সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০১:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে প্রতিবাদের ঝড় বইছে, পাথরই হাতিয়ার, নিহত ট্রাক চালক ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ,গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ফারুক হত্যা মামলায় এক রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম

আসামে ৪২ হাজার কথিত ‘বাংলাদেশী’কে নোটিশ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৪ অক্টোবর, ২০১৭
  • ২৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
অবশেষে পুলিশের রিপোর্টেই ‘বাংলাদেশী নাগরিক’ তকমা থেকে মুক্তি পেলেন ভারতীয় সেনাবাহিনীতে চাকরি করে অবসরে যাওয়া সেনা সদস্য মোহাম্মদ আজমল হক। পুলিশ বলেছে, পরিচয় ভুলের কারণে বাংলাদেশী অবৈধ নাগরিক হিসেবে নোটিশ দেয়া হয়েছিল আজমলকে। জবাবে আজমল বলেছেন, পুলিশ মিথ্যা বলছে। তারা নিজেদের ভুলকে আড়াল করার জন্য মিথ্যা বলছে। ওদিকে আসামে ৪২ হাজার মানুষকে সন্দেহজনক বাংলাদেশী হিসেবে নোটিশ দিয়েছে ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল। গত সপ্তাহে যখন আজমলকে এমন নোটিশ দেয়া হয় তখন ভারতজুড়ে তোলাপাড় সৃষ্টি হয়। বিবিসিতে সাংবাদিক শুভজ্যোতি ঘোষ লিখেছিলেন, আসামে গণহারে বাংলাভাষী মুসলিমদের বাংলাদেশী নাগরিক হিসেবে এমন নোটিশ দেয়া হচ্ছে। এর ফলে সেখানে বসবাসকারী বাংলাভাষী মুসলিমদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। এমন কথারই প্রতিধ্বনি শোনা গেছে সীমান্ত পুলিশের মহাপরিচালক আর এম সিংয়ের বক্তব্যে। তিনি মঙ্গলবার বলেছেন, প্রায় ৪২ হাজার বাংলাদেশীকে এ নোটিশ দেয়া হয়েছে। তারা এখন পলাতক। এ খবর দিয়েছে ভারতের অনলাইন টেলিগ্রাফ। এতে বলা হয়, বুধবার আসাম পুলিশ সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছে, তারা ভুল করে বাংলাদেশী অবৈধ অভিবাসী হিসেবে সেনাবাহিনী থেকে অবসরে যাওয়া মোহাম্মদ আজমল হককে নোটিশ দিয়েছিলেন। আসলে একই নাম ও একই গ্রামের ঠিকানা ব্যবহার করে অন্য একজন বাংলাদেশী। নামের মিল থাকায় ভুল করে সেনা সদস্য আজমলকে ওই নোটিশ দেয়া হয়েছিল। আসাম পুলিশের মহাপরিচালক মুকেশ সাহা সাংবাদিকদেরকে পুলিশ সদর দপ্তরে বলেছেন, ওই ঘটনায় অনুসন্ধান করা হয়েছে। তাতে দেখা গেছে, সেনা সদস্য আজমলকে ওই নোটিশ ইস্যু করেছিল আসলে গুয়াহাটির ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল। আসলে ওই নোটিশে অন্য একজন আজমল হকের নাম ছিল। তিনি কামরূপ জেলার বোকো পুলিশ স্টেশনের অধীনে কালাহিখাস গ্রামে বসবাস করতেন। তার বিরুদ্ধে ২০০৮ সালে মামলা হয়েছিল। তারপর থেকে তিনি পলাতক। এই আজমলের আসল বাড়ি হলো বাংলাদেশের ময়মনসিংহের নয়াপাড়া গ্রামে। মুকেশ সাহা বলেন, যেহেতু সন্দেহভাজন বাংলাদেশী আজমল হক পালিয়েছেন তাই পুলিশ এ বিষয়ে নোটিশ পাঠিয়ে দেয় গুয়াহাটি ট্রাইব্যুনালে। সম্প্রতি কামরূপ জেলার বোকোতে নতুন করে ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়। তারপর ওই একই নোটিশ পাঠানো হয় বোকো পুলিশ স্টেশনে। এবার তা পাঠায় বোকো ট্রাইব্যুনাল। নোটিশ পাওয়ার পর পুলিশের দু’জন কনস্টেবল যান ওই গ্রামে। কিন্তু তারা সন্দেহজনক ওই বাংলাদেশীকে খুঁজে পান নি। এ সময় তাদেরকে সঙ্গ দেন গ্রামপ্রধান। নামের মিল থাকায় তিনি তাদেরকে নিয়ে যান সেনাবাহিনী থেকে অবসরে যাওয়া ওই আজমল হকের বাড়িতে। সেখানে তারা আজমল হকের ভাই মুসলিমুদ্দিন আহমেদের স্ত্রীর সাক্ষাত পান। তিনি ওই নোটিশ গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানান। ওই সময় বাড়িতে অন্য কোনো পুরুষ সদস্য উপস্থিত ছিলেন না। অবসরপ্রাপ্ত ওই সেনা কর্মকর্তা যখন জানতে পারেন থানা থেকে তার নামে নোটিশ ইস্যু করা হয়েছে তখন তিনি তার ভাইকে থানায় পাঠান তা নিয়ে যেতে। তখন আমাদের পুলিশ সদস্যরা মুসলিমুদ্দিন আহমেদকে বলেন, এ নোটিশ তার জন্য নয়। তখন তিনি নোটিশটি নিয়ে যেতে আগ্রহ দেখান। উল্লেখ্য, পুলশ যে সময়ে কালাহিখাস গ্রামে সেনা সদস্য আজমলের বাড়িতে যায়, সেই সময়ে তিনি বাঘোরবাদিতে আরেকটি বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। এ নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয় ভারতে। এর জবাবে মুকেশ সাহা বলেন, এক সপ্তাহের মধ্যে সমস্যা সমাধানের নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি। নির্দেশ দেয়া হয়েছিল পুলিশের কোনো গাফিলতি আছে কিনা তা খুঁজে বের করতে। এরপর তদন্তে দেখা যায়, আজমলের নামে সন্দাহভাজন একজন বাংলাদেশী ছিলেন ওই গ্রামে। তবে তাদের পিতামাতা ও পরিবারের সদস্যদের নামে ভিন্নতা রয়েছে। আমরা এ বিষয়টি পরিষ্কার করেছি ওই সেনা সদস্যকে ও সেনাবাহিনীর সিনিয়র কর্মকর্তাদের। এ বিষয়ে সাংবাদিকরা আজমল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিনি পুলিশের মহাপরিচালকের মন্তব্য সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেন। বলেন, পুলিশ মিথ্যা কথা বলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24