1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
হলুদ বরণ’ প্রশিক্ষণ বর্জন করলেন মূলধারার গণমাধ্যমকর্মীরা - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৬:৫৮ অপরাহ্ন

হলুদ বরণ’ প্রশিক্ষণ বর্জন করলেন মূলধারার গণমাধ্যমকর্মীরা

  • Update Time : রবিবার, ২১ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৩ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

সুনামগঞ্জে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের অংশগ্রহণে ‘গণমাধ্যমে হলুদ  সাংবাদিকতা প্রতিরোধ ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল। শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চলে কর্মশালা। প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. নিজামুল হক নাসিম। এই কর্মশালায় চোরাকারবারি ও অপ—সাংবাদিকতার সাথে যুক্ত ভুঁইফোড় পেইজ ও অনলাইনের ব্যক্তিদের প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণের সুযোগ ও সনদপত্র দেয়ায় প্রশিক্ষণ কর্মশালা বর্জন করেছে সুনামগঞ্জের মূল ধারার সাংবাদিকরা। প্রতিবাদ হিসেবে প্রশিক্ষণে প্রাপ্ত সনদপত্র সহ যাবতীয় প্রশিক্ষণ সামগ্রী নিতে অসম্মতি জানান ১০টি মূলধারার গণমাধ্যমের ১১ জন প্রতিনিধি।
জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি নিজামুল হক নাসিমের কাছে একযোগে সনদপত্রসহ প্রশিক্ষণ উপকরণ ও খাবার ফেরত দিয়ে বের হয়ে আসেন বিক্ষুব্ধ সাংবাদিকরা। বিক্ষুব্ধ সাংবাদিকরা হলেন— ৭১ টেলিভিশনের সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি শামস শামীম, এনটিভি প্রতিনিধি দেওয়ান গিয়াস চৌধুরী, চ্যানেল—২৪ প্রতিনিধি এ আর জুয়েল, আরটিভি প্রতিনিধি বিন্দু তালুকদার ও শহীদনূর আহমেদ,  ডিবিসি টেলিভিশন প্রতিনিধি আসাদ মনি, বৈশাখী টেলিভিশনের প্রতিনিধি কর্ণ বাবু দাশ, এখন টেলিভিশনের প্রতিনিধি লিপসন আহমদ, বাংলা টিভি প্রতিনিধি আল হাবীব, দীপ্ত টিভির প্রতিনিধি সোহানুর রহমান সোহান।
প্রশিক্ষণ কর্মশালায় বিচারপতি নিজামুল হক নাসিমকে আরটিভি প্রতিনিধি বিন্দু তালুকদার বলেন, গণমাধ্যমের সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠান প্রেস কাউন্সিল। দেশে কয়টা প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক  গণমাধ্যম আছে তার সুস্পষ্ট তালিকা আছে আপনাদের কাছে। তাদের প্রতিনিধির বাইরে অন্য অপ—সাংবাদিকরা কিভাবে এখানে আসার সুযোগ পায়, যাদের সাংবাদিকতার কোন পরিচয় নেই। প্রশিক্ষণ শেষে আবার তারা সনদপ্রাপ্ত সাংবাদিকও হয়ে যাচ্ছে। কোনো যাচাই বাছাই ছাড়াই গণহারে সাংবাদিক হিসেবে দালিলিক স্বীকৃতি পেয়ে গেল তারা। এই সার্টিফিকেট এখন তাদের পরিচয়।
শহীদনূর আহমেদ সনদপত্র ফেরতের বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রেসকাউন্সিল খুব ভালো একটি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছে। দুঃখজনক হলেও সত্য এই প্রশিক্ষণ কর্মশালায় চোরাকারবারী, বীমা ক্যালেঙ্কারি, অপ—সাংবাদিকতার সাথে জড়িত একাধিক ব্যক্তিকে প্রশিক্ষণে এনে সনদপত্র প্রদান করছে। যা মূল ধারার সাংবাদিকদের খাটো করা হয়েছে। হলুদ সাংবাদিকতা প্রতিরোধ করতে গিয়ে সনদপত্র প্রদানের মাধ্যমে এই লোকদের প্রমোট করা হয়েছে।  যা মানা যায় না।
৭১ টেলিভিশনের প্রতিনিধি শামস শামীম বলেন, বিষয়টি অপমানজনক।  আমি সনদপত্র না নিয়ে বের হয়ে এসেছি। এসময় সহকর্মী যাঁরা এই প্রতিবাদ করেছে, তাদের সাধুবাদ জানান তিনি।
সনদপত্র ফেরত দেয়ার সময় সময় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরী বলেন, কাউকে প্রশিক্ষণ সনদপত্র দেয়া মানে সাংবাদিক বানানো নয়।
ফেরত দিতে চাইলে বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম বলেন, এটা কোনো আনুষ্ঠানিকতা হতে পারে না। পরে তার সামনে টেবিলে সনদ সহ সবকিছু রেখে বের হয়ে আসেন গণমাধ্যমকর্মীরা।
প্রশিক্ষণ কর্মশালায় আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সচিব (অতিরিক্ত সচিব) শ্যামল চন্দ্র কর্মকার,  সুনামগঞ্জ জেলা তথ্য কর্মকর্তা মো. আব্দুস ছাত্তার।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com