বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

সব চেষ্টা ব্যর্থ, তলিয়ে গেল শনি কৃষক পরিবারে চলছে আহাজারি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৬
  • ৮৫ Time View

হাওরাঞ্চল প্রতিনিধি-
সব চেষ্টা ব্যর্থ করে তলিয়ে যাচ্ছে তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের সামনে অবস্থিত জেলার অন্যতম বৃহৎ হাওর শনি। গতকাল সোমবার রাত সাড়ে আটটায় হাওরটির বগিয়ানী স্লুইচগেট সংলগ্ন নান্টুখালী বাঁধটি ২০ ফুট দীর্ঘ হয়ে ভেঙ্গে পড়ে। ভেঙ্গে যাওয়া অংশ দিয়ে তীব্র ¯্রােতে বৌলাই নদীর পানি ঢুকছে হাওরটিতে। এতে করে হাওরটিতে চাষকৃত সাড়ে নয় হাজার হেক্টর জমির এক ফসলী আধা পাকা বোরো ধানের ৯৫ ভাগ ফসলই মঙ্গলবার মধ্য রাতের মধ্যেই পানিতে তলিয়ে যাবে। এর মধ্যে তাহিরপুর উপজেলার কৃষকরা সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর এবং পাশর্^বর্তী জামালগঞ্জ ও বিশম্ভরপুর উপজেলার কৃষকরা ৩ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করেছিলেন। বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ার খবরশুনে হাওরপাড়ের অর্ধশতাধিক গ্রামের কৃষক পরিবারে চলছে আহাজারি।
হাওরপাড়ের বাসিন্দারা জানান , স্বাধীনতার পর কোনদিন এভাবে শনির হাওরে ফসলডুবি ঘটেনি। বেড়ী বাঁধের গঠন বৈশিষ্ট্য আর স্থানীয় জনগণের নজরদারি ও স্বেচ্ছাশ্রমে জেলার সব কয়টি হাওর ডুবে গেলেও শনির হাওরটি অকাল বন্যার হাত থেকে ঠিকে ছিল অতীতের বছরগুলোতে। ২০১০ সালে জেলার সব কয়টি হাওর পানিতে তলিয়ে যায়। কিন্তু শনির হাওর ঠিকে ছিল। কিন্তু এবার অকালে হাওরটির ফসল পানিতে তলিয়ে যাওয়া কৃষকরা ক্ষুব্ধ।
গতকাল সোমবার তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল , ইউএনও মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন, ওসি মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, সদর ইউপি চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন, ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হাফিজ উদ্দিন, যুবনেতা মেহেদী হাসান উজ্জ্বল সহ বিপুল সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবী ও হাওরপাড়ের কৃষকরা রাত পর্যন্ত কাজ করেছেন শনির হাওরের বাঁধে। দুপুর ১ টার দিকে জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নের জালখালী বাধঁটি ভেঙ্গে যায়। এ খবর শুনে তাঁরা স্থানীয় কৃষক ও যুবকদের নিয়ে বাঁধটি বিকেল ৪ টার দিকে সাময়িকভাবে রক্ষা করতে সক্ষম হন। বাঁধ দিয়ে হাওরের প্রবেশ করা পানির ¯্রােত ঠেকাতে ষ্টীল দ্বারা নির্মিত বালু ভর্তি ২টি নৌকা ডুবিয়ে দেন। পরে বাঁশ খোটা দিয়ে নৌকা ২টি আটকিয়ে রাখা এবং বাঁধটি কিছুটা স্থায়ী করেন। আজ ভোর থেকে এলাকাবাসীকে নিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে এ বাঁধে হাওরবাসীর মাটি ফেলার কথা ছিল। কিন্তু রাত সাড়ে আটটায় খবর আসে নান্টুখালী বাঁধটি ভেঙ্গে গেছে। ব্যর্থ হয়ে পড়ে সবচেষ্টা। ভেঙ্গে যায় হাওরবাসীর জীবন ধারণের প্রধান অবলম্বন এক ফসলী বোরো ধান গোলায় তোলার স্বপ্ন।
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন বলেন, হাওরটির জামালগঞ্জ অংশে বাঁধের কাজের কোন তদারকি ছিলনা। বাঁধে সঠিকভাবে মাটি ফেলা হয়নি , করা হয়নি পাইলিং। দেওয়া হয়নি বাঁশ খোটা । আর এ কারণেই হাওরপাড়ের কৃষকের প্রধান অবলম্বন এক ফসলী বোরো ধান পানিতে ডুবছে।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অনিয়মের কারণেই হাওরটির ফসল পানিতে তলিয়ে গেল।
হাওরটির মধ্য তাহিরপুর গ্রামের কৃষক একরাম হোসেন বলেন, ভাই ধার দেনা করে হাওরটিতে ১৫ কিয়ার জমি করেছিলাম। সবই কয়েক ঘন্টার মধ্যেই পানিতে তলিয়ে যাবে। পরিবারের সবাইকে নিয়ে সারা বছর কি খেয়ে বাঁচব আমার জানা নেই।
হাওরপাড়ের ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামগুলো হচ্ছে ভাটি তাহিরপুর, ঠাকুরহাটি, গোবিন্দশ্রী, জাকিরনগর, সাহাগঞ্জ, শ্রীপুর, নিশ্চিন্তপুর, ইকরামপুর, নোয়ানগর, মাড়াল, গোপালপুর,সাহেবনগর, রামজীবনপুর, আলীপুর, রাধানগর, বেহেলী, ইসলামপুর, চন্ডীপুর, শিবপুর, মশালঘাট, রাজিনপুর, বসন্তপুর, বাগোয়া, শাহাপুর, দাওয়া, মাহমুদপুর, বারুংকা, তিওরজালাল, পাতারি, আনোয়ারপুর, লোহাচুড়া, নোয়াহাট, ফাজিলপুর, দক্ষিণকুল, হোসেনপুর, চিকসা, বীরনগর, জয়নগর, ধুতমা, উজান তাহিরপুর, মধ্য তাহিরপুর। এছাড়াও পাশর্^বর্তী কিছু গ্রামের কৃষকরা এ বৃহৎ হাওরটিতে বোরো ধান চাষ করে থাকেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশাল এ হাওরটি বছরের ৬ মাস কয়েক ফুট গভীর পানিতে নিমজ্জ্বিত থাকে। পৌষ মাসে হাওরটিতে বোরো ধানের চারা রোপন করা হয়। যা বৈশাখ মাসে কাটা হয়। আর এক ফসলী এই বোরো ধানই হাওরপাড়ের গ্রামের ৯০ ভাগ পরিবারের আয়ের প্রধান অবলম্বন। কিন্তু ফসল হারিয়ে হাওরপাড়ের এই সকল গ্রামের পরিবারগুলো এখন দিশেহারা।
গতকাল রাত ১১ টার সময় দেখা যায় বিভিন্ন ধরণের বাতি জ¦ালিয়ে কৃষকরা হাওরে কাঁচা পাকা ধান কাটছেন। কৃষাণী কল্পনা বেগম বলেন, চোখের সামনে তলিয়ে যাচ্ছে ফসল। কথা বলার সময় নেই, আধা পাকা ধান কেটে মনের জ¦ালা মিটাচ্ছি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কৃষক বলেন, হাওরবাসীর প্রধান সমস্যা হাওরের বেড়ীবাঁধ। কিন্তু কোন রাজনৈতিক দলই সুনির্দ্দিষ্ট তথ্য উপাত্ত নিয়ে হাওরের বাঁধ বিষয়ে বক্তব্য দিয়েছে বলে আমাদের জানা নেই। প্রতিদিন নানা ধরণের কর্মসুচী থাকলেও কাজ চলাকালীন বাঁধ পরিদর্শনের কোন খবর রাজনৈতিক দলগুলোর দেখিনি। তাই বাঁধের কাজে কোন অনিয়ম বিষয়ে রাজনৈতিক কর্মসুচী হয়না। তবে বাঁধ ঝুঁকিপূর্ণ হলে বা বাঁধ ভেঙ্গে হাওর ডুবলে রাজনৈতিক নানা ধরণের বক্তব্য দেওয়া হয়।
আমরা হাওরবাসী সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী ও উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন বলেন, বাঁধ নির্মাণকারীরা চোর আর পাউবো হলো ডাকাত। তিনি বাঁধ নির্মাণের সময় দলগত ভাবে তদারকি কিংবা অনিয়ম থাকলে কোন কর্মসুচী কিংবা দলীয় বক্তব্য না থাকা প্রসঙ্গে বলেন, সন্তান গর্ভে থাকাকালীন পরিচর্চা যথাসময়েই হওয়া প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে নিজেদের কিছুটা গাফিলতি রয়েছে স্বীকার করে বলেন আমাদের কথা প্রশাসন আমলে নিতে চায়না। তিনি হাওরপাড়ের কৃষকদের রক্ষায় দ্রুত কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণের দাবি জানান।

স্থানীয় সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, হাওরের বাঁধ রক্ষায় প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। প্রশাসনকে নির্দেশ ছিল যে কোন মুল্যে হাওরের বাঁধ রক্ষা করতে হবে। এ জন্য সবধরণের সহায়তা করা হচ্ছে। ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধ নির্মাণে কারো গাফিলতি থাকলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের সহায়তায় কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24