রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:০৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নতুন ২ কাণ্ডারির পরিচিতি জনগণের মৌলিক অধিকার ও আইনের শাসনে গুরুত্ব দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী দ.সুনামগঞ্জে বিদেশী রিভলবারসহ গ্রেফতার ১ সাংবাদিক এ এস রায়হানের পিতার মৃত্যু, জানাজা সম্পন্ন পাটলী উইমেন্স কলেজ উন্নয়নে প্রবাসীদের ১২ লাখ টাকার অনুদান জগন্নাথপুরে শ্রমিক-ব্যবসায়ীদের দ্বন্দ্বের নিস্পত্তি, পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার বাংলাদেশে ঢুকে মসজিদ নির্মাণে বিএসএফ’র বাধা প্রদান জগন্নাথপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সালিশী ব্যক্তিত্ব নুরুল ইসলাম আর নেই সুনামগঞ্জে বিয়ের খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে ৮০ জন হাসপাতালে, ১ জনের মৃত্যু

গণ মানুষের পক্ষে কথা বলতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে চাই- মুক্তাদীর

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ৩২ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: আসন্ন জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে জোড় প্রত্যাশা করেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তাদির আহমদ মুক্তা। আজ মঙ্গলবার কেন্দ্র থেকে দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। সে ঘোষনায় তার নাম না থাকায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে জনগনের দেশে বিদেশে অবস্থানরত জগন্নাথপুর উপজেলার সম্মানিত নাগরিক বৃন্দ ও ফেসবুকে সক্রিয় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষকে সম্ভোধন করে তার ফেইসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। পাঠকদের উদ্দেশ্যে তা হুবহু প্রকাশ করা হলো।
“দেশে বিদেশে অবস্থানরত জগন্নাথপুর উপজেলার সম্মানিত নাগরিক বৃন্দ, আমার পরম শ্রদ্ধেয় নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন এলাকার শুভানুধ্যায়ী, আত্মীয় স্বজন, বন্ধু বান্ধব, সামাজিক ও রাজনৈতিক নেতা কর্মী বৃন্দ, ফেসবুকের বন্ধুমহল, ফেসবুকে সক্রিয় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার গুরুজন এবং আমার প্রিয় জগন্নাথপুর উপজেলার ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ নির্বিশেষে সর্বস্তরের জনগণ আসসালামু আলাইকুম, আদাব।
আমি একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে স্কুল জীবন থেকেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলাম।বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ইউনিটে সাংগঠনিক দায়িত্ব পালনের সূযোগ হয়েছে। বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। গণ মানুষের অধিকার আদায়, প্রগতিশীল রাজনীতি স্থানীয়ভাবে বিকাশে সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি।দুর্বৃত্তায়ন ও আধিপত্যবাদের বিরুদ্বে সোচ্চার থাকার অনবরত প্রচেষ্টা অব্যাহত ছিল।বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জনগণের বিশাল রায়ে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা,আইনি সীমাবদ্ধতা মোকাবেলা করে কর্তব্য পালনে পিছপা হইনি। বিধিহীন, কাঠামোহীন উপজেলা পরিষদ পরিচালনা করতে গিয়ে শত শত বাধা মোকাবেলা করে উপজেলা পরিষদকে কার্যকর করতে আন্দোলন সংগ্রাম করেছি।বিগত ২ বছর থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে উপজেলা চেয়ারম্যানকে উপজেলার নির্বাহী প্রধান ঘোষণা করে উপজেলা পরিষদকে কার্যকর করা হয়েছে।বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থার সহযোগিতায় উপজেলা পরিষদকে অধিক সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত করতে নানামুখি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।একটি উপজেলার আর্থ সামাজিক উন্নয়নে উপজেলা পরিষদ হবে আগামী দিনের সবচেয়ে কার্যকরী প্রতিষ্ঠান। সেই বিশ্বাস থেকে প্রিয় দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়নে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার আগ্রহী ছিলাম।
আশা ছিল দল মনোনয়ন না দিলেও দলের সর্বোচ্চ ফোরামে অন্তত একজন প্রার্থী হিসেবে নামটা যাবে।কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলতে হচ্ছে জেলা, উপজেলার সুযোগ্য নেতৃবৃন্দ একজন প্রার্থী হিসেবে আমার নামটা পাঠাননি।কেন্দ্রীয় অনেক শ্রদ্ধেয় নেতৃবৃন্দ, বিশেষ করে সাবেক ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দসহ অনেক প্রবাসী নেতৃবৃন্দ,তৃণমুলের অনেক সহযোদ্বা যেভাবে আমার মনোনয়ন লাভের জন্য চেষ্টা করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।আমি প্রার্থী হলে রাজনৈতিক ক্ষমতাধরদের ক্ষমতা খর্ব হবে,সাধারণ কর্মীরা সংগঠিত হবে এই ভাবনা থেকে অপশক্তি ও মধ্যসত্বভোগীরা মিলে কূটকৌশলে জননেত্রী দেশরন্ত শেখ হাসিনার সম্মুখে আমার নাম উপস্থাপন না করে সাধারণ নেতা কর্মী ও জগন্নাথপুরের সাধারণ মানুষের অনুভূতিকে অসম্মান করে আমার প্রতি অবিচার করেছে। তাই এই অসম্মানের প্রতিবাদে, আমার মেধা,যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা জনগণের কল্যানে নিবেদিত করার প্রয়াসে, সুবিচারের আশায় জনতার আদালতে গণমানুষের পক্ষে কথা বলতে আমি আসন্ন জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থীতা ঘোষণা করছি। আমি দল মত নির্বিশেষে সকলের দোয়া,আশির্বাদ সাহায্য,সহমর্মিতা, সহযোগিতা এবং মূল্যবান পরামর্শ প্রত্যশী। অতীতে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কারো মনে কষ্ট দিয়ে থাকলে আমি ক্ষমা প্রার্থী। সূযোগের অভাবে মানুষের প্রত্যাশা পূরণ ও উন্নয়নে কাঙ্ক্ষিত ভূমিকা রাখতে পারিনি।তারপরও শত সীমাবদ্ধতা,আইনি বাধা, অশুভ হস্তক্ষেপ,আমলাতান্ত্রিক জটিলতার মধ্যেও সক্রিয় ভূমিকা রাখার চেষ্টা করেছি।নেতা কর্মীদের প্রতি সহানুভূতিশীল থাকতে আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। বিভিন্নভাবে আমাকে কোনটাসা করে জনগণের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা করা হয়েছে।শত ষরযন্ত্র, মিথ্যা অপবাদ দিয়ে নেতা কর্মীদের বিভ্রান্ত করা হয়েছে।।তারপরও সব মেনে নিয়েছিলাম একজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির প্রধান কর্তব্য উন্নয়নে ভূমিকা রাখা।
রাজনৈতিক লাভ ক্ষতির চিন্তা না করে নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিকে মেনে নিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার সকল নির্দেশনা বাস্তবায়নে সক্রিয় থেকেছি।অনেক ব্যক্তিগত সম্পর্ক, আত্মীয়তার সম্পর্ককে বলি দিয়েছি।আজ সকল ব্যর্থতার ভার মাথায় নিয়ে জগন্নাথপুর উপজেলাকে একটি অগ্রসর ও আধুনিক উপজেলা গঠন করতে নিজেকে উৎসর্গ করার মানসে দলীয় নির্দেশনার বাইরে গিয়ে নিজেকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করতে হয়েছে।বঙ্গবন্ধু প্রাণ নেতা কর্মীরা আশাকরি আমার অবস্থান বুঝার চেষ্টা করবেন।আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।
জয় বাংলা।”

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24