বালু বোঝাই ট্রাক উঠে মজিদপুর বেইলি সেতু ভেঙে যানচলাচল বন্ধ

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক ঃ

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পাগলা – জগন্নাথপুর আউশকান্দি আঞ্চলিক ( আবদুস সামাদ আজাদ) মহাসড়কের জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের মজিদপুর নামকস্হানে বেইলি ব্রিজ ভেঙে জগন্নাথপুর উপজেলা সদর থেকে সুনামগঞ্জ জেলা শহরের সাথে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে এ ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, জগন্নাথপুর উপজেলা সদর এলাকা থেকে পাগলা গামী সড়কের মজিদপুর নামকস্হানে মজিদপুর বেইলি সেতুতে বালু বোঝাই ট্রাক উঠলে বেইলি সেতুটি ভেঙে পড়ে।এরপর থেকে সড়ক দিয়ে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

মজিদপুর গ্রামের বাসিন্দা সমাজকর্মী এমদাদুর রহমান সুৃমন জানান, মজিদপুর বেইলি সেতু ভেঙে যাওয়ায় জনদুর্ভোগ বেড়েছে। দ্রুত সড়কটি চালু করা দরকার।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, পাগলা – জগন্নাথপুর – আউশকান্দি –
( আব্দুস সামাদ আজাদ) মহাসড়কের জগন্নাথপুর থেকে পাগলা পর্যন্ত সাতটি ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি সেতু রয়েছে। সেতুগুলো ভেঙ্গে নতুন সেতু নির্মাণের উদ্যাগ নেয়া হয়েছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এমএম বিল্ডার্স এন্ড কোম্পানি লিমিটেড ওই সড়কে ২১ কিলোমিটার অংশে ৯১ কোটি টাকা ব্যায়ে সড়ক সংস্কার কাজ করছে এবং ১২০ কোটি টাকা ব্যায়ে সাতটি বেইলি সেতু ভেঙে নতুন সেতু তৈরির কার্যাদেশ পেয়ে কাজ শুরু করেছে। মজিদপুর বেইলি সেতুতে বিকল্প মাটির সড়কের কাজ শুরু হয়েছে।
ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এমএম বিল্ডার্স কোম্পানি লিমিটেড এর মাঠকর্মকর্তা জামাল মিয়া বলেন, মজিদপুর বেইলি সেতু এলাকায় মাটি দিয়ে বিকল্প সড়কের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আশা করছি দুই তিন দিনের মধ্যে বিকল্প সেতুদিয়ে গাড়ি চলবে। তিনি বলেন অতিরিক্ত বালুসহ ট্রাকের ওজনের কারনে সেতুটি ভেঙে পড়েছে।
জগন্নাথপুর মিমিবাস মালিক সমিতির সভাপতি নিজামুল করিম বলেন, জেলা শহর সুনামগঞ্জে যাতায়াত ও জেলা সড়ক থেকে জগন্নাথপুর উপজেলা সদরে যাতায়াতের একমাত্র সড়কের মজিদপুরে বেইলি সেতু ভেঙে পড়ায় যাতায়াতে সীমাহীন দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। একটি মোটরসাইকেল পর্ষন্ত যাতায়াত করতে পারছে না। দ্রুত সড়কটি চালু করার দাবি জানান তিনি।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উপ সহকারী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সুনামগঞ্জ কার্যালয় থেকে বেইলি সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ উল্লেখ করে ৫ টনের অধিক মালামাল পরিবহন না করতে সর্তকতামুলক সাইনবোর্ড সাঁটানো রয়েছে। কিন্তু আজ সকালে খবরপেয়ে গিয়ে দেখলাম ট্রাকবালুসহ কমপক্ষে ৪০ টন ওজন হবে।অতিরিক্ত ওজনের কারনে বেইলি সেতুটি ভেঙে পড়েছে। তিনি বলেন,যাতায়াতের সুবিধার্থে আমরা দ্রুত বিকল্প সড়কের কাজ শেষ করতে প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। তিনি বলেন বালুবোঝাই ট্রাকের চালক সিলেটের ভোলাগঞ্জের নিজাম উদ্দিন। তিনি জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া গ্রামের লিটন মিয়ার বাড়িতে বালু নিয়ে যাচ্ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে প্রবাসিদের সঙ্গে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের মতবিনিময় সভা

» নিউজিল্যান্ডের সংসদে পবিত্র আল কোরআন তিলাওয়াত!

» প্রাথমিক শিক্ষক পদে এপ্রিলে পরীক্ষা

» বিশ্বনাথে দুই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৯ জনের জামাত বাজেয়াপ্ত

» স্যান্ডেলের ভেতর ১০ হাজার ডলার!

» আবারও নিরাপদ সড়ক’র দাবীতে আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা

» গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি- রডের পরিবর্তে বাঁশ দেবেন না

» জগন্নাথপুরে গাঁজাসহ গ্রেফতার-১

» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

বালু বোঝাই ট্রাক উঠে মজিদপুর বেইলি সেতু ভেঙে যানচলাচল বন্ধ

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক ঃ

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পাগলা – জগন্নাথপুর আউশকান্দি আঞ্চলিক ( আবদুস সামাদ আজাদ) মহাসড়কের জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের মজিদপুর নামকস্হানে বেইলি ব্রিজ ভেঙে জগন্নাথপুর উপজেলা সদর থেকে সুনামগঞ্জ জেলা শহরের সাথে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে এ ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, জগন্নাথপুর উপজেলা সদর এলাকা থেকে পাগলা গামী সড়কের মজিদপুর নামকস্হানে মজিদপুর বেইলি সেতুতে বালু বোঝাই ট্রাক উঠলে বেইলি সেতুটি ভেঙে পড়ে।এরপর থেকে সড়ক দিয়ে সরাসরি যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

মজিদপুর গ্রামের বাসিন্দা সমাজকর্মী এমদাদুর রহমান সুৃমন জানান, মজিদপুর বেইলি সেতু ভেঙে যাওয়ায় জনদুর্ভোগ বেড়েছে। দ্রুত সড়কটি চালু করা দরকার।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, পাগলা – জগন্নাথপুর – আউশকান্দি –
( আব্দুস সামাদ আজাদ) মহাসড়কের জগন্নাথপুর থেকে পাগলা পর্যন্ত সাতটি ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি সেতু রয়েছে। সেতুগুলো ভেঙ্গে নতুন সেতু নির্মাণের উদ্যাগ নেয়া হয়েছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এমএম বিল্ডার্স এন্ড কোম্পানি লিমিটেড ওই সড়কে ২১ কিলোমিটার অংশে ৯১ কোটি টাকা ব্যায়ে সড়ক সংস্কার কাজ করছে এবং ১২০ কোটি টাকা ব্যায়ে সাতটি বেইলি সেতু ভেঙে নতুন সেতু তৈরির কার্যাদেশ পেয়ে কাজ শুরু করেছে। মজিদপুর বেইলি সেতুতে বিকল্প মাটির সড়কের কাজ শুরু হয়েছে।
ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এমএম বিল্ডার্স কোম্পানি লিমিটেড এর মাঠকর্মকর্তা জামাল মিয়া বলেন, মজিদপুর বেইলি সেতু এলাকায় মাটি দিয়ে বিকল্প সড়কের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আশা করছি দুই তিন দিনের মধ্যে বিকল্প সেতুদিয়ে গাড়ি চলবে। তিনি বলেন অতিরিক্ত বালুসহ ট্রাকের ওজনের কারনে সেতুটি ভেঙে পড়েছে।
জগন্নাথপুর মিমিবাস মালিক সমিতির সভাপতি নিজামুল করিম বলেন, জেলা শহর সুনামগঞ্জে যাতায়াত ও জেলা সড়ক থেকে জগন্নাথপুর উপজেলা সদরে যাতায়াতের একমাত্র সড়কের মজিদপুরে বেইলি সেতু ভেঙে পড়ায় যাতায়াতে সীমাহীন দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। একটি মোটরসাইকেল পর্ষন্ত যাতায়াত করতে পারছে না। দ্রুত সড়কটি চালু করার দাবি জানান তিনি।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উপ সহকারী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সুনামগঞ্জ কার্যালয় থেকে বেইলি সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ উল্লেখ করে ৫ টনের অধিক মালামাল পরিবহন না করতে সর্তকতামুলক সাইনবোর্ড সাঁটানো রয়েছে। কিন্তু আজ সকালে খবরপেয়ে গিয়ে দেখলাম ট্রাকবালুসহ কমপক্ষে ৪০ টন ওজন হবে।অতিরিক্ত ওজনের কারনে বেইলি সেতুটি ভেঙে পড়েছে। তিনি বলেন,যাতায়াতের সুবিধার্থে আমরা দ্রুত বিকল্প সড়কের কাজ শেষ করতে প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। তিনি বলেন বালুবোঝাই ট্রাকের চালক সিলেটের ভোলাগঞ্জের নিজাম উদ্দিন। তিনি জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া গ্রামের লিটন মিয়ার বাড়িতে বালু নিয়ে যাচ্ছিলেন।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।