বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:৪১ অপরাহ্ন

‘ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০১৫
  • ৮৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: ‘ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ।’-জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম রচিত এই শুনে মনে যে আনন্দ জাগে তা তুলনাহীন। কবি গানের মাধ্যমে ঈদের আনন্দ সকলের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে বলেছেন, নিজেকে খুশিমনে ভেদাভেদ ভুলে বিলিয়ে দিতে বলেছেন সকলের তরে।
কেননা আনন্দ একা উপভোগের বিষয় নয়। পরিবার, বন্ধুবান্ধব, প্রতিবেশি সকলকে নিয়ে মিলেমিশে আনন্দের জন্যই প্রতিবছর রোজার পর আসে ঈদ-উল-ফিতর। এখানে ‘ফিতর’ শব্দের অর্থ না খেয়ে থাকার পর খাবার গ্রহণ করা। অর্থাৎ এক মাস সিয়াম সাধনা শেষে এই ঈদের দিন ধরনীতে বয়ে যায় খুশির ধারা। ঈদের আনন্দে বিলীন হতেই কবির এই উদাত্ত আহ্বান।
শুক্রবার বাংলাদেশের আকাশে চাঁদ দেখা গেছে। ফলে কাল ঈদুল ফিতর। পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন নির্ধারণ ও পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনার লক্ষ্যে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় (বাদ মাগরিব) ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করবেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রী ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি আলহাজ অধ্যক্ষ মতিউর রহমান।
ঈদ সবার জীবনেই কম-বেশি আনন্দের উপলক্ষ এনে দেয়। আগের দিন সন্ধ্যাকাশে এক ফালি বাঁকা চাঁদ দেখার পর থেকেই মনে খুশির বন্যা বইতে শুরু করে। প্রত্যেক মুসলিম ধর্মীয় দায়িত্ব পালনের পর উৎসব পালনের জন্য যে যার মতো করে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। আল্লাহর নির্দেশে দীর্ঘ এক মাস সংযমের পর মুমিনরা যে তাকওয়াভিত্তিক চরিত্র গঠনের অনুশীলন করেন, তার সমাপনী উৎসব হলো এই ঈদ-উল-ফিতর।
ঈদের দিন সকালে ঘুম থেকে উঠে মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা গোসল শেষে পবিত্র হয়ে মিষ্টিমুখ করে সুন্দর, পরিচ্ছন্ন পোশাক পড়ে ঈদের জামায়াতে শরিক হন। নামাজের পর পরিচিতদের সঙ্গে কোলাকুলি, শুভেচ্ছা বিনিময়ের পালা। এরপর সময়-সুযোগ করে আত্মীয়-বন্ধুদের বাড়িতে যাওয়ার ব্যাপার তো রয়েছেই। ঈদে উপহার ও শুভেচ্ছা বিনিময়ের মাধ্যমে পরস্পর মিলনমেলার এক আবহ তৈরি হয়। এ সময় ধনী-গরিব ব্যবধান থাকে না।
ঈদ এলেই কাজী নজরুল ইসলামের ‘ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে’ গানটি শোনা যায়। এটি কবিরচিত কালজয়ী গান; ঈদ উৎসবের আবশ্যকীয় অংশ। শিল্পী আব্বাস উদ্দিন আহমদ-এর অনুরোধে ১৯৩১ সালে কবি নজরুল ইসলাম এই গানটি রচনা করে নিজেই সুর দেন। গানটি লেখার চারদিন পর শিল্পী আব্বাস উদ্দিনের গলায় গানটি রেকর্ড করা হয়। রেকর্ড করার দুই মাস পরে ঈদের ঠিক আগে এই রেকর্ড প্রকাশ করা হয় গ্রামোফোন কম্পানি হিজ মাস্টার্স ভয়েসের মাধ্যমে।

0 0 0 0
– See more at: http://www.jugantor.com/current-news/2015/07/17/295510#sthash.exzWG0wt.dpuf

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24