বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন

অভিমত- হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্ট, জগন্নাথপুর ইউকে সম্পর্কে কিছু কথা না বললেই নয়

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৯ জুলাই, ২০১৬
  • ১৪২ Time View

স্বদেশ শুধু ভৌগলিক নয়, স্বদেশ মানসিক। কর্মব্যস্ত প্রবাস জীবনে ক্ষণিকের জন্য হলেও ভুলে থাকতে পারিনা আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি, প্রিয় গ্রাম আর গ্রামের প্রিয় সহজ সরল মানুষগুলোকে। নাড়ীর টান, পিতা মাতার প্রতি শ্রদ্ধা, ভাই বোনদের ভালবাসা, পাড়া প্রতিবেশীদের মায়া মমতাই বার বার শেকড়ের টানে হাতছানি দিয়ে ডাকে। যুক্তরাজ্যের মত উন্নত দেশে নিজেদের অবস্থান তুলনামূলক আত্মনির্ভরশীল হওয়ায় স্বদেশে প্রিয় গ্রামের দরিদ্র মানুষগুলোর ভাগ্যন্নয়নে, তাদেরকে আত্মনির্ভরশীলটার মাধ্যমে স্বয়ংসম্পূর্ণ করে গড়ে তোলার প্রত্যয় আর প্রয়াসে যুক্তরাজ্যে বসবাসরত হবিবপুর গ্রামের অধিকাংশ তরুন তরুণী, উদ্যমী পরোপকারী ও সমমনা যুবকদের সমন্বয়ে হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্ট ইউকে এর যাত্রা শুরু হয়। আমরা কখনো ভাবিনি আমাদের সকলের ভালোলাগা আর ভালবাসার সংগঠন নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে কিছু লিখতে হবে। এরকম লিখতে পরিপক্ক নই, তবুও কলম ধরেছি শুধুমাত্র সত্যকে উপস্থাপন আর ট্রাষ্ট সম্পর্কে জনৈক ব্যাক্তির সামাজিক মাধ্যম গুলোতে আত্মপ্রচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে সত্যকে আলিঙ্গন করার উদ্দেশ্য।
আমরা হতবাক হইনি কারো দ্বারা প্রচারিত গ্রামের আভ্যন্তরীণ বিষয়গুলো গণমাধ্যমে প্রকাশ্যে উপস্থাপন দেখে। কারণ কেউ যদি নিজের পরিবারের সাথে সমপকর্ বিলীন করতে পারে, নিজের পিতামাতা ভাইবোনের ইজজত রক্ষা করতে না পারে এবং নৈতিক স্খলন জনিত কারণে গ্রামের সংগঠন গুলো থেকে বহিষ্কৃত হয়, তার পক্ষে গ্রামের সমমান রক্ষা করা কতটুকু সম্ভব অথবা যে কোন ভাল কাজে সহযোগিতা করার চেয়ে ক্ষোভ, প্রতিশোধ আর কুমন্ত্রণায় থাকাই স্বাভাবিক। যখন দেখি কেউ সুন্দর উপস্থাপনার মাধ্যমে সত্যকে লুক্কায়িত করার প্রচেষ্টা করেছেন, তখন আমাদের দায়িত্ববোধ থেকে আমাদের ট্রাষ্টের প্রাসঙ্গিক বিষয়ে আলোকপাত করার চেষ্টা করবো। হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্টের প্রথম সভাটি ছিল অত্যন্ত আনন্দঘন, ভ্রাতিৃত্বপুরন এবং প্রবাসি হবিবপুর বাসীর মিলন মেলা। ২০১৪ সালের ১৪ অক্টোবরের ওই মিলন মেলার ফলশ্রুতিতে একে অন্যের সাথে যুগেরও বেশী সময় পরে দেখা হবার এবং কুশল বিনিময়ের পর যে আনন্দঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছিল তা ভাষায় প্রকাশ করা অসম্ভব। আনন্দটি মহানন্দে পরিনত হয়েছিল যখন নিজ গ্রামের গরীব ও দরিদ্র মানুষকে সহায়তা করার জন্যে হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্ট নামক সংগঠনের পদযাত্রা শুরু হয়। এই সভার সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গুলো ছিল এর ভিত্তি যার উপর আজও তা দাড়িয়ে আছে।

02 প্রথম সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সংগঠনের নামকরন করা হয় হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্ট ইউকে। সংগঠনটি একটি ব্যতিক্রমধর্মী সংগঠন হিসেবে পরিচালনার জন্য সবাই ছিলেন বদ্ধ পরিকর। তাই গতানুগতিক সভাপতি ও সম্পাদকীয় পদগুলোর কোন স্থান সংগঠনে না থাকার সিদ্ধান্ত সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। আজও সে সিদ্ধান্তের কোন হেরফের হয় নাই। সংগঠনের কার্যাবলী সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্যে ৬ সদস্যের একটি পরিচালনা পর্ষদ থাকার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তারা এক সভা থেকে পরবর্তী সভা পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়। এর মাধ্যমে সদস্যরা পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করবেন এমনটি বলা হয়। মনে করা হয় এতে দায়িত্ববোধ সুদৃঢ় হওয়ার পাশাপাশি নেতৃত্বের সুষ্ঠু বিকাশ ঘটবে। সংগঠনের আর্থিক বিষয় দেখভাল করার জন্যে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি হিসাবরক্ষক রাখার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া এই সভায়- সংগঠনের গঠনতন্ত্র নিয়ে। গৃহীত এই সিদ্ধান্ত হল সকলের কার্যকর এবং স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে একটি গ্রহণযোগ্য, সময় উপযোগী ও প্রাঞ্জল ভাষার গঠনতন্ত্র তৈরি করা হবে। সকলকে আন্তরিক অনুরধ করা হয় প্রত্যেকের নিজের সাধ্যমত সংবিধান তৈরি করার যা পরবর্তী সভায় সকলের কার্যকর অংশগ্রহণের মাধ্যমে একটি সার্বজনীন গঠনতন্ত্র বা সংবিধান তৈরি করা হবে। যার উপর ভিত্তি করে পরিচালিত হবে ট্রাষ্টের সকল কার্যক্রম ও নীতিমালা। সকলেই উপরোক্ত সিদ্ধান্ত সমূহকে স্বাগত জানিয়ে ৬ জন পরিচালনা পর্ষদ এবং ৩ জন হিসাবরক্ষক মনোনীত করেন যা ছিল হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্টের প্রথম দায়িত্বপ্রাপ্ত পর্ষদ।

প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার ১ সপ্তাহের মধ্যে একটি হোয়াটস আপ গ্রুপ গঠন কর ঽয়েছিল যার মাধ্যমে যোগাযোগ সহজ করা হবে এবং যা আজও বর্তমান। হিসাবরক্ষকগণ যখন সংগঠনের জন্য ব্যাংক হিসাব খুলবেন তখন জনৈক সদস্য ( একই শহরে বসবাসের সুবাদে) তাদের সাথে মিলিত হয়ে মত প্রকাশ করলেন যে আমাদের সংগঠনের নামের প্রথমে যদি হবিবপুর শব্দটি থাকে তবে তিনি উক্ত সংগঠনের সাথে জড়িত থাকবেন না। কারণ তিনি তার ব্যাখ্যায় বললেন (শিক্ষিত হওয়ার সুবাদে সুশিক্ষিত নয়) যদি হবিবপুর শব্দটি সংগঠনের নামের পিছনে অবস্থান করে তবে ইচ্ছা করলেও হবিবপুর গ্রামের যেকোন মানুষ এই সংগঠনের সদস্য বা এর কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবেনা। আর হবিবপুর শব্দটি যদি নামের প্রথমে থাকে তবে হবিবপুর বাসী সকলের অধিকার হয়ে যায়। সম্মানিত পাঠক, আমরা আপনাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই, এ ধরনের মন মানসিকতা কিসের লক্ষণ আপনারাই বুঝে নিবেন। আমাদের মতে একটি দানশীল সংগঠনে যত বেশী মানুষের অংশগ্রহণ হবে সংগঠনটি তত শক্ত ও সমাজে কার্যকরভাবে ভুমিকা পালন করবে। এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু হবিবপুর শব্দ সামনে বা পিছনে থাকলে ব্যাকরণগত কিংবা অধিকারগত কতটুকু পার্থক্য গড়ে তোলে তা জানা নেই। তারপরও সরলপ্রাণ ও উদারতার জন্য উনাকে সম্মান প্রদর্শন করে তার যুক্তি মেনে নিয়ে ২০১৪ সালের অক্টোবর মাসেই একটি ব্যাংক হিসাব খোলা হয়। যেখানে সকল সদস্য অত্যন্ত আনন্দের সাথে এবং
স্বতঃস্ফূর্তভাবে তাদের প্রাথমিক সদস্য বা ট্রাষ্টি ফি ( প্রথম সভায় নির্ধারিত হয়েছিল) জমা রাখেন। আজো সেই হিসাব বর্তমান রয়েছে একই নামে।

এদিকে প্রথম সভায় মনোনীত ৬ জন পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা প্রায় সকল সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে, ব্যস্ত এই দেশে সর্বোচ্চ সদস্যের উপস্থিতি নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে দ্বিতীয় সাধারণ সভা ২০ ফেব্রুআরি ২০১৫ তারিখে বল্টন শহরে করেন। দ্বিতীয় সভাটি ছিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সংগঠনের গঠনতন্ত্র প্রণয়ন করাই ছিল এর মূল আলোচ্য বিষয়। সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে সবার কাছ থেকে খসড়া সংবিধান উপস্থাপনের আহবান করা হয়। কিন্তু সেই সভায় একজন ব্যাতিত আর কেউ লিখিত খসড়া সংবিধান উপস্থাপন করেননি। তা হয়তো সময়ের অভাবে বা অন্য কোন কারণে তা আমাদেরজানা ছিলনা। আমরা নিজেরা ও তা আনতে পারি নি। এটা আমাদেরই ব্যথর্তা । আনীত খসড়া সংবিধান উপস্থাপনের পূর্বে তিনি বলেছিলেন এটি একটি খসড়া সংবিধান, যা তার একান্ত প্রচেষ্টা মাত্র।

এর কোন ধারা, উপধারা বা কোন অংশ বাদ দিতে পারেন আবার কিছু চাইলে যোগ করতে পারেন। সংগঠনের সবার সম্মতিতে এটি একটি চূড়ান্ত সংবিধানে রূপ নেবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে জনৈক ব্যক্তির অযৌক্তিক আলোচনার জন্য তিনির খসড়া সংবিধান উপস্থাপনে কালক্ষেপণ হয়। পরবর্তীতে যখন সবার সম্মতিক্রমে তাকে তা উপস্থাপন করার সুযোগ দেয়া হয়, এবং তার ওপর আলোচনা শুরু হয় তখন জনৈক ব্যক্তি সবার উদ্দেশ্যে বললেন, আপনারা যার তৈরি সংবিধান নিয়ে আলোচনা করছেন তার চেয়ে উত্তম সংবিধান আমি অমুক (বুকে টোকা দিয়ে দেখিয়ে) রচনা করতে পারবো। একজন শিক্ষিত মানুষ হয়ে তার এ আচরণ আমাদেরকে সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহর লালসালু গল্পের মজিদের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। যেখানে মজিদ এক প্রগতিশীল যুবকের কর্মকাণ্ড তার মুখে দাড়ি না রাখার দোহাই দিয়ে বন্ধ করার চেষ্টা করে।

সভায় উপস্থিত সকল সদস্যরা তার এ বক্তব্যের জোর প্রতিবাদ জানান। সভায় উপস্থিত মুরব্বি গণ আনিত খসড়া সংবিধানকে মূল ধরে আরেকটি সংবিধান রচনার জন্য ৫ সদস্যের একটি উপ কমিটি গঠন করেন। জনৈক ব্যক্তিও ছিলেন ওই কমিটিতে। যথারীতি ৬ সদস্যের পরিচালনা পর্ষদও মনোনীত করা তখন। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, মনোনীত ৫ সদস্য মিলে সংবিধান প্রণয়ন করতে সক্ষম হননি জনৈক ব্যক্তির একগুঁয়েমির কারণে। পরবর্তীতে হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্টের তৃতীয় সভায় সংবিধান অনুমোদন করা হয়। অন্য সদস্য এতে নিষ্ক্রিয়তা প্রকাশ করেন। এখানে উল্লেখ করা দরকার জনৈক ব্যক্তি সহ দুইজন ব্যক্তি দ্বিতীয় সভার পরের দিন যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হোয়াটস আপ গ্রুপ থেকে বের হয়ে পড়েন। খসড়া সংবিধান প্রনয়নের জন্য প্রথম বৈঠকে ৪জন উপস্থিত ছিলেন। ২য় সভায় কিন্তু জনৈক ব্যক্তি সভাতে বসতে অস্বীকৃতি প্রকাশ করেন। তার কারণ,উক্ত সভা সম্পর্কে তিনি নাকি অবগত ছিলেন না।
আমরা খুবি হতবাক হয়েছিলাম সেদিন উনার এ কথায়। অনেক ব্যস্ততার মধ্যে শত শত মাইল দূর থেকে গিয়ে যদি কোন মুরব্বীর কাছ থেকে এমন ব্যবহার পাওয়া সত্যিই তা দুঃখজনক এবং হতাশার। আরও মর্মাহত হয়েছিলাম যখন শুনলাম অন্য একজন বয়োজ্যৈষ্ঠ (যিনি ৫ জনের বাইরে কিন্তু অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন) সিদ্ধান্ত নিলেন পরবর্তী সভা আগামী সপ্তাহে ওল্ডহ্যামেই হবে। একটি বারের জন্য জিজ্ঞেস করলেন না আমরা যারা দূর থেকে এসেছি তারা থাকতে পারবো কি না? আমরা জানি প্রতিটি ভাল কাজে কিছু মন্দ এসে পথ রোধ করে দাড়ায়। তাই আমরা তার দেয়া নির্দিষ্ট তারিখে উপস্থিত হই। আমাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব সুন্দর ও সবার গ্রহণযোগ্য একটি খসড়া গঠনতন্ত্র প্রণয়ন করা।
সংবিধান প্রণয়নের দ্বিতীয় সভাটি শুরু হয় আনুমানিক রাত ১২ টায়। সভাতে জনৈক ব্যক্তি ৫২ পৃষ্ঠার একটি সংবিধান নিয়ে হাজির হন। অথচ কথা ছিল, আমরা সভায় বসে তা লিখবো। তাঁকে সাধুবাদ জানানো হয়েছিল বাকী ৪ জনের কাজকে সহজতর করার জন্যে। সভার শুরুতে তিনি সকলকে
উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন তার লিখিত খসড়া সংবিধানের মধ্যে বল্টনের সভায় উত্থাপিত সংবিধানের সকল ধারা উপধারা অন্তর্নিহিত। আমরা সকলেই সম্মত হয়ে বলেছিলেন, যদি আপনার লিখিত খসড়া সংবিধানের মধ্যে সংগঠনের স্বার্থ জড়িত থাকে এবং নিজেকে প্রণেতা হিসেবে দাবি না করেন, তবে আপনার আনিত সংবিধানের উপর আলোচনা শুরু করা যাবে। জনৈক ব্যক্তি বাধ্য হয়ে তা মেনে নিলেন। ফলে আলোচনা ভালভাবেই অগ্রসর হচ্ছিলো। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ালো সময়। পরের দিন সকাল ১০ টায় কারো কারো কর্মস্থলে যেতে হবে। তাছাড়া রাতও অনেক গভীর হয়েছিল। তাতে আলোচনা চালিয়ে যাওয়া সকলের পক্ষেই কষ্টকর ছিল। ফলে দ্রুত সংবিধান প্রণয়নের কাজ এগিয়ে নেয়ার জন্য এক কপি করে বাকী ৪ জনকে দেয়ার অনুরোধ করলে জনৈক ব্যক্তি অস্বীকৃতি জানান। এতে একটি বিষয়টি পরিষ্কার হয় উনার ভিতরে সংবিধান প্রণেতা হওয়ার সাধ জেগেছিল। পরবর্তীতে উনার এই ৫২ পৃষ্ঠার বস্তানি আর খোলা না হলেও আমরা হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্টের সকল ট্রাষ্টির উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন অব্যাহত থাকে।

বল্টনের সভায় মনোনীত সম্মানিত পরিচালনা পর্ষদ ১২ই জুন ২০১৫ তারিখে হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্টের একমাত্র যোগাযোগের মাধ্যম হোয়াটস আপ গ্রুপে তাদের দায়িত্বের অংশ হিসেবে সংগঠনের পরবর্তী সভার তারিখ ঘোষণা করেন। যা ছিল ২৮শে জুলাই ২০১৫ তারিখ। সবাই যথারীতি উৎসাহী ও উৎফুল্ল ছিলেন এবং আগ্রহভরে দিনক্ষণের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এরই মধ্যে জুন মাসে ২য় সপ্তাহে জন্ম দেয়া হল পদত্যাগ নাটকের। জনৈক ব্যক্তিসহ তার দ্বারা প্ররোচিত আরও ৪/ ৫ জন সদস্য তাদের একান্ত ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে সংগঠনের ভবিষ্যৎ উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করে নিজেদের প্রদানকৃত প্রাথমিক ফি ফেরত দাবি করেন। এটি হুয়াটস আপ গ্রুপে জানিয়ে দেন। এটিই সংগঠন বিভক্তির সুত্রপাত। কি দরকার ছিল এ ধরনের নাটকের। উনাদের পদত্যাগে কোন প্রতিক্রিয়া না পাওয়ায় তাদের মাথাব্যাথা শুরু হয়ে গেল। তারা ভুলেই গিয়েছিলেন অধিকার ছেড়ে দিয়ে রাখতে যাবার মতন আর বিড়ম্বনা নেই। তাই উপায়ান্তর না দেখে সম্মানিত পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদেরকে প্ররোচনা করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

এরই ধারাবাহিকতায় পরিচালনা পর্ষদ ১২ জুলাই ২০১৫ তে পূর্বের আহবানকৃত সভাটি স্থগিত ঘোষণা করেন। ১৫ জুলাই তারিখে পরিচালনা পর্ষদ আরও একটি তারিখ ঘোষণা করেন। তা ছিল ৪ ঠা আগস্ট ২০১৫। এতে অধিকাংশ সদস্য হতবাক হয়েছিলেন। কারণ আমন্ত্রণটা এমন ছিল যে তারা সিদ্ধান্ত দিয়েই দিলেন যে যারা ও যে মাধমে পদত্যাগ করেছেন তা নাকি সঠিক ছিলনা। অথচ সমান মাধ্যমকেই সভা আহবানের জন্য ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া সবাই পরিকল্পনা করেই রেখেছিলেন পূর্ব ঘোষিত ২৮ জুলাই তারিখ কে কেন্দ্র করে। তাই পরিচালনা পর্ষদের এরকম সিদ্ধান্তকে এবং আমন্ত্রণ পত্রের ধরনকে পরিবর্তন করে পূর্ব ঘোষিত তারিখে সভা করার অনুরোধ করা হয়। এই অনুরধের প্রতি কর্ণপাত করলেন না

তখন সাধারণ সদস্যদের মধ্য থেকে ২৮ জুলাইয়ের সভা হবে কি না তার জন্য মতামত প্রকাশের অনু রোধ জানানো হয়। প্রায় অধিকাংশ সদস্যই ২৮ তারিখের পক্ষে মত প্রকাশ করেন। কোন দেশের জনগন যেমন ক্ষমতার উৎস, তেমনই আমাদের সংগঠনে সকল সদস্য সকল কিছুর উৎস। তাই অধিকাংশের মতামতকে শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে তখনকার পরিচালনা পর্ষদের এক সদস্য ২৮ জুলাই ২০১৫ তে সভা অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেন। এরই প্রেক্ষিতে ২৮ জুলাই অধিকাংশের উপস্থিতিতে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। আপনি গণতান্ত্রিক নিয়মের কথা বলবেন আবার আপনারাই অধিকাংশ ট্রাষ্টির মতামতকে উপেক্ষা করে আরও একটি সভা করা কি গণতান্ত্রিক বৈধতার শামিল। আর এর মাধ্যমে সংগঠনকে ২ ভাগে ভাগ করতে সক্ষম হয়েছিলেন পদত্যাগ নাটকের নায়কেরা। যদিও ৪ ঠা আগস্ট কোন সভা অনুষ্ঠিত হয়নি যা অপরপক্ষ হিশেবে ৮ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হয়।

২৮ জুলাই ২০১৫ তে অনুষ্ঠেয় সভার গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলোর অন্যতম হল আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে গ্রামের গরীব মানুষদের মধ্যে আর্থিক সাহায্য বিতরণের ব্যবস্থা করা। এসব সিদ্ধান্ত যথারীতি হোয়াটস আপে প্রকাশিত হয়। সিদ্ধান্তকে বাস্তবায়নের জন্যে মনোনীত পরিচালনা পর্ষদ আন্তরিকতার সাথে কাজ শুরু করেন। ওপরপক্ষের ৮ সেপ্টেম্বর সভা অনুষ্ঠানের পর তাদের নির্ধারিত বা মনোনীত একটি কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয় যেখানে সভাপতি ও সম্পাদকীয় পদ সৃষ্টি করা হয় যা সংগঠনের মূল ভিত্তির পরিপন্থী। এখানে একটি বিষয় মনোযোগ সহকারে আলোচনা করা দরকার ২৮ জুলাই সিদ্ধান্ত মোতাবেক ঈদুল আযহা উপলক্ষে আর্থিক সাহায্য বিতরণের কথা অপর পক্ষের সভাপতি জানতেন। কেননা তিনিও হোয়াটস আপের একজন সদস্য ছিলেন। তাহলে কেন তিনি তাতে আপত্তি করলেন না? যে সংগঠনের জন্মই হয়েছে মানুষকে সাহায্য করার জন্য সেই সংগঠনের মাধ্যমে ঈদুল আযহার উপলক্ষ্যে আর্থিক সাহায্য প্রদান করাটাই কি সমঝোতার পথ রোধ করে দেয়?

কেউ যদি অপরপক্ষের সভাপতি হয়েই থাকেন তবে হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্টের জন্য তিনি একজন সাধারণ সদস্য। তাছাড়া ভাল কাজের গতি রোধ না করে সহযোগিতা করাটাই উত্তম। এটা বাস্তব সত্য যে দুপক্ষের মধ্যে মতপার্থক্য থাকতেই পারে। এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। তারপরও সকলেই আশায় বুক বেঁধে ছিলেন যখন শুনা গেল সমঝোতার আলোচনা হবে। এর জন্য সম্ভাব্য দিন ক্ষণ ঠিক হয়েছিল। কিন্তু শুধুমাত্র গরীব মানুষকে সাহায্য প্রদানের ক্ষেত্রে অপরপক্ষের সভাপতিকে আলাদাভাবে নিমন্ত্রণ না করাই বাধা হয়ে দাঁড়ালো। উল্লেখ্য ৩০ এপ্রিল ২০১৬ তে ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহাজ্যে হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্ট তার হাত প্রসারিত করেছিল।

১০ মে ২০১৬ তে অনুষ্ঠিত হয় হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্টের পরবর্তী সাধারণ সভা, সভার আবারো যথারীতি সর্বসম্মতিক্রমে নতুন ৬ জন পরিচালনা পর্ষদ মনোনীত করা হয়। ওই সভার অন্যতম সিদ্ধান্ত ছিল আবারো যেন সমঝোতার ব্যবস্থা করা হয়। এবং রমজান উপলক্ষে গরীব মানুষকে সাহায্য করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্টের সব সদস্যরাই আন্তরিক ছিলেন সমঝোতার ব্যাপারে। কিন্তু ২৪ মে অপরপক্ষের কতিপয় লোক অত্যন্ত আনন্দ উল্লাসের সাথে কেক কেটে জনকল্যাণ ট্রাষ্ট হবিবপুর ইউকের রেজিস্ট্রেশন ঘোষণা করলেন। সাথে সাথে যে তারা এই নামটিকে ট্রেড মার্ক করে আইন সিদ্ধ ভাবে নিজেদের সংগঠন হিসেবে দাবি করতে গিয়ে নৃত্য প্রদর্শন করলেন। এ অবস্থায় ফেসবুকে অনেকেই ইয়া মাবুদ এখন আমি কিতা করতাম বলে ব্যাঙ্গাত্মক শব্দ ব্যাবহার করেন। তাতেও তারা নৃত্য বন্ধ না করে বরং পত্র পত্রিকা ও গণমাধ্যমে ছবি প্রকাশের মাধ্যমে আমাদেরকে আইনি সুত্রে পাওয়া নামকে ব্যবহার না করার হুমকি প্রদর্শন করেন। এতেও ক্ষান্ত না হয়ে তারা উকিল নোটিশ জারি করে। তাদের এমন হুমকি ধামকির ফলে আমাদের পরিচালনা
পর্ষদ দ্রুত জরুরি সভার আয়োজন করেন। সভায় সকলেই তার নিন্দা জ্ঞাপন করেন। এতে সবাই একমত পোষণ করলেন যে আমাদের একই গ্রাম, ও পরিবারের সদস্য হয়ে সামাজিক সাহায্যমূলক বিষয়ে উকিল নোটিশ দেয়ার স্পর্ধা রাখেন আর যাই হোক উনারা সমঝোতার পথ বন্ধ করে দিলেন। সবাই মত পোষণ করলেন যেহেতু আমাদের উদ্দেশ্য মানুষকে সাহায্য করা যার মাধ্যমে গরীব মানুষেরা উপকৃত হবে। তাই অন্য কোন নাম বা আমাদের সর্বপ্রথম প্রস্তাব কৃত নামানুসারে চ্যারিটি রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করার। সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমরা নতুন করে চ্যারিটি রেজিস্ট্রেশন করি যার নাম হয় হবিবপুর জনকল্যাণ ট্রাষ্ট জগন্নাথপুর, ইউকে। এবার আসি সাদাসিধে বক্তব্যে। জনৈক ব্যক্তি বলেছেন, যে কোন কারণে আমরা দুভাগে বিভক্ত এটা সত্য। আমরা পাঠকগণকে অত্যন্ত সম্মানের সহিত জানাতে চাই, যে কোন কারণে নয় বরং পদত্যাগ নাটকের মঞ্চায়ন শুধুমাত্র সংবিধান প্রণেতা না হতে পারার কারণে।
দুঃখবোধ এবং উপায়ান্তর না পেয়ে তৎকালীন পরিচালনা পর্ষদকে প্ররোচিত করে মতপার্থক্যের সৃষ্টি, অধিকাংশ সদস্যদের মতামতকে আগ্রাজ্য করার জন্যে পিছনে থেকে উস্কানিই ছিল দুভাগে বিভক্ত করার মূল কারণ। সংগঠনটির একেবারেই শুরুর দিকে যখন এর প্রস্তুতি চলছিল তখন জনৈক ব্যক্তি তার মত প্রকাশ করে দুরলাপনিতে বলেছিলেন সকলকে নিমন্ত্রণ করো ভালো কথা কিন্তু আমার চেয়ে বয়োজ্যৈষ্ঠ কাউকে নিমন্ত্রণ করোনা। পাঠক বুঝে নিন কি ছিল মতলব? তাছাড়া জনৈক ব্যক্তির হবিবপুর গ্রামের বিষয়টি সামাজিক মাধ্যম গুলোতে প্রচারের পর ওপরপক্ষের অন্যতম একজন সদস্যের কাছে জানতে পারলাম যে তিনি পদত্যাগ নাটক সম্পর্কে একেবারেই অবগত ছিলেন না। তাহলে সম্মানিত পাঠক আপনাদের নিশ্চয় বুঝতে আর বাকী নেই সত্যকে মিথ্যা হিসেবে সুন্দর উপস্থাপন আর কাকুতি মিনতির মাধ্যমে সহজ সরল পরোপকারীমনা মানুষ গুলোকে বিভাজন করার কি সুস্পষ্ট
এবং কুট কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে।
অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় লক্ষ্য করলাম, আমাদেরকে একটি পক্ষের হিসাবে দেখানো হয়েছে। অথচ ১ম সভা থেকে আজ ও সকলের অপর্িত দায়িত্ব আনতরিকতার সাথে পালন করে যাচছি । জনৈক লেখক বয়োজষঠ হওয়ার পরও বার বার চেষ্টা করেও তার কা থেকে কোন সহযোগিতা পাইনি । যে সম্মান রক্ষা করতে জানেনা তাকে সম্মান প্রদর্শণ করাই ছিল আমাদের ব্যর্থতা।

মানুষের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে নেতিবাচক বক্তব্য দিয়েছেন। তাতে কেউ বিন্দুমাত্র বিচলিত হন নি। কারণ কারো শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং অবস্থান সম্পর্কে সমালোচনার পূর্বে আত্মসমালোচনার প্রয়োজন। শিক্ষিত নয় বরং সু শিক্ষিত হওটাই বড় প্রয়োজন। কিন্তু পরিতাপের বিষয় আমরা এসব বয়ো জ্যৈষ্ঠদের কাছ থেকে সুশিক্ষার কোন পরিচয় পাইনি। আজ আমরা স্ব স্ব অবস্থানে মোটামুটি সুদৃঢ় রয়েছি। তাই সদিচ্ছার মাধ্যমে আমাদের এই সংগঠন নিয়ে সৃষ্ট অতীতকে সোনালী ভবিষ্যতে পরিণত করতে পারি যার মাধ্যমে যেমন উপকৃত হবেন যাদের উদ্দেশ্য গড়ে উঠেছে এই সংগঠন গুলো তেমনই প্রতিযোগিতা হবে ভালো কাজের। তাই আমরা আন্তরিক ভাবে অনুরোধ জানাবো আমাদের প্রিয় গ্রামের অভ্যন্তরীণ বিষয়গুলো গণমাধ্যমে প্রচার করা থেকে বিরত থাকুন। এতে গ্রামের প্রতি
মানুষ গুলোর প্রতি ন্যুনতম সম্মান প্রদর্শন করা হবে। আসুন আমরা স্বীয় অবস্থান থেকে মানুষের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করি। আমি শুরুতেই বলেছিলাম এই সাদাসিদে বক্তব্য একান্ত বাধ্য হয়েই আমরা তুলে ধরেছি। এতে অনিচ্ছাকৃতভাবে কাউকে কোন কষ্ট দিয়ে থাকি তবে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। আশা করি আল্লাহ তায়ালা আপনাদের সকলকে আন্তরিকভাবে আমাদের সকলকে মানুষের কল্যাণ করার তৌফিক দান করুন। লেখক- আব্দুল মতিন লাকি, জুনেদ তালুদার ও ইমরুল হক হীরক,হিসাব রক্ষক, হবিবপুর জনকল্যান ট্রাষ্ট, জগন্নাথপুর ইউকে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24