সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

ঈদ রোজাদারদের জন্য আল্লাহর উপহার

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৪ জুন, ২০১৯
  • ১৭২ Time View

ঈদ অর্থ খুশি। ঈদ অর্থ উৎসব। দুনিয়ার সব ধর্মের মানুষই উৎসব পালন করে। প্রাক-ইসলামী যুগেও উৎসব পালনের প্রথা ছিল। হাদিস শরিফে উল্লিখিত রয়েছে রসুল সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন মদিনায় আগমন করলেন তখন মদিনাবাসীর দুটি দিবস ছিল। যে দিবসে তারা খেলাধুলা করত। রসুল সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম জিজ্ঞাসা করলেন, এই দুই দিনের কী তাত্পর্য আছে? তখন তারা উত্তর দিল আমরা জাহেলি যুগে এই দুই দিনে খেলাধুলা করতাম। তখন রসুলে করিম সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘আল্লাহ রাব্বুল আলামিন এ দুই দিনের পরিবর্তে তোমাদের এরচেয়ে ¤্রষ্ঠে দুটি দিন দিয়েছেন। তা হলো ঈদুল আজহা ও ঈদুল ফিতর।’ (আবু দাউদ ৯৫৯)
অন্যান্য ধর্মের ধর্মীয় উৎসবের সঙ্গে ইসলামের উৎসবের পার্থক্য রয়েছে। ইসলামের উৎসবের সঙ্গে পবিত্রতার সম্পর্ক ওতপ্রোতভাবে জড়িত। ঈদুল ফিতরের খুশি তাদের জন্য যারা পুরা রমজান মাসে রোজা রেখেছে, নামাজ পড়েছে, কোরআন তেলাওয়াতসহ অন্যান্য ইবাদত করেছে। একমাত্র আল্লাহর ভয়ে সুযোগ থাকা সত্ত্বেও রোজা ভাঙেনি। আর যারা রোজা রাখেনি, ইবাদত-বন্দেগি থেকে দূরে ছিল তাদের জন্য ঈদের খুশি নয়। রোজাদারের জন্য ঈদের আনন্দের বিষয়টি হাদিস শরিফে বর্ণিত হয়েছে। সাহাবি হজরত আনাস (রা.) হতে বর্ণিত, রসুল (সা.) বলেন, ‘শবেকদরে জিবরাইল (আ.) ফেরেশতাদের একটি জামাতসহ অবতরণ করেন। যে ব্যক্তি দাঁড়িয়ে, বসে আল্লাহর জিকির করতে থাকে বা ইবাদত-বন্দেগিতে মশগুল থাকে তার জন্য রহমতের দোয়া করেন। অতঃপর যখন ঈদুল ফিতরের দিন আসে তখন আল্লাহতায়ালা ফেরেশতাদের সামনে বান্দাদের ইবাদত-বন্দেগি নিয়ে গর্ব করেন। কারণ, ফেরেশতারা মানুষকে দোষারোপ করেছিল (অর্থাৎ পৃথিবীতে মানুষ প্রেরণকালে আপত্তি জানিয়েছিল)। অতঃপর আল্লাহতায়ালা জিজ্ঞাসা করেন, হে ফেরেশতারা! যে মজদুর নিজ দায়িত্ব পুরাপুরি পালন করে তার বদলা কি হতে পারে? ফেরেশতারা আরজ করেন, হে আমাদের রব! তার বদলা এই যে, তার পারিশ্রমিক তাকে পরিপূর্ণ দিয়ে দেওয়া হোক। আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, হে ফেরেশতারা! আমার বান্দা-বান্দীরা আমার ফরজ হুকুম (রমজান মাসের রোজা) পালন করেছে। এরপর তারা ঈদগাহের দিকে যাচ্ছে। আমার ইজ্জতের কসম, আমার প্রতাপের কসম, আমার দানশীলতার কসম, আমার বড়ত্বের কসম, আমার সুউচ্চ মর্যাদার কসম! আমি তাদের দোয়া অবশ্যই কবুল করব। তারপর আল্লাহতায়ালা বান্দাদের প্রতি লক্ষ্য করে বলেন, যাও! আমি তোমাদের গুনাহসমূহ মাপ করে দিলাম এবং তোমাদের গুনাহগুলোকে নেকি দ্বারা পরিবর্তন করে দিলাম। অতঃপর তারা ঈদগাহ হতে নিষ্পাপ হয়ে ফিরে আসে।’ বায়হাকি। রোজাদারের জন্যই যে কেবল পবিত্র ঈদ এসেছে। উপরোক্ত হাদিস সে সাক্ষ্য দেয়। মহান আল্লাহ আমাদের ঈদ পালনের তৌফিক দান করুন। আমিন।

মাও. মুহম্মাদ আবদুল খালেক.

লেখক : ইসলামী গবেষক

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24