সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ

কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী জগন্নাথপুর ও নবীগঞ্জ উপজেলার গ্রামগুলো বন্যা কবলিত পানি বন্দি মানুষের মানবেতর জীবন যাপন

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই, ২০১৫
  • ৪০ Time View

রাকিল হোসেন:: কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নদীর তীরবর্তী এলাকা জগন্নাথপুর ও নবীগঞ্জ উপজেলার বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। কুশিয়ারা নদী তীরবতী জগন্নাথপুর ওনবীগঞ্জ উপজেলার গ্রামগুলোর মানুষ বন্যা কবলিত অবস্থায় আছেন। নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের দীঘলবাক গ্রাম, কসবা, চরগাঁও, উমরপুর, গালিমপুর, মাধবপুর, কুমারকাঁদা (একাংশ), আহম্মদপুর, ফাদুল্লা, রাধাপুর, জামারগাঁও, রাধাপুর প্রাইমারী স্কুলসহ বেশ কিছু এলাকা ইতিমধ্যে প্লাবিত হয়ে পড়েছে। বাড়ি-ঘরে আবার অনেকের বাড়ির আঙ্গিনায় পানি উঠায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন বলে স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন। তলিয়ে গেছে প্রায় কয়েক শত একর জমির হালি চারা। এনিয়ে কৃষকরা রয়েছেন মহা দুঃচিন্তায়। অপর দিকে অনেক লোকদের বেশ ক’য়েকটি মৎস্য খামার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এছাড়া কুশিয়ারা ডাইকের উপর পানি চৈ চৈ করছে। রাধাপুর নানু মিয়ার বাড়ির নিকটে ডাইকে ব্যাপক ফাটল দেখা দিয়েছে। যে কোন মুহুর্তে ওই ডাইক ভেঙ্গে যেতে পারে বলে ইউপি মেম্বার ফখরু মিয়া এ প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন। ওই ডাইক ভেঙ্গে গেলে নবীগঞ্জের কয়েক’টি ইউনিয়নে বন্যায় প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হবে বলে আশংখ্যা করছেন এলাকাবাসী। ডাইকে ফাটল দেখাার কারনে আতংকে রয়েছেন ওই এলাকার লোকজন। এ ব্যাপারে জরুরী ভিত্তিতে কুশিয়ারা নদীর ওই ডাইকের মেরামত করে অকাল বন্যার হাত থেকে নবীগঞ্জ বাসীকে রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এছাড়া গত ক’দিন ধরে টানা বর্ষণ ও উজান থেকে পাহাড়ি ঢলের পানি নেমে আসায় কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে আসছিল। ইতিমধ্যে উল্লেখিত গ্রামের সিংহ ভাগ লোকদের বাড়িঘরে ও আঙ্গিনায় পানি উঠায় বন্দি জীবন যাপন করছেন লোকজন। ঘর থেকে বের হতে হলেই কলাগাছের ভেলা, নৌকা বা বাশেঁর সাকোঁ ব্যবহার করতে হয়। গৃহিনীরা থালাবাসন ধৌত করার কাজ বারান্দায় বসেই সম্পন্ন করতে দেখা যাচ্ছে। প্রতি বছরই বর্ষা মৌসুমে এ অঞ্চলের মানুষের দূর্বিষ জীবন যাপন করতে হয়। নদীর তীরবর্তী গ্রাম ও বাড়িঘর হওয়ার কারনে এ দূর্ভোগের শিকার হন। অনেক পরিবারের লোকজন হাটুঁ পানিতে ভিজে ঘরে আসা যাওয়া করতে হচ্ছে। গতকাল দিন ব্যাপী ওই এলাকায় সরজমিনে গেলে এমন দৃশ্য গুলো চোখেঁ পড়ে। এ সময় এ প্রতিনিধির সাথে স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সমাজ সেবক গোলাম হোসেনও ছিলেন।
এ ব্যাপারে গোলাম হোসেন বলেন, প্রতি বছরই নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে শত শত পরিবার নিঃস্ব হচ্ছে। এরমধ্যে বর্ষা মৌসুমে মানুষের দূর্ভোগের অন্ত নেই। কুশিয়ারা নদীর পানি উপচে নদীর তীরবর্তী গ্রামের বাড়িঘরে ও আঙ্গিনায় পানি উঠে অকাল বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। এশিয়ার র্সববৃহৎ গ্যাস কুপ বিবিয়ানা। এর পার্শ্ববর্তী গ্রাম গুলোর লোকজন পানি বন্দি অবস্থায় রয়েছে গত ক’দিন ধরে। প্রতিদিনই পানি বাড়ছে এবং নতুন নতুন বাড়িঘর প্লাবিত হচ্ছে। মানুষের দূর্ভোগ ও কষ্টের শেষ নেই। স্কুল কলেজ পড়–য়া ছাত্র-ছাত্রীরা রয়েছে বিপাকে। সমাজ সেবক গোলাম হোসেন দীঘলবাক ইউনিয়নের কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী মানুষদের পাশে দাড়িয়ে সহযোগিতা করার জন্য সরকার ও প্রশাসনের প্রতি জোরদাবী জানিয়েছে।এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী বলেন, কুশিয়ারা নদীর পানি উপচে গিয়ে নদীর তীরবর্তী ঘরবাড়ি ও স্কুল আক্রান্ত হয়েছে। এতে জনসাধারনের দুভোর্গের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের উদ্যোগ নেয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ বলেন, খবর পেয়ে ছুটে এসেছি। নদীর পানি উপচে লোকজন আক্রান্ত হয়েছে। কুশিয়ারার নদীর পানি বর্তমানে বিপদ সীমার নীচে রয়েছে। বিষয়টি সার্বক্ষনিক উপজেলা প্রশাসনের মনিটরিংয়ে রয়েছে। অবস্থা দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের প্রতি সুপারিশ করা হবে।স্থানীয় লোকজন বলেন, কুশিয়ারা ভাঙ্গন ও অকাল বন্যার কবল থেকে নদীর তীরবর্তী গ্রাম গুলোকে স্থায়ীভাবে রক্ষা করার জন্য সরকারের পক্ষে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। এবং চলমান পানি বন্দি পরিবারের প্রতি সহযোগিতার দাবী জানান এলাকাবাসী। জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ,পাইলগাঁও ও আশারকান্দি ইউনিয়নের একাংশের কুশিয়ারা নদী তরীবতী মানুষগুলো বন্যা কবলিত হয়ে সীমাহীন দুভোগে রয়েছেন। রানীগঞ্জের ফয়জুল্লার ডালা ও রত্না গাং ভরাট হয়ে যাওয়ায় কুশিয়ারা নদীর পানি নামতে না পারায় রানীগঞ্জ বাজার রৌয়াইল বাজার সহ তিন ইউনিয়নের ২০টি গ্রামের মানুষ বন্যা কবলিত অবস্থায় আছেন। জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ বলেন, কুশিয়ারা নদীর তীরবতী গ্রাম ও হাটবাজারের মানুষ আকস্মিক বণ্যা কবলিত হয়ে দুভোগে পড়েছেন। এসব বন্যা কবলিত মানুষের পাশে সরকারি বেসরকারী সহায়তা নিয়ে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24