সরকারের বিরুদ্ধে গুজব ছড়াচ্ছে ৩০০ ফেক ফেসবুক আইডি

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: বিএনপি-জামায়াতের অর্থায়নে ৩০০ ফেইক (ভুয়া) ফেসবুক আইডি গুজব ছড়াচ্ছে। এদের এডমিন দেশের বাইরে থেকে পরিচালনা করছে। এদের উদ্দেশ্যই হলো সরকার তথা আওয়ামী লীগ দলীয় এমপিদের চরিত্র হনন করা। আমরা গুজব সনাক্ত করার জন্য পিআইডিতে একটি গুজব প্রতিরোধ সেল করছি। এদের কাজ হবে কোনটা গুজব সেটা সনাক্ত করা। আর গুজব যখন ছড়ানো হয় তখন অপরাধের পর্যায়ে পড়ে। গতকাল সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে তথ্য প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট তারানা হালিম এ তথ্য জানান।

সরকার দলীয় সংরক্ষিত সংসদ সদস্য নুরজাহান বেগমের সম্পুরক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম আরও বলেন, গুজব ছড়িয়ে পড়ার আগেই আমরা সেটা প্রতিরোধ করতে চাই। আমরা যে সেল করব তাতে তিনটি বিভাগে বিভক্ত হয়ে তরুণরা কাজ করবে।
তিনি বলেন, টেলিভিশন টক শো’র সময় ফেইসবুক পেইজে বাজে মন্তব্য করা হয়। আওয়ামী লীগের এমপিদের বিরুদ্ধে গালিগালাজ করা হয়। বিএনপি-জামায়াতের ৩০০ ফেইসবুক পেইজ থেকেই এগুলো করা হচ্ছে। এদের অর্থায়ন করে বিএনপি-জামায়াত। কারণ তাদের অর্থের অভাব নেই।

আমরা আগামী রবিবার থেকে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে বলব যাতে তারা এই ধরণের অশালীন গালিগালাজ প্রকাশ না করা হয়। কারণ এগুলো শালীনতা পরিপন্থি। সরকার দলীয় সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানান, বর্তমান সরকার গণমাধ্যম বান্ধব। সংবিধানের ৩৯ অনুচ্ছেদে বাক ও ভাবপ্রকাশের ও সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা প্রদান করা হয়েছে। সংবিধানের অনুশাসন ও বর্তমান সরকারের ২০০৮ ও ২০১৪ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে প্রদত্ত অঙ্গীকার অনুযায় সকল প্রকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিতকরণ তথা গণমাধ্যমের বিকাশে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি জানান, সাংবাদিকদের জন্য গত ২৯ জানুয়ারি ৯ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বর্তমান সরকার সাংবাদিকদের জন্য জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা-২০১৭ প্রণয়ন করেছে। সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নের জন্য সরকার পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। গণমাধ্যম বান্ধব সরকার সাংবাদিকদের কল্যাণে সবসময় সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেছে। চলতি অর্থবছরে সরকার বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের অনুকুলে ৫ কোটি টাকা বাজে বরাদ্দ করেছে। এদিকে হলুদ সাংবাদিকতা নিয়ে প্রশ্ন করেন হুইপ শহীদুজ্জামান সরকার।

জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশে বর্তমানে দৈনিক পত্রিকার সংখ্যা ১২২০টি। ঢাকা থেকে প্রকাশিত হয় ৪৮৭টি। পাক্ষিক পত্রিকার সংখ্যা সারাদেশে ২১৪টি। ঢাকা থেকে প্রকাশিত হয় ১৪৮টি। টেলিভিশন চ্যানেলের মধ্যে বর্তমানে ৪৪টি অনুমোদিত। চালু আছে ৩০টি। কাজেই এ থেকে সহজে বোঝা যায় কি বিপুল সংখ্যক পত্রিকা ও চ্যানেলের অনুমোদন দিয়েছে বর্তমান সরকার। বাংলাদেশের মানুষের মনে আছে ২০০১ সালে কিভাবে সংবাদপত্রের কন্ঠরোধ করা হয়েছিল। আমরা যখন ভালো সময় পার করি তখন অন্ধকারাছন্ন সময় ভুলে যায়। তিনি বলেন, যে তথ্য মানুষকে জানাতে হবে সেটা হতে হবে তথ্য নির্ভর। সত্য তথ্য। যে কোন ধরনের মিডিয়ার কাছে মানুষ এটা প্রত্যাশা করে।

যে কোন মিডিয়া যদি হলুদ সাংবাদিকতা করে তাহলে প্রেস কাউন্সিলের কাছে অভিযোগ দায়ের করতে পারে। অভিযোগের ভিত্তিতে অনেক রায় তারা প্রদান করতে পারেন। এছাড়া প্রচলিত আইনেও মামলা হতে পারে। এছাড়াও ডিজিটাল আইন রয়েছে, ৫৭ ধারা রয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্য। তিনি বলেন, সাম্বপ্রতিক সময়ে বিবিসি ওয়ার্ল্ডের লোগো ব্যবহার করে অসত্য সংবাদ প্রকাশ করা হয়। বিএনপি-জামায়াত এভাবে অনেক অসত্য সংবাদ বা গুজব প্রকাশ করে আসছে। প্রচলিত আইনে এসবের শাস্তির ব্যবস্থা রয়েছে।

মানব জমিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» অধ্যক্ষ আব্দুল মতিনের কবিতা-মিছিল হবে মিছিল

» ‘ড. কামালের ওপর হামলা দুঃখজনক, ফৌজদারি অপরাধ’

» ভোটকক্ষে সাংবাদিকরা যা করতে পারবেন, যা পারবেন না

» বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন গুলিবিদ্ধ

» বিদ্রোহী প্রার্থীদের সরে দাড়াতে দুই দিনের আল্টিমেটাম আ.লীগের

» জগন্নাথপুরে বিএনপির সভায় পাশা- সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে নৌকার পোষ্টার ছেঁড়ে ফেলায় যুবদল নেতা গ্রেফতার

» উন্নয়নের প্রতিক নৌকায় ভোট দিন- এম এ মান্নান

» জগন্নাথপুরে ডা: মাসুম খানের মৃত্যুতে শোকসভা

» নৌকা সমর্থনে পাটলী ইউনিয়ন যুবলীগের কর্মীসভা

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সরকারের বিরুদ্ধে গুজব ছড়াচ্ছে ৩০০ ফেক ফেসবুক আইডি

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: বিএনপি-জামায়াতের অর্থায়নে ৩০০ ফেইক (ভুয়া) ফেসবুক আইডি গুজব ছড়াচ্ছে। এদের এডমিন দেশের বাইরে থেকে পরিচালনা করছে। এদের উদ্দেশ্যই হলো সরকার তথা আওয়ামী লীগ দলীয় এমপিদের চরিত্র হনন করা। আমরা গুজব সনাক্ত করার জন্য পিআইডিতে একটি গুজব প্রতিরোধ সেল করছি। এদের কাজ হবে কোনটা গুজব সেটা সনাক্ত করা। আর গুজব যখন ছড়ানো হয় তখন অপরাধের পর্যায়ে পড়ে। গতকাল সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে তথ্য প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট তারানা হালিম এ তথ্য জানান।

সরকার দলীয় সংরক্ষিত সংসদ সদস্য নুরজাহান বেগমের সম্পুরক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম আরও বলেন, গুজব ছড়িয়ে পড়ার আগেই আমরা সেটা প্রতিরোধ করতে চাই। আমরা যে সেল করব তাতে তিনটি বিভাগে বিভক্ত হয়ে তরুণরা কাজ করবে।
তিনি বলেন, টেলিভিশন টক শো’র সময় ফেইসবুক পেইজে বাজে মন্তব্য করা হয়। আওয়ামী লীগের এমপিদের বিরুদ্ধে গালিগালাজ করা হয়। বিএনপি-জামায়াতের ৩০০ ফেইসবুক পেইজ থেকেই এগুলো করা হচ্ছে। এদের অর্থায়ন করে বিএনপি-জামায়াত। কারণ তাদের অর্থের অভাব নেই।

আমরা আগামী রবিবার থেকে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে বলব যাতে তারা এই ধরণের অশালীন গালিগালাজ প্রকাশ না করা হয়। কারণ এগুলো শালীনতা পরিপন্থি। সরকার দলীয় সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানান, বর্তমান সরকার গণমাধ্যম বান্ধব। সংবিধানের ৩৯ অনুচ্ছেদে বাক ও ভাবপ্রকাশের ও সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা প্রদান করা হয়েছে। সংবিধানের অনুশাসন ও বর্তমান সরকারের ২০০৮ ও ২০১৪ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে প্রদত্ত অঙ্গীকার অনুযায় সকল প্রকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিতকরণ তথা গণমাধ্যমের বিকাশে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি জানান, সাংবাদিকদের জন্য গত ২৯ জানুয়ারি ৯ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বর্তমান সরকার সাংবাদিকদের জন্য জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা-২০১৭ প্রণয়ন করেছে। সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নের জন্য সরকার পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। গণমাধ্যম বান্ধব সরকার সাংবাদিকদের কল্যাণে সবসময় সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেছে। চলতি অর্থবছরে সরকার বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের অনুকুলে ৫ কোটি টাকা বাজে বরাদ্দ করেছে। এদিকে হলুদ সাংবাদিকতা নিয়ে প্রশ্ন করেন হুইপ শহীদুজ্জামান সরকার।

জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশে বর্তমানে দৈনিক পত্রিকার সংখ্যা ১২২০টি। ঢাকা থেকে প্রকাশিত হয় ৪৮৭টি। পাক্ষিক পত্রিকার সংখ্যা সারাদেশে ২১৪টি। ঢাকা থেকে প্রকাশিত হয় ১৪৮টি। টেলিভিশন চ্যানেলের মধ্যে বর্তমানে ৪৪টি অনুমোদিত। চালু আছে ৩০টি। কাজেই এ থেকে সহজে বোঝা যায় কি বিপুল সংখ্যক পত্রিকা ও চ্যানেলের অনুমোদন দিয়েছে বর্তমান সরকার। বাংলাদেশের মানুষের মনে আছে ২০০১ সালে কিভাবে সংবাদপত্রের কন্ঠরোধ করা হয়েছিল। আমরা যখন ভালো সময় পার করি তখন অন্ধকারাছন্ন সময় ভুলে যায়। তিনি বলেন, যে তথ্য মানুষকে জানাতে হবে সেটা হতে হবে তথ্য নির্ভর। সত্য তথ্য। যে কোন ধরনের মিডিয়ার কাছে মানুষ এটা প্রত্যাশা করে।

যে কোন মিডিয়া যদি হলুদ সাংবাদিকতা করে তাহলে প্রেস কাউন্সিলের কাছে অভিযোগ দায়ের করতে পারে। অভিযোগের ভিত্তিতে অনেক রায় তারা প্রদান করতে পারেন। এছাড়া প্রচলিত আইনেও মামলা হতে পারে। এছাড়াও ডিজিটাল আইন রয়েছে, ৫৭ ধারা রয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্য। তিনি বলেন, সাম্বপ্রতিক সময়ে বিবিসি ওয়ার্ল্ডের লোগো ব্যবহার করে অসত্য সংবাদ প্রকাশ করা হয়। বিএনপি-জামায়াত এভাবে অনেক অসত্য সংবাদ বা গুজব প্রকাশ করে আসছে। প্রচলিত আইনে এসবের শাস্তির ব্যবস্থা রয়েছে।

মানব জমিন

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।