বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরসহ জেলা জুড়ে তীর শিলং জুয়ায় নিঃস্ব হচ্ছে মানুষ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৬ আগস্ট, ২০১৭
  • ১৬১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
‘জামালভাই তোমরা যে তীর শিলং খেলার ব্যবসা করো, ইতা আমরা করতে চাইলে, কিতা করা লাগবো। ভাই ৫ লাখ আগে আমার কাছে দেওয়া লাগবো, পরে তোমারে এজেন্ট দেওয়া যাইবো, আমি সরাসরি যোগাযোগ করতাম পারতাম নায়? না ভাই, পয়লা পয়লা তুমি যোগাযোগ করতায় পারতায় নায়।’
তাহিরপুর সীমান্তের কলাগাঁওয়ের জামাল উদ্দিন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের তাহিরপুর প্রতিনিধি এমএ রাজ্জাককে এভাবেই ‘তীর শিলং’র এজেন্ট প্রদানের বিষয়টি বুঝিয়ে বলছিলেন। জামাল উদ্দিন কলাগাঁওসহ সীমান্ত এলাকায় ‘তীর শিলং’এর এজেন্ট হিসাবে পরিচতি। কেবল জামাল উদ্দিন নয়। সীমান্ত উপজেলা তাহিরপুরের বেশ কটি স্থানেই জামাল উদ্দিনরা সক্রিয়। অবশ্য সুনামগঞ্জের অন্যান্য উপজেলায় তীর শিলং ছড়িয়ে পড়েছে। নি¤œ আয়ের জুয়ারিদের এখন এটি নেশায় পরিণত হয়েছে।
সুনামগঞ্জ শহরের মাছবাজার, পুরাতন বাসস্টেশন, নতুন বাসস্টেশন, পশ্চিমবাজার, পৌর বিপণি, সাহেব বাড়ির ঘাট এলাকায় তীর শিলং ব্যবসায়ীরা গরিব এবং শ্রমজীবী কিশোর-তরুণ এমনকি বয়স্কদের টার্গেট করে এই ব্যবসা চালায়।
একইভাবে দোয়ারাবাজারের আমবাড়ী, তাহিরপুর সীমান্তের বড়ছড়া, শ্রীপুর বাজার, কলাগাঁও বাজার, চারাগাঁও বাজার, বাগলীবাজার, বালিয়াঘাট নতুন বাজার, ছাতক উপজেলার জাউয়া, বড়কাপন, গোবিন্দগঞ্জ ও আফজলাবাদ এলাকায়, দক্ষিণ সুনামগঞ্জের দামোদরতপি, মাহমদপুর পয়েন্ট, মদনপুর পয়েন্টে, জগন্নাথপুর রানীগঞ্জ সড়কের হ্যালিপ্যাড এলাকাসহ পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকায় তীর শিলং’র এজেন্টদের জাল বিস্তৃত হয়েছে।
এক’এ সত্তর পাওয়ার আশায় প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা হাত ছাড়া হচ্ছে খেলায় অংশ গ্রহণকারীদের। অন্যদিকে, এই টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এজেন্টরা।
এক-একজন এজেন্টের কাছে ১ থেকে ৯৯ নাম্বার থাকে। জুয়ারিরা নির্দিষ্ট একটি নাম্বার ধরে টিকেট কেটে থাকে। একেকজন যত ইচ্ছা নাম্বার এবং টিকেট কিনতে পারেন। প্রতিদিন ভারতের শিলংয়ে এই খেলায় একটি নম্বরকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। বিজয়ী নাম্বারের টিকেট যারা কিনেছিলেন তারা ৭০ গুণ বেশি টাকা পান। বাকি ৯৮ টি নাম্বারে টিকেট যারা কিনেন তাদের টাকা গচ্চা যায়। পরাজিত হলেও জোয়ার নেশায় পরের দিন আরও বেশি খেলোয়ার ভিড় করেন এজেন্ট বা সাব এজেন্টদের পাতা ফাঁদে।
রাতারাতি বড়লোক হওয়ার স্বপ্নে বিভোর হয়ে অনেকে জোয়ারি’র খাতায় নাম লিখাচ্ছেন এবং সর্বশান্ত হচ্ছেন।
সর্বনিম্ন ১০ টাকা দিয়ে কেনা যায় এসব নাম্বার। আর এই নাম্বারেই লুকিয়ে থাকে ‘রাতারাতি বড়লোক হওয়ার অলীক স্বপ্ন’! কারণ সর্বনিম্ন ১০ টাকা দিয়ে যে কোন নাম্বার কেনার পর তা যদি ওয়েব সাইটে প্রকাশ হয়, তাহলে সে হবে ৭০০ টাকার মালিক!
কেউ যদি ১০০ টাকা দিয়ে ১টা নাম্বার কিনে, তাহলে সে পাবে ৭ হাজার টাকা। ১০-১৫ হাজার টাকা দিয়েও অনেকে একাধিক নাম্বার কিনে। অর্থাৎ এক বারেই ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দেবার প্রত্যাশায় ১ থেকে ১০ কিংবা ৫০ থেকে ৭০ নাম্বারও কিনে রাখে। তবুও নাম্বার ওঠা চাই-ই-চাই। নি¤œ আয়ের মানুষজন এমন প্রতারণায় পড়ছেন বেশি।
প্রতিদিন বিকাল ৪ টায় ও বিকাল ৫টা ১৫ মিনিটে (িি.িঃববৎপড়ঁহঃবৎ) এর ফলাফল প্রকাশ করা হয়। ফলাফলের সময় ঘনিয়ে আসার সময় ক্রেতা বেড়ে যায়।
সুনামগঞ্জ সদর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার তাপস রঞ্জন ঘোষ বলেন, ‘পুলিশ এ ব্যাপারে তৎপর রয়েছে। ইতিমধ্যে জাউয়া বাজারের আলমগীর, আক্কাস মিয়া, জসিম উদ্দিন এবং সুনামগঞ্জ সদরের উজ্জ্বল মিয়া নামের ৪ জন এজেন্টকে অর্থদ- দেওয়া হয়েছে।’
সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ্ খান বলেন,‘তীর শিলং এর বিষয়ে কোন ছাড় দেব না আমরা। এই বিষয়ে সকলের সহযোগিতা চাই। আমরা এজেন্টদের খুঁজছি, যে কেউ আমাদের ফোনে ম্যাসেজ দিয়ে এই সংক্রান্ত তথ্য দিলেই অ্যাকশনে যাব।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24