বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরসহ সুনামগঞ্জ জেলার সবকটি উপজেলায় আওয়ামীলীগের সন্মেলনের উদ্যাগ নবীগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন ২০০০ উইরো ফেরত দিয়ে প্রশংসিত বাংলাদেশি তরুণ জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট চলছে জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

আতঙ্কে আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশিরা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৫২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ম্যানহাটনে টাইম স্কয়ার সাবওয়ে স্টেশন থেকে বাস স্টেশনে যাতায়াতের ভূগর্ভস্থ পথে বোমা হামলা হয় সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস সোমবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে সাতটার দিকে। নিজের গায়ে থাকা বোমা ফাটাতে গিয়ে হামলাকারী নিজের হাত ও তলপেট পুড়িয়ে ফেলেন। তবে আঘাত গুরুতর নয়। এ ঘটনায় আহত আরও তিনজনের অবস্থাও গুরুতর নয়। নিউইয়র্কের গভর্নর ও মেয়র এ হামলাকে ন্যক্কারজনক বলে অভিহিত করেছেন এবং তাঁদের দাবি এটি সন্ত্রাসী হামলা।

নিউইয়র্কের সন্দেহভাজন বোমা হামলাকারীর নাম আকায়েদ উল্লাহ। পুলিশ জানিয়েছে, ২৭ বছরের এই ব্যক্তি বাংলাদেশি। সাত বছর আগে নিউইয়র্কে আসেন। ব্রুকলিনে থাকেন তিনি। সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস সোমবার সকালে নিউইয়র্কের সবচেয়ে বড় বাস টার্মিনাল পোর্ট অথরিটিতে বিস্ফোরণ ঘটানো ২৭ বছর বয়সী যুবকের পরিচয় পাওয়ার পর ক্ষোভে ফুঁসছে নিউইয়র্কে বসবাসরত বাংলাদেশি কমিউনিটি। একে-অপরকে ফোন করে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিক্রিয়া লিখে তাঁরা জানিয়েছেন এই ক্ষোভ আর শঙ্কার কথা।

স্থানীয় সাংস্কৃতিক কর্মী আকবর হায়দার কিরণ, হামলাকারীর ড্রাইভিং লাইসেন্সের ছবি দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন, ‘এখন কর্তৃপক্ষ হামলাকারীর পরিচয় শনাক্তে চেষ্টা চালাচ্ছে, হামলাকারী সম্ভবত একজন ট্যাক্সি ড্রাইভার।’
নিউইয়র্কে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত প্রায় ১০ হাজার উবার ও ট্যাক্সিচালক আছেন। মিনহাজ আহমেদ লিখেছেন, ‘যদি আজ রাতে হয়? গাড়ি চালাতে লাইসেন্স, রেজিস্ট্রেশন, ও ইনস্যুরেন্সের কপি সঙ্গে রাখা বাধ্যতামূলক। ঘটনাক্রমে কাল রাতে আমার সাথে শুধু লাইসেন্সই ছিল। তখন ম্যানহাটনে একটা গাড়ির সঙ্গে ঘষাঘষি ঘটে গেল। পুলিশ যখন রেজিস্ট্রেশন ও ইনস্যুরেন্স দেখতে চাইল, আমি তখন আশঙ্কায় ছিলাম, পুলিশ না জানি কি করে! কিন্তু ঘটনাক্রমে তিনি আমার সঙ্গে খুবই বন্ধুসুলভ আন্তরিক আচরণ করলেন। ভাবছি, কি হবে। এমন ঘটনা যদি আজ রাতে ঘটে এবং তিনি জানতে পারেন আমি বাংলাদেশি? তিনি কি একই আচরণ করবেন? আমি আশাবাদী, তিনি করবেন না। ৯/১১-উত্তর পরিস্থিতি থেকে আমি সেই অভিজ্ঞতাই লাভ করেছি। আমি আরও ভাবছি, ওরাও কি আশা করছে যে, উদার আইন ও আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর চোখ ফাঁকি দিয়ে পেছন দিয়ে কাজ সেরে ফেলতে পারবে? সকল প্রকার সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে নিন্দা ও ঘৃণা জানাই।’

নিউইয়র্কের ফিল্ম একাডেমির সাবেক ছাত্র আলী পি রিহান লিখেছেন, ‘নিউইয়র্কে আজকে বাংলাদেশি হিসেবে পরিচয় দিতে গিয়ে লজ্জায় মারা যাচ্ছি।’

ট্রাম্প প্রশাসনের বিভিন্ন অভিবাসীবিদ্বেষী কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রতিবাদকারী হিসেবে বেশ কিছু কর্মকাণ্ডে অংশ নিয়েছেন এবং প্রতিবাদ সংগঠিত করার কাজ করেন এমন একজন সোহেল মাহমুদ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি লিখেছেন, “ব্রুকলিনের ইস্ট ফর্টি এইট স্ট্রিটের বাসিন্দা আকায়েদ উল্লাহ। পুলিশ আর তদন্ত সংস্থাগুলো ঘিরে রেখেছে তার বাসা। তল্লাশি চলছে। আকায়েদ নাম জীবনে প্রথম শুনলাম আমি।

কিছুক্ষণ আগে ব্রুকলিনের একজন জানালেন, ছেলেটির বাড়ি নাকি সন্দ্বীপ। সন্দ্বীপ থেকে একজন জনপ্রতিনিধি জানালেন, ঢাকা থেকে পুলিশ সন্দ্বীপে খোঁজখবর নিতে শুরু করেছেন আকায়েদ নিয়ে। নামধাম এদিক-ওদিক করে যুক্তরাষ্ট্রে আসা বহু পুরোনো অভিবাসন-সংস্কৃতি। ‘আকায়েদ’ তেমন সংস্কৃতির সন্তান? হয়তো!”

ব্রঙ্কসের একজন অভিবাসন আইনজীবী ও হেইট ক্রাইম বিরোধী সংগঠক মোহাম্মদ এন মজুমদার লিখেছেন, ‘ধিক্কার জানাই তাদের, যাদের ঘৃণিত কর্মের দ্বারা দেশ ও জাতির বদনাম হয়।’ তিনি আরও লিখেছেন, ‘সন্ত্রাসের কোনো ধর্ম নেই, জাতীয়তা নেই। একমাত্র পরিচয় সে সন্ত্রাসী এবং এদের সর্বোচ্চ শাস্তিই প্রাপ্য।’

মহিতোষ তালুকদার নামের এক ব্যক্তি লিখেছেন, ‘হামলায় যাঁরা আহত হয়েছেন, তাঁদের জন্য আমার প্রার্থনা এবং সমবেদনা। সেই সাথে, এটা একটা বাজে সকাল আমার জন্য, আমাদের জন্য, বাংলাদেশিদের জন্য। একটা লজ্জার সকাল আমার জন্য, আমাদের জন্য, বাংলাদেশিদের জন্য। ধিক ধিক ধিক আকায়েদুল্লাহ। বিজয়ের মাসে তোর মুখে একদলা থু!’

এর বাইরে, অনেকেই এই বিষয়ে কথা বলছেন এবং প্রতিবেশীসহ পরস্পরের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। এই ঘটনার প্রতিবাদ করার জন্য নিউইয়র্কের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত কয়েক শ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত পুলিশ সদস্যের সংগঠন ‘বাংলাদেশ আমেরিকান পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন (বাপা)’ জরুরি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে।
সূত্র: প্রথম আলো

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24