা সাঝানো দাবী করেছেন, তাঁর মতে, এমন হলে পুলিশের তদন্তের বেরিয়ে আসবে। অপরাধী অপরাধের ছাপ রেখে যায়।

শাল্লা থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বললেন, সাতপাড়া’র সংঘর্ষের পর দুটি খুনের মামলা নিয়েছেন তারা। ঘটনার পর নানা জায়গা থেকে ফোন আসছে, নানা তথ্যও তারা সংগ্রহ করছেন। মামলা সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করার কোন ব্যত্যয় ঘটবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। হেলাল মিয়ার মৃতদেহ শ্রীহাইলে দাফন হলো কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই বিষয়ে তিনি কিছুই বলতে পারবেন না। তিনি জানালেন, ঘটনার পর দুইপক্ষের ছয়জন গ্রেপ্তার হয়েছেন। সকলকেই আদালতের মাধ্যমে জেলা হাজতে পাঠানো হয়েছে।
ঘটনার পরদিন থেকে দুইপক্ষেরই বাড়ীঘরে কেউ নেই। মুঠোফোনও বন্ধ থাকায় নিহত হেলাল মিয়া ও হাবিবুর রহমানের পরিবারের কারো বক্তব্য নেওয়া যায় নি।
স্থানীয় সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তা বললেন, সাতপাড়ার সংঘর্ষের ভিডিও ফুটেজ আছে, ওখানে হেলালকে দেখা যায় নি। সাবেক ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান ঠেটা বিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন। তিনি জানালেন, ওসিকে তিনি বলেছেন, তদন্ত যেন সুষ্ঠু হয়। মিথ্যা-বানোয়াট কোন কিছু যেন ওঠে না আসে।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com