1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
হাাজিরা দিতে এসে আদালত চত্বরে ছুরিকাঘাতে জগন্নাথপুরের একব্যক্তি খুন - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন

হাাজিরা দিতে এসে আদালত চত্বরে ছুরিকাঘাতে জগন্নাথপুরের একব্যক্তি খুন

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই, ২০২২
  • ৩৭৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি::

সুনামগঞ্জে হাজিরা আদালত চত্বরে প্রতিপক্ষের এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে একব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত খোকন মিয়া (৫০) জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের গলাখাই গ্রামের ফটিক মিয়ার ছেলে।

এঘটনায় তাৎক্ষণিক পুলিশ তিনজন কে আটক করেছে। আটককৃতরা হল জগন্নাথপুর উপজেলার গলাখাই গ্রামের মৃত মহিবুর রহমানের ছেলে ফায়েজ আহমেদ (৩০) ও মো.আফরোয় মিয়ার ছেলে দুই ছেলে মোঃ সাজিদ মিয়া এবং মোঃ সেবুল মিয়া (২৫) কে আটক করেছে।

এ ঘটনায় আদালত চত্বরের আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীরা হতভম্ব হয়ে পড়েন। আইনজীবী ও আদালতে থাকা লোকজন আঘাতকারীকে ঘিরে বন্দী করে রাখেন পরে পুলিশ এসে তাদের আটক করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আদালত এলাকার আইনজীবী সহকারী সমিতির কার্যালয় প্রাঙ্গনে দুপুরে খোকন মিয়াকে ঘিরে দাঁড়ায় কয়েকজন। এসময় একজন খোকন মিয়াকে ঘুষি মারে। আরেকজন ছুরিকাঘাত করতে থাকে। অন্য আরেকজন তালার চাবি দিয়ে ঘা দিতে থাকে। রক্তাক্ত খোকন মিয়াকে তাৎক্ষণিক সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তাররা মৃত ঘোষণা করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবী সহকারী মিফতাউল আলম ফিল্মি কায়দায় হামলা হয়েছে বর্ণণা করে বললেন, হত্যার উদ্দেশ্যেই আঘাত করা হচ্ছিল।
আরেক প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবী হাবিবুর রহমান বলেন, ধারালো ছুরিকাঘাত দিয়ে আঘাতের সময় বুঝা গেছে ঘটনাটি পূর্ব পরিকল্পিত। প্রত্যক্ষদর্শীরা আটকানোর চেষ্টা করলেও তা পারেন নি। অন্যরাও নানাভাবে আঘাত করে।

খোকন মিয়ার চাচাতো ভাই মাসুক মিয়া হাসপাতালে মরদেহের পাশে বিলাপ করতে করতে বলেন, গ্রামের লাল মিয়ার সঙ্গে বাড়ীর জায়গা নিয়ে বিরোধ ছিল। এ নিয়ে মামলার তারিখে এসেছিলেন তারা। তিনি আদালত প্রাঙ্গনের এক দোকানে বসেছিলেন। তার পাশ থেকেই খোকন মিয়া ওঠে আসেন। এসময় লাল মিয়ার ছেলে ফয়েজ, ইসমাইল, বাদশা মিয়ার ছেলে সাহান, আফরোজ মিয়ার ছেলে সেবুল ও সাজিদ তার ভাই খোকন মিয়াকে উপর্যুপুরি ছুরিকাঘাতে খুন করে।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত ডা. রবীন্দ্র তালুকদার জানালেন, গুরুতর আহত খোকন মিয়াকে হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই মারা যান। নিহতের শরীরে বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত আছে।

নিহত খোকন মিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবদুল বাহার বলেন, আমি আজকেই হত্যা মামলা দায়ের করবও৷ আমি মামলা লেখতেছি পরে কথা বলবও আপনার সাথে।

পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান জানান, এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক ফয়েজ আহমদ, সাজিদ মিয়া ও সেবুল মিয়াকে আটক করা হয়েছে।

 

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com