বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:২০ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরের শিক্ষা সংগ্রামী প্রনবের গল্প

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩ আগস্ট, ২০১৭
  • ৪৯ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:: জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের কলকলিয়া এলাকায় ছোট একটি খুপরিতে অন্যর বাড়িতে মায়ের সঙ্গে থাকে প্রনব দাস। বাবা মারা যাওয়ার পর দুই ভাই এক বোনকে নিয়ে অসহায় মা কাকা নিরঞ্জন দাসের জায়গায় একটি খুপরিতে সবাইকে নিয়ে আছেন। বাড়ি বাড়ি ঝিয়ের কাজ করে ছেলে মেয়েদের ভরণপোষন ও পড়ালেখার খরচ জোগানোর চেষ্ঠা করেন। মাকে সহযোগীতা ও নিজের পড়ালেখার খরচ জোগাতে মাছ ধরে তা বাজারে বিক্রি করে প্রনব। কলকলিয়া ইউনিয়নের আটপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার বিজ্ঞান বিভাগে ৪,৭৭ পেয়ে শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি হয়েছে সে। শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ এম এ মতিন বলেন, ছেলেটির আর্থিক অসঙ্গতির কথা জানতে পেরে তাকে আমরা কলেজে ভর্তির ব্যবস্থা করেছি।
জীবন সংগ্রামে হার না মানা অদম্য মেধাবী প্রনব দাসের মা প্রভাষী রানী দাস বলেন, অভাবের সংসার ছেলেটি প্রায় দিনিই খেয়ে না খেয়ে স্কুলে গেছে। পরিবারের খরচ জোগাতে মাছ ধরা ও বিক্রির কাজ করেছে। পড়ালেখার প্রতি বিশেষ টান থাকায় ঘরে পড়ার ব্যবস্থা না থাকায় গ্রামের লিকন দাসের বাড়িতে গিয়ে বাংলাঘরে থেকে পড়ালেখা করেছে। পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে সকালে ও সন্ধ্যায় টিউশনি করছে। কলেজে অধ্যক্ষের সহযোগীতায় ভর্তি হয়েছে ঝিয়ের কাজ করে বই কেনা,সংসার চালানো ও কীভাবে পড়ালেখার খরচ চালাব চিন্তাায় আছি।
তিনি আরো জানান, দুই ভাই এক বোনের মধ্যে দ্বিতীয় প্রণব। বড় ছেলে বিয়ে করে সবাইকে ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে ছোট মেয়ে ব্র্যাক স্কুলে চতুর্থ শ্রেণীতে পড়ে। অভাব অনটন ও অসুস্থ স্বামীর চিকিৎসা খরচ জোগাতে মাথাগোঁজার ঠাঁই ভিটেমাটি বিক্রি করে আত্বীয় নিরঞ্জন দাসের জায়গায় বসবাস করছি। ২০১২ সালে স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে ছোট ছোট ছেলে মেয়েদেরকে নিয়ে তিনি অসহায় অবস্থায় দিনযাপন করছেন।
দারিদ্রতার সাথে সংগ্রাম করে দৃঢ় প্রত্যয়ে এগিয়ে যাওয়া প্রনব দান জানায়, আটপাড়া উচচ বিদ্যালয়ের শিক্ষক কাওছার আহমদ ও সহপার্টি সাদিকুর রহমান সৌরভ সবসময় আর্থিকভাবে সহযোগীতা করেছেন। রাতে কেরেসিনের জন্য পড়তে পারতাম না কাওছার স্যার ও বন্ধু সৌরভ সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিতেন। ফরমপূরণ এডমিটকার্ড সংগ্রহসহ যখনি বিপদে পড়েছি তারা সহযোগীতা করেছেন। এবার কলেজ অধ্যক্ষের সহযোগীতায় কলেজে ভর্তি হলেও বই কিনতে পারছে না। প্রনব আরো জানায়,অর্থিক সুযোগ পেলে এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ অর্জন করে যোগ্য নাগরিক হয়ে তৈরী হতে চাই।
শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ এম এ মতিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,জীবনসংগ্রামে হার না মানা প্রনবের মতো দ্রারিদ্যবিজয়ী শিক্ষার্থীরাই স্কুল কলেজে ভাল ফলাফল করছে। পড়ালেখার প্রতি তাদের বিশেষ আকর্ষন রয়েছে। সুযোগ পেলে এসব শিক্ষার্থীরা উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে যোগ্য নাগরিক হয়ে দেশের কল্যাণে কাজ করবে। তাই এসব শিক্ষার্থীদের সহায়তায় সমাজের বৃত্তবান শিক্ষানুরাগীদের এগিয়ে আসা দরকার। উল্লেখ্য গত ৩০ জুলাই সুনামগঞ্জের খবর পত্রিকার পক্ষ থেকে প্রনব দাসকে শিক্ষা সংগ্রামী সন্মাননা প্রদান করা হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24