মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:১৯ পূর্বাহ্ন

দেশে কাগুজে মুদ্রার পরিবর্তে ইলেক্ট্রনিক মুদ্রা চালু হচ্ছে

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৭ মার্চ, ২০১৫
  • ৬৮ Time View

জগ্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: কাগুজে মুদ্রার পরিবর্তে ই-কারেন্সি বা ইলেক্ট্রনিক মুদ্রা চালুর চিন্তা-ভাবনা করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এটি চালু হলে কাগজের টাকা বা কয়েনের কোনো ব্যবহার থাকবে না। এর মূল উদ্দেশ্য হলো_ জাল টাকা নিয়ন্ত্রণে আনা, মুদ্রার ব্যবহার গতিশীল করা এবং ছাপার ব্যয় থেকে বের হয়ে আসা। এ নিয়ে ইতোমধ্যে একটি ধারণাপত্র তৈরি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের ইলেক্ট্রনিক মুদ্রার বিরোধিতা করেছেন অর্থনীতিবিদরা। তারা বলছেন, সারাদেশে ইন্টারনেটের বিস্তার না ঘটিয়ে ই-কারেন্সি চালু বিপজ্জনক হবে। পাশাপাশি ইন্টারনেটে এসব মুদ্রা হ্যাকিং হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ব্যাংকিং ক্ষেত্রে সব ধরনের প্রযুক্তির সুবিধা নিশ্চিত করার পরই এ ধরনের মুদ্রা চালু করা যেতে পারে।
জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবুল কাশেম বলেন, আয়ারল্যান্ডভিত্তিক একটি সংস্থা এ ধরনের মুদ্রা চালুর জন্য তাদের কাছে (কেন্দ্রীয় ব্যাংক) একটি প্রস্তাব দিয়েছে। তার পরই তারা এ নিয়ে চিন্তা-ভাবনা শুরু করেছেন। এর ইতিবাচক দিক তুলে ধরে তিনি বলেন, ই-কারেন্সি চালু হলে টাকা ছাপানোর জন্য পয়সা খরচ করে কাগজ, কলম ও কালি কিনতে হবে না। অন্যদিকে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে টাকা পাঠাতে ট্রাক ভাড়া ও পুলিশ পাহারার প্রয়োজন পড়বে না। এ ক্ষেত্রে কাগজের টাকা বা কয়েনের কোনো ব্যবহার থাকবে না। ডেবিট কার্ডে যেমন ঝুঁকি নেই ঠিক তেমনি ই-কারেন্সিতে কোনো ঝুঁকির আশঙ্কা নেই।
বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ইলেক্ট্রনিক মুদ্রা চালুর মাধ্যমে মুদ্রার ব্যবহার গতিশীল হবে, কমে আসবে ছাপার ব্যয়। প্রাথমিকভাবে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দেয়, এমন ব্যাংকের মাধ্যমে পাইলট প্রকল্প হিসেবে এটা চালুর চিন্তা করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। জানা গেছে, ই-কারেন্সি এমন ধরনের মুদ্রা, যার কোনো বাস্তবিক অস্তিত্ব থাকবে না। তবে কম্পিউটার, মোবাইল বা অনলাইনের মাধ্যমে ই-কারেন্সি ব্যবহার করা যাবে। এর মাধ্যমে সব ধরনের বিল পরিশোধ, অর্থ স্থানান্তর, কেনাকাটা করা যাবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক নিজস্ব সার্ভারে ই-কারেন্সির নাম্বার সংরক্ষণ করবে। প্রাথমিকভাবে বাজারে প্রচলিত অর্থের অল্প কিছু ই-কারেন্সিতে রূপান্তর করে পাইলট প্রকল্প শুরু করার পরিকল্পনা করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ভারতেও পাইলট প্রকল্প হিসেবে ই-কারেন্সি চালু করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, আয়ারল্যান্ডভিত্তিক ই-কারেন্সি মিন্ট লিমিটেডের প্রস্তাব পাওয়ার পর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিশেষজ্ঞরা এ নিয়ে একটি ধারণাপত্র তৈরি করে উচ্চপর্যায়ে জমা দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতেই গভর্নর, ডেপুটি গভর্নর, প্রধান অর্থনীতিবিদ ও চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট উপদেষ্টার সমন্বয়ে গঠিত এসএমটি সভায় সম্প্রতি বিষয়টি উত্থাপন করা হয়। সভায় বিষয়টি নিয়ে আরো গবেষণা ও অন্য দেশের অভিজ্ঞতা জানার পরই সিদ্ধান্ত হবে জানানো হয়।
সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, প্রাথমিক পর্যায়ে ডাচ্-বাংলা ও ব্র্যাক ব্যাংকের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করা হবে। এ দুটি ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং সেবার সঙ্গে ই-কারেন্সি যুক্ত করা যায় কিনা, তা খতিয়ে দেখা হবে। পাশাপাশি ই-কারেন্সির কী কী ঝুঁকি রয়েছে, তা-ও খতিয়ে দেখা হবে। এর পরই সিদ্ধান্ত হবে পাইলট প্রকল্প চালুর বিষয়ে।
তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে ই-কারেন্সির চালুর বিষয়ে নেতিবাচক মত দিয়ে বলেন, বিশ্বের কয়েকটি দেশ এ ধরনের মুদ্রা চালু করেছে। এতে কোনো টাকা-পয়সা লেনদেন হবে না। এ ধরনের কারেন্সি জাল টাকা, জাল পে-অর্ডারের ক্ষেত্রে হয়তো কিছুটা নিরাপত্তা দিতে পারে। কিন্তু এতে কিছু সমস্যা রয়েছে। প্রথমত, বাংলাদেশে ইন্টারনেটের এখনো এত বিস্তার ঘটেনি অর্থাৎ সব জায়গায় পেঁৗছেনি এবং খুব ধীরগতির। শুধু তাই নয়, মাঝেমধ্যে তা বন্ধ হয়েও যায়। এসব ই-কারেন্সির জন্য বিপজ্জনক হবে। দ্বিতীয়, ই-কারেন্সি হ্যাকিং হওয়ার সম্ভাবনা হয়েছে। অনেক ব্যাংক এখনো অনলাইনে যেতে পারেনি, বিশেষ করে সরকারি ব্যাংক। তাই চট করে এ ধরনের সিদ্ধান্ত না নিয়ে ব্যাংকিং খাতে সব ধরনের টেকনোলজির সুবিধা দিয়ে তারপর এ সিদ্ধান্ত নেয়ার পরামর্শ দেন তিনি।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ ধরনের সেবা চালুর জন্য ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা এবং অনলাইন ব্যাংকিংয়ের (ই-ব্যাংকিং) গ্রাহক বাড়াতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, দিন দিন দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়লেও অনলাইন ব্যাংকিংয়ের (ই-ব্যাংকিং) গ্রাহক কমছে। গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের ব্যাংকে এ সেবা ব্যবহারকারী গ্রাহকের সংখ্যা কমেছে প্রায় ৭১ হাজার।
বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, গত জুন শেষে ই-ব্যাংকিং সেবা গ্রহণকারী হিসাব ছিল ১৩ লাখ ৯২ হাজার ১৫২টি। কিন্তু সেপ্টেম্বরে তা ৭১ হাজার ৩৫৬টি কমে দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ২০ হাজার ৭৯৬টিতে। আগে যেখানে মোট গ্রাহকের ১ দশমিক ৭৯ শতাংশ এ সেবার আওতায় ছিল, সেপ্টেম্বরে কমে গিয়ে ই-ব্যাংকিংয়ের আওতায় রয়েছে ১ দশমিক ৬৬ শতাংশ গ্রাহক।
ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহার করে যে কোনো জায়গা থেকে নিজেই ব্যাংকিং সুবিধা গ্রহণ করাকে বলা হয় ই-ব্যাংকিং। ২৪ ঘণ্টাই সেবাটি পাওয়া যায়। লেনদেনের সবচেয়ে নিরাপদ ও দ্রুতগতির ব্যাংকিং এটি।
২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে এক প্রজ্ঞাপনে ওই বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে ই-কমার্স ও ই-ব্যাংকিং সুবিধা নিশ্চিত করতে কোর ব্যাংকিং সলিউশন (সিবিএস) ও আন্তঃশাখা সংযোগ নেটওয়ার্ক স্থাপনের নির্দেশ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক।
তবে এ সুবিধা চালুর পরই কয়েকটি ব্যাংক থেকে পাসওয়ার্ড হ্যাক করে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার ঘটনা ঘটে। গত বছরের শুরুতে ব্র্যাক ব্যাংকের ১৮ গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় ৩০ লাখ টাকা চুরি হয়ে যায়। হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে ওই টাকা হাতিয়ে নেয় দুর্বৃত্তরা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24