শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বোরকা পরে সমাবর্তনে যাওয়ায় প্রথম হয়েও স্বর্ণপদক পেলেন না নিশাত জগন্নাথপুরে কাল শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না মিরপুরে প্রতীক বরাদ্দের আগেই প্রচারণায় প্রার্থীরা! জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে টমটম চালকের আত্মহত্যা জগন্নাথপুরে শিল্পকলা একাডেমির সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর বাজারকে সিসি ক্যমেরার আওতায় আনতে মতবিনিময়সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিছন্নতা সামগ্রী ও প্রচারপত্র বিতরণ কার্যক্রম শুরু রাতভর ৪ ক্যাসিনোতে অভিযান নারায়ণগঞ্জে মা ও দুই মেয়েকে গলা কেটে হত্যা যুক্তরাজ‌্যে বসবাসতরত জগন্নাথপুরের আ.লীগ পরিবারের মিলনমেলা

জগন্নাথপুরে কালবৈশাখী ঝড়ে শতাধিক গবাদিপশুর মৃতদেহ উদ্ধার, নিখোঁজ আরো শতাধিক গরু

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৭ মে, ২০১৫
  • ২৮ Time View

স্টাফ রিপোটার::জগন্নাথপুরে কালবৈশাখী ঝড়ে প্রায় শতাধিক গরুর প্রাণহাণি ও দুই শতাধিক কাচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে প্রচন্ড বেগে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড়ে উপজেলার চিলাউড়া-হলদিপুর,কলকলিয়া, পাইলগাঁও,রানীগঞ্জ, আশারকান্দি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের দুই শতাধিক কাচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হওয়ার পাশাপাশি নলুয়ার হাওরের ভূরাখালি দাসনোওয়াগাঁও, হরিনাকান্দি,শেখহাট্রি,কান্দারগাঁও গ্রামের কৃষকদের কমপক্ষে শতাধিক গরু কালবৈশাখী ঝড়ের সময় মারা গেছে। ক্ষতিগ্রস্থ গরুর মালিকরা হলেন, কদ্দুছ মিয়া, রাজন মিয়া,কাইয়ুম মিয়া,মন্তেশর আলী,আল আমীন,মিজানুর রহমান,রমজান মিয়া,শাহী মিয়া,তারা মিয়া,চৈইদ মিয়া,ফজলু মিয়া। কালবৈশাখী ঝড়ে হাওরে থাকা এসব মালিকদের শতাধিক গরু মারা গেছে। এখন পর্যন্ত নিখোঁজ রয়েছে আরো অর্ধশতাধিক গরু বলে মালিকরা জানিয়েছেন। হরিনাকান্দি গ্রামের সুন্দর আলী বলেন, তার ৫টি গরুর মধ্যে দুটির মৃত পাওয়া গেছে। এখনও নিখোঁজ রয়েছে আরো তিনটি।
একইভাবে ভূরাখালি গ্রামের মন্তেশ্বর আলীর দশটি গরুর মধ্যে ছয়টির মারা গেছে। চারটি নিখোঁজ রয়েছে। দাসনোওয়াগাঁও গ্রামের শাহী মিয়া জানান, অনেক কষ্ট করেন একটি গাভী ক্রয় করেছিলেন। এটি মারা যাওয়ায় তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। সরেজমিনে দেখা গেছে, নলুয়ার হাওরের কামারখালী নদীর তীরে এলাকার আশপাশ কয়েক গ্রামের কৃষকরা গরুর সন্ধানে ভীড় করছেন। নদী জুড়ে গরুর মৃতদেহগুলো ভেসে উঠছে। গৃহস্থরা নিজ নিজ গরু চিহিৃত করে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছেন।
চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন , আমার ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের শতাধিক গরু কালবৈশাখী ঝড়ে মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আমরা গবাদিপশু ও কাচা ঘরবাড়ি ক্ষয় ক্ষতির তালিকা তৈরী করছি।
পাটলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজুল হক জানান, পাটলী ইউনিয়নের ঘাটিয়ার হাওরে শীলাবৃষ্টিতে বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির জানান,কালবৈশাখী ঝড়ে গবাদিপশু মৃত্যুর খবর পেয়েছি। তবে কোন হতাহত হয়নি। কিছু কাচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্থ হয়েছে। আমরা স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে তালিকা তৈরী করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24