শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:১৪ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরের সন্তান স্কুল ছাত্র সাঈদ হত্যার এক বছরেও শংকা কাটেনি পরিবারের

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১১ মার্চ, ২০১৬
  • ৩৬ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের খাসিলা গ্রামের সন্তান সিলেট নগরীর রায়নগরে অপহরণ করে শিশু সাঈদ হত্যার এক বছর পূর্ণ হয়েছে, কিন্তু আজও শান্তনা খুঁজে পাচ্ছে না শিশুটির পরিবার। অন্যদিকে, সিলেটের নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনালে দ্রুততম সময়ে এ হত্যাকান্ডের বিচার হলেও শংকা কাটছে না সাঈদের পরিবারের।
সাঈদের বড় মামা ঝেরঝেরি পাড়ার বাসিন্দা জয়নাল আবেদিন জানিয়েছেন, সাঈদের মা-বাবা এখনো স্বাভাবিক হতে পারেন নি। গত একবছরে কেবল শূন্যতা ছাড়া আর কিছু পাননি তারা। এতদিনেও তাদের পাশে এসে দাঁড়াননি কেউ।
সাঈদের পরিবারের দাবি, মামলার রায়ে আসামীদের যে শাস্তি দেওয়া হয়েছে উচ্চ আদালতেও সেই রায় বহাল রাখতে হবে। একই সাথে দ্রুততম সময়ের মধ্যে এই রায় বাস্তবায়ন করতে হবে। অন্যথায়, অপরাধীরা পার পেয়ে যাবে এবং দেশে শিশু হত্যার ঘটনা অধিক হারে বেড়ে যাবে।
গত বছরে সাঈদ থেকে শুরু করে রাজন, হবিগঞ্জে চার শিশুসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সংগঠিত শিশু হত্যার বিচার ও দ্রুত কার্যকরিতা দাবি করেন। তিনি বলেন, সাঈদ হত্যার মধ্য দিয়ে দেশে শিশু হত্যার মিছিল শুরু হয়। তাকে হত্যার দৃষ্টান্তমূলক বিচার ও রায় দ্রুত বাস্তবায়ন হলে অপরাধীরা শিশু হত্যায় উৎসাহি হওয়ার সুযোগ পেতো না। তাই, এখনই থামাতে হবে।
গত বছরের ১১ মার্চ নগরীর কুমারপাড়া এলাকা থেকে অপহরণ করা হয় প্রাইমারি স্কুল ছাত্র শিশু আবু সাঈদ (৯) কে। সাঈদ নগরীর শাহ মীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিল। অপহরণের তিনদিন পর ১৪ মার্চ নগরীর ঝর্ণারপাড় সোনাতলা এলাকায় পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান পুতুলের বাসার ছাদের চিলেকোঠা থেকে বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।
২৩ সেপ্টেম্বর এ মামলায় চারজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন কোতোয়ালি থানার (ওসি-তদন্ত) মোশাররফ হোসেন। গত বছরের ৩০ নভেম্বর সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আব্দুর রশিদ মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে
বরখাস্তকৃত পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান পুতুল, সিলেট জেলা ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাকিব ও পুলিশের কথিত সোর্স আতাউর রহমান গেদাকে ফাঁসির আদেশ দেন আদালত। অপহরণ করে মুক্তিপণ চাওয়া ও ৩০২/৩৪ ধারায় হত্যার দায়ে দু’বার করে ফাঁসির আদেশ পান আসামিরা। রায়ে তাদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে দু’বারে দুই লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো এক বছর করে দু’বারে দুই বছরের কারাদন্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় অপর আসামি ওলামা লীগ নেতা মুহিবুর রহমান মাসুমকে খালাস দেন আদালত।
তবে দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিচারকাজ সম্পন্ন হওয়া সিলেটের শিশু শেখ সামিউল আলম রাজন হত্যা ও খুলনায় শিশু রাকিব হত্যা চেয়েও এ মামলার বিচার রেকর্ড সময়ে শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।
আদালতের পিপি আব্দুল মালেক জানিয়েছেন, সিলেটের অপর শিশু রাজন ও খুলনার খুলনার শিশু রাকিব হত্যার মামলার চেয়েও স্কুলছাত্র শিশু আবু সাঈদ হত্যার মামলার রায় দ্রুততম সময়ের মধ্যে হয়েছে। আসামীপক্ষ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করেছে। আশা করি উচ্চ আদালতও দ্রুততম সময়ে আপিল নিষ্পত্তি করবেন।
আদালত সূত্র জানায়, শিশু সাঈদ হত্যা মামলায় ৩৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ২৮ জনের স্যাগ্রহণ করা হয়। ১৭ নভেম্বর অভিযোগ (চার্জ) গঠনের মাধ্যমে শিশু সাঈদ হত্যা মামলার বিচারকাজ শুরু হয়। মাত্র ৮ কার্যদিবসে শেষ হয় সাক্ষ্য গ্রহণ ও যুক্তিতর্ক। এর মধ্যে গত ২৬ নভেম্বর এ আদালতে স্যাগ্রহণ শেষে ৩৪২ ধারায় আসামিদের বক্তব্য পরীক্ষা ও আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24