শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১

এপ্রিলে রাজপথে নামছে বিএনপি

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৩৫ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

দল পুনর্গঠনের দাবি উঠলেও আপাতত সেই পথে হাঁটছে না বিএনপি। খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে দলে বড় ধরনের কোনো পরিবর্তন আনতে চাচ্ছেন না বিএনপির হাইকমান্ড। ইতোমধ্যে তৃণমূল থেকে বিএনপির ওপর চাপ আসছে। ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে অভ্যন্তরে শুরু হয়েছে ক্ষোভ। চাওয়া হচ্ছে জবাব! সামষ্টিক পথে না হেঁটে নিজ দলের আদর্শে হাঁটার জন্য দলের নীতিনির্ধারকদের চাপ দিচ্ছেন দলের বড় একটি অংশ। এমন পরিস্থিতিতে বিষয়গুলো তারেক রহমানকে অবহিত করা হয়েছে। আংশিক কিছু এর আগে খালেদা জিয়ার কানেও পৌঁছে দেয়া হয়েছে। এ অবস্থায় নিজ দলের মতকে গুরুত্ব দিয়ে পুরনো পথে হাঁটার জন্য ইঙ্গিত পেয়েছে দলটি। দলকে চাঙ্গা রাখার জন্য তৃণমূলকে মাঠে জাগানোর জন্য রাজপথমুখি আন্দোলনের কথা ভাবছে দলটি। দলটির সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলোর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এরই মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক এবং দলের নানা পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। অধিকাংশ বৈঠকে প্রযুক্তির মাধ্যমে লন্ডন থেকে সংযোগে ছিলেন তারেক জিয়া। পর্যবেক্ষণমূলক গুরুত্বপূর্ণ অনেক কিছুই আলোচনা হয়েছে। সমাধানের মাধ্যম খুঁজে পেয়েছে দলটি। শীর্ষ নেতাদের উপস্থিতিতে মাঠপর্যায়ের একাধিক নেতা তাদের ক্ষোভের কথা জানিয়েছেন তারেক জিয়াকে। সর্বসম্মতিক্রমে দল বাঁচাতে, কর্মীদের চাঙ্গা রাখতে আন্দোলনের পথ বেছে নিচ্ছে বিএনপি। তবে যা কিছুই করবেন সাবধানে পা ফেলতে চাচ্ছেন। কারণ নির্বাচনে বড় ধরনের ফল বিপর্যয়ের পেছনে দলের ভেতর থেকেই কোনো ক্রু হয়েছে বলে এখনো ধারণা করছে বিএনপির একটি অংশ। কারণ নির্বাচন-পরবর্তীতে বিএনপির যে রাজনৈতিক ছক ছিলো তা ভোটের আগেই ফাঁস হয়ে যায়। যদিও প্রাথমিকভাবে কয়েকজনকে এখনো সন্দেহের তালিকায় রাখা হয়েছে। তাই বর্তমানে বিএনপির কী করণীয়, কখন কী করতে হবে তা শুধু তারেক জিয়াই জানেন। আর বড় কর্মপন্থা এখনো দলের নীতিনির্ধারকদেরও তারেক জানাচ্ছেন না। তবে দলীয় একটি সূত্রের মত, যারা পারিবারিকভাবে বিএনপির আদর্শের, ছাত্রজীবন থেকে বিএনপি করে আসছেন শুধু এমন কয়েকজনের সাথেই আলাপ করে করণীয় ঠিক করছেন। যারা উড়ে এসে বিএনপির বড় নেতা হয়ে গেছেন, অতীত রাজনৈতিক আদর্শ অন্য মতাদর্শের ছিলো, তাদেরকে সিদ্ধান্ত জানানোর ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করছেন। তবে আপাতত তিন দাবি নিয়ে আন্দোলনে নামার ইঙ্গিত দিয়েছেন তারেক জিয়া। সেই আলোকেই বিএনপি কাজ করছে। বিএনপির কয়েকটি সূত্রের দাবি, খালেদা জিয়ার মুক্তি, সরকারের পদত্যাগ এবং আগামী তিন থেকে ছয় মাসের মধ্যে মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি নিয়ে রাজপথে নামার জন্য দলীয় হাইকমান্ডে আলোচনা হয়েছে। তবে আরও দুই মাস নীরব থেকে আন্তর্জাতিক অঙ্গন ও দলের ভেতরে নেতাদের চরিত্র পর্যবেক্ষণ করবে। ফেব্রুয়ারিতে মানববন্ধন, বিক্ষোভ এবং সমাবেশের মাধ্যমে মাঠ তৈরির কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। এপ্রিলে দেশ অচল ও সরকারকে ঠেকানোর জন্য হরতাল-অবরোধের মতো কর্মসূচির কথাও ভাবছে বলে মত দলটির একটি অংশের। ইতোমধ্যে খালেদা জিয়ার কারাবাসের এক বছর পূর্তিতে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। এজন্য পুরান ঢাকার বকশীবাজারের আশপাশসহ ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় লক্ষাধিক নেতাকর্মীর সমাগমের প্রস্তুতি নিচ্ছে দলটি। ওই সমাবেশ থেকে তৃণমূলকে বার্তা দিতে চায় বিএনপি। এজন্য এখন থেকেই ২০ দলের সঙ্গে সমন্বয় বাড়ানো হচ্ছে। আর কৌশলে ঐক্যফ্রন্ট টিকিয়ে রাখলেও গণফোরামের উপর দোষ চাপিয়ে কলঙ্কমুক্ত হবে বিএনপি। বিএনপির কয়েকজন নেতার মত, আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি ‘গণসম্মিলন’নাম দিয়ে ঐক্যফ্রন্ট যে ডাক দিয়েছেন তাতেও অংশগ্রহণ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। ইতোমধ্যেই এর ইঙ্গিতও দিয়ে যাচ্ছেন। সংলাপের দিনক্ষণ ঠিক করতে গত ১৭ জানুয়ারি ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির যে বৈঠক হয় তাতেও উপস্থিত হয়নি বিএনপি। যদিও তখন ঐক্যফ্রন্টের বৈঠকে আপাতত অংশ না নিতে তারেক রহমানের নির্দেশনা ছিলো। কয়েকজন নেতার মত, ঐক্যফ্রন্ট ঘোষিত তারিখে রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তন, কাকরাইলের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তন ও গুলিস্তানের মহানগর নাট্যমঞ্চ- এই তিন ভেন্যুর যে কোনো একটিতে এই গণসম্মিলনের প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। অবশেষে কৌশলগত কারনে ওই কর্মসূচি আঠারো দিন পেছানো হয়েছে। ঐক্যফ্রন্টের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা লতিফুল বারি হামিম বিষয়টি আমার সংবাদকে নিশ্চিত করেন। ঐক্যফ্রন্ট সূত্র মতে, ওই সম্মিলনে বামপন্থি দলগুলোও অংশ নিতে পারে। হতে পারে আরেকটি যুগপৎ সরকার বিরোধী জোট। এদিকে গতকাল ঐক্যফ্রন্টের বৈঠকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর উপস্থিত হলেও দলের স্থায়ি কমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদ, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যন আবদুল আউয়াল মিন্টুকে উপস্থিত হতে দেখা যায়নি। অতীতের সব স্ট্রিয়ারিং কমিটির বৈঠকে এ তিন নেতার সরব উপস্থিতি দেখা যেতো। তবে অন্য একটি সূত্রের মত, ড. কামাল যদি পূর্ণাঙ্গভাবে বিএনপির প্রেসক্রিপশনে চলে তাহলে কৌশলে বিএনপি মহাসচিবও শেষ পর্যন্ত ঐক্য ধরে রাখতে চান। ইতিমধ্যে ড. কামাল হোসেনও বিএনপির সঙ্গে তাল মিলিয়ে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে রাজি হয়েছেন। তাই আগামী বুধবার কালোব্যাজ ধারণ, ২৪ ফেব্রুয়ারি গণশুনানির মতো কর্মসূচিও ঘোষণা করেছে ঐক্যফ্রন্ট। এ নিয়ে গণফোরামের এক নেতার মত, ড. কামাল হোসেন ঐক্য টিকিয়ে রাখতে চান। দেশের মানুষের অধিকার নিশ্চিত করতে চান, এ জন্য অতীতের আন্দোলনের চরিত্রও আরেকবার বাস্তবায়নে ড. কামাল হোসেন সম্মত হয়েছে। এদিকে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্বাচন-পরবর্তী দলের করণীয় ঠিক করতে আইনজীবী, স্থায়ী কমিটিসহ মাঠপর্যায়ের কয়েকটি স্তরের নেতাকর্মীদের নিয়ে নানা বৈঠক করেছে বিএনপি। দলটির ভাষ্য মতে, আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার মুক্তির পথ দেখছে না স্বয়ং বিএনপিপন্থি আইনজীবীরাও। তাই রাজনৈতিক পদক্ষেপ ও আন্তর্জাতিকভাবে চাপ প্রয়োগের জন্য প্রস্তাবনা এসেছে। এ দুই পদক্ষেপ নিয়ে আপাতত আগাচ্ছে বিএনপি। এ নিয়ে তৃণমূল ও দলীয় নেতাকর্মীদের প্রস্তুতির জন্য ইঙ্গিত দিচ্ছেন দলটির শীর্ষনেতারা। গতকাল একটি অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ‘দেশকে রক্ষা করার জন্য, জনগণকে রক্ষা করার জন্য আসুন আমরা আগামী দিনে আর একটি সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন আদায় করার জন্য যেখানে যা করা প্রয়োজন, তার জন্য আমরা প্রস্তুতি গ্রহণ করি। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে, আন্দোলন বেগবান করে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন আদায় করি।’ ড. মোশাররফ বলেন, ‘এই সরকার দুরভিসন্ধিমূলকভাবে ষড়যন্ত্র করে মিথ্যা মামলায় আমাদের নেত্রীকে কারাগারে বন্দি করে রেখেছে। আমরা আগেই বলেছিলাম, এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করেই আমাদের নেত্রীকে কারাগারে নিয়েছে, এটা আজ প্রমাণিত হয়েছে। আজকে সারা বিশ্বের মানুষ এই সরকারকে গণতান্ত্রিক সরকার বলে না। আর তার প্রতিক্রিয়া, অর্থনৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক সর্বক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে।’ বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘গণতন্ত্রের সব প্রতিষ্ঠান ভেঙে দিয়ে, রাষ্ট্রযন্ত্রকে ভেঙে দিয়ে দখলদারিত্বের একটা পার্লামেন্ট গঠন করা হয়েছে। আজকে আমরা আহ্বান জানাতে চাই, জনগণের অধিকার রক্ষা করার জন্য, আমাদের ভোটের অধিকার রক্ষা করার জন্য, আমাদের বেঁচে থাকার অধিকার রক্ষা করার জন্য আসুন সবাই ঐক্যবদ্ধ হই। এই পার্লামেন্টকে বাতিল করে নতুন নির্বাচনের মধ্য দিয়ে নতুন সরকার গঠনের আহ্বান জানাই।’ স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আজ যে সংসদ বসতে যাচ্ছে সে সংসদ জনগণের সংসদ নয়, জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়। কারণ, এই নির্বাচনে মানুষ তাদের ভোটের অধিকার হারিয়েছেন। এই নির্বাচনে ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে দেয়া হয়নি, এই নির্বাচন করেছে প্রশাসন, পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এই নির্বাচনে জনগণের কোনো সম্পৃক্ততা ছিল না। তিনি বলেন, আমরা এই সরকারের পদত্যাগ দাবি করি এবং তিন থেকে ছয় মাসের মধ্যে নতুন করে নির্বাচন দাবি জানাই। আর এটার জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন করতে হবে।’

সৌজন্যে -আমার সংবাদ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24