বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:১১ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে গণহত্যা: মুক্তিযুদ্ধের এক অত্যুজ্জ্বল অধ্যায়

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩১ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৮৬ Time View

আবুল কাশেম আকমল:: মহান মুক্তিযুদ্ধ ছিল বাংলাদেশের আপামর জনসাধারণের আত্মপরিচয়ের সংকট উত্তরণের এক ক্রান্তিকাল। এসময় এদেশের সকল শ্রেণি, পেশাজীবি ও গোষ্ঠীর একাত্ম হয়ে এ সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেছে। কম বেশি অবদান রেখেছে এদেশের প্রতিটি জনপদ। এমনই একটি জনপদ সুনামগন্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলা। বিভিন্ন সময়ে সংঘটিত আন্দোলন সংগ্রামে এই অঞ্চল যেমন ছিল সোচ্চার, তেমনি একাত্তরে আমাদের জাতীয় জীবনের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা মুক্তিযুদ্ধেও রয়েছে গৌরবময় ভ’মিকা।

এ উপজেলার শত শত লোক মুক্তি সংগ্রামে অংশ গ্রহন করে পাকিস্তানী দখলদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধ করেছে বীর দর্পে। দেশ মাতৃকার স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার্থে অনেকে প্রাণ বিলিয়ে দিয়েছে অকাতরে। ব্রিটেন প্রবাসী বিপুল সংখ্যক বাঙালী হাজার হাজার পাউন্ড চাঁদা সংগ্রহ করে মুজিব নগরস্থ অস্থায়ী বিপ্লবী সরকারের কাছে পাঠিয়েছে সেই সময়।
আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে জগন্নাথপুর উপজেলায় ভয়াবহ দু‘টি গণহত্যা সংঘটিত হয়। উপজেলার পুর্ব প্রান্তে অবস্থিত মীরপুর ইউনিয়নের এক নিভৃত পল্লী সিরামিশী গ্রাম ও ভাটি অঞ্চলের নামকরা ব্যবসা কেন্দ্র রানীগঞ্জ বাজারে। মাত্র একদিনের ব্যবধানে সংঘটিত হয় হত্যাকান্ড দু‘টি। যা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অত্যুজ্জ্বল অধ্যায়।
সিরামিশী গ্রামে গণহত্যাটি সংঘটিত হয় ১৯৭১ সালের ৩১শে আগস্ট। ঐ দিন সকালে ঘাতক হানাদারদের এদেশীয় দালালরা পাক বাহিনীকে নিয়ে এসে সিরামিশী গ্রামের হাইস্কুলে বসিয়ে রেখে এই মর্মে প্রচার চালায় এলাকায় শান্তি রক্ষার জন্য সভা হবে। স্থানীয় স্কুলের শিক্ষক, আলেম, অফিস কর্মচারী, ইউপি সদস্য, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সাধারণ মানুষসহ প্রায় ১৫০ জন লোক সেখানে সমবেত হয়। পাকিস্তানের পক্ষে শান্তি কমিটি গঠন করতে অস্বীকৃতি জানালে পাক বাহিনী সমবেত লোক গুলোকে কাতার বন্দী করে পেছনে হাত নিয়ে রশি দিয়ে শক্ত করে বেঁধে আব্দুর রহিম ও নজির মিয়ার বাড়ির পুকুর ও পার্শবতী খালের পাড়ে নিয়ে গিয়ে নির্বিচারে গুলি চালায়। এ সময় অনেকেই পানিতে ঝাঁপ দিয়ে প্রাণে বাঁচার চেষ্টা করলে তাদেরকে পানি থেকে তুলে এনে আবারো পাখির মতো গুলি করে হত্যা করে পাষন্ডরা। লাশ ফেলে দেয় পুকুর ও পার্শবতী খালে। শুধু নারকীয় এই হত্যাযজ্ঞ চালিয়েই ক্ষান্ত হয়নি হায়েনারা। তারা ব্যাপক লুটপাট চালিয়ে সারা গ্রামে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে প্রায় দু’শ ঘরবাড়ি পুড়ে যায়। এ ঘটনায় যায় প্রাণ হারায় তাদের চুড়ান্ত তালিকা পাওয়া যায়নি। যাদের নাম পাওয়া গেছে তারা হলেন- ছাদ উদ্দিন আহমদ (প্রধান শিক্ষক সিরামিশী উচ্চ বিদ্যালয়), মৌলানা আব্দুল হাই, সত্যেন্দ্র নারায়ন চক্রবর্তী, এহিয়া চৌধুরী, সৈয়দ আশরাফ হোসেন, শফিকুর রহমান, ফিরোজ মিয়া, সুনু মিয়া, আলা মিয়া, সমুজ মিয়া, সমসু মিয়া গেদু, নজির মিয়া, আব্দুল মান্নান, ওয়ারিছ মিয়া, মানিক মিয়া, আব্দুল জলিল, দবির মিয়া, আব্দুল মনাফ, মরম উল্লা, মন্তাজ আলী, ছোয়াব উল্লা, রইছ উল্লা, আব্দুল মজিদ, আব্দুল লতিফ, এখলাছ আলী, মুক্তার মিয়া, ছমির আলী, জহুর আলী, নুর মিয়া, তৈয়ব আলী, রোয়াব আলী, মছদ্দর আলী, আ: রুপ মিয়া, ডা: আব্দুল মান্নান, তফজ্জুল আলী, মরম আলী, রুস্তম আলী, আছাব আলী, আব্দুল হান্নান, আ: বারিক, ইয়াহিয়া, সুদাংসু, সত্যেন্দ্র চক্রবতীর্, নারায়ন সেন ও ডাক পিয়ন (নাম অজ্ঞাত)।

গুলিবিদ্ধ হয়েও বেঁচে যান- জোয়াহের/জওয়াহিদ চৌধুরী, হুসিয়ার আলী, আলকাছ মিয়া, ইলিয়াছ আলী, ছফিলউদ্দিন, আব্দুল লতিফ, তপন চক্রবর্তী, আমজাদ আলী, বশির আলী, সুন্দর আলী সহ নাম না জানা আরোঅনেকে।

উপজেলার এক বিশিষ্ট জনপদ রানীগন্জ বাজার। ভাটি অঞ্চলের বিখ্যাত নদীবন্দর। এই নদীবন্দর তখন ব্যবসা-বাণিজ্য সহ নানা ক্ষেত্রে অত্র অঞ্চলের নাভিকেন্দ্র হিসাবে ভূমিকা রাখছিল। মহান মুক্তিযুদ্ধে রানীগন্জ ছিল ভাটির মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য এক চমৎকার গ্রীন ফিল্ড। ফ্রন্ট লাইন থেকে দূরে অবস্থান হলেও নৌ যোগাযোগ ও বিভিন্ন কারণে এটি গেরিলা ও পাক সেনা উভয়ের কাছেই ছিল সমান গুরুত্বপূর্ণ। আর এখানকার মানুষ ছিল স্বভাবতই মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সহনশীল। বাজারের ব্যবসায়ীরাও নগদ অর্থ দিয়ে, কখনও অন্যান্য ভাবে রসদ জুগিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্য সহযোগিতা করত।্ এ খবর এক সময় পৌছে যায় হানাদার ক্যা¤েপ। মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা করার অপরাধে তারা রানীগন্জ বাজারে চালায় নারকিয় হত্যাযজ্ঞ।

দেশে যুদ্ধ; সবার মাঝেই উদ্বেগ উৎকন্ঠা। তারপরও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কিনতে বাজারে এসেছে নানা এলাকা থেকে নানান লোক। এসময় বাজারে প্রায়ই আসত পাক সেনারা। এসে মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাপারে খোঁজ খবর নিত। সেদিনও অর্থাৎ সেপ্টে¤বরের ১তারিখ বুধবার তারা এলো। সবাই ভাবে পাক আর্মি অন্য দিনগুলোর মতো এসেছে। কিন্তু কেউ জানতোনা তাদের দুরভিসন্ধি। এমনকি পার্শবর্তী ইউনিয়নে আগের দিন সংঘটিত হত্যাকান্ডের ব্যাপারেও কেউ ওয়াকিফহাল ছিল না। ঘাতক বাহিনী তাদের সহযোগী রাজাকারদের দিয়ে বাজারের লোকজনকে ডেকে রজাক মিয়ার দোকানে জড়ো করে প্রস্তাব দেয় শান্তি কমিটি গঠনের। ব্যবসায়ীরা এতে রাজি না হলে এক এক জন করে রুম থেকে বের করে বাজারের গলিতে নিয়ে এসে তাদের লাইন করে এক দড়িতে বাধে দোকানে বসা লোকজন ভাবতেই পারছিলনা এরকম কিছু বাইরে ঘটছে। পাক আর্মি সবাইকে বাঁধার পর নৌকা থেকে গোলা বারুদের বস্তা নামায়। সবাই বুঝে ফেলে আর বাঁচার কোন আশা নেই। জোহরের নামাজের সময় হওয়ায় সবাই নামাজ পড়তে চাইলে ওরা কাউকে নামাজ পড়তেও দিলোনা! ভয়ার্ত লোকগুলো যে যতটুকু জানে সূরা-কালাম পড়তে শুরু করে। হানাদাররা সবাইকে মাটিতে বসতে বলে আর তখনই শুরু করে ব্রাশ ফায়ার।্ আকাশ বাতাস বিদীর্ণ করে আতর্ চিৎকারসহ লোকগুলো লুটিয়ে পড়ে মাটিতে। অনেকের তখনো নি:শ্বাস বন্ধ হয়নি, হাত পা ছুড়ে আর্তনাদ করছে। পাষন্ডরা দড়িতে বাঁধা লোকগুলোকে পশুর মত টেনে নিয়ে কুশিয়ারা ও রতœা নদীর মোহনায় ফেলে দেয়।্ রক্তে লাল হয়ে যায় নদীর পানি! তারপর পেট্রোল ঢেলে বাজারে ধরিয়ে দেয় আগুন। সে আগুনে পুড়ে যায় শ’খানেক দোকান ঘর। আগুনের লেলিহান শিখা দেখা যায় দূর দূরান্ত থেকে।

পাক আর্মিরা নৌপথে ফিরে যায় তাদের ক্যা¤েপ। ততক্ষনে পার্শবর্তী গ্রামগুলোতে ছড়িয়ে গেছে মিলিটারিদের নৃশংসতার খবর।্ গ্রামের লোকজন ছুটে আসে বাজারে। নদী থেকে টেনে তুলে লাশ আর আহতদের। কান্নার রোল উঠে চারদিকে। এ হত্যাযজ্ঞের শিকার হন প্রায় শতাধিক লোক। শহীদদের লাশ তাদের পরিবার পরিজনরা নিয়ে যেতে পারলেও কুশিয়ারা নদীর স্রোতে ভেসে যাওয়া অনেকের লাশের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। থানা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও স্থানীয় সূত্রে যে সকল শহীদের নাম উদ্ধার করা গেছে তারা হলেন- মো: আকলু মিয়া (বাজার কমিটির তৎকালিন সভাপতি), আনোয়ার হোসেন, আকিল হোসেন, ফজিল মিয়া, জাফর আলী, তছর উদ্দিন, আলতা মিয়া, সোনাহর আলী, মদরিছ উল্লা, আব্দাল মিয়া, মন্তাজ আলী, ধন মিয়া, হুসিয়ার আলী, মিছির আলী, আব্দুল হেকিম, ফয়জুর রহমান, আব্দুল মজিদ, সিরাজুল ইসলাম, মাসুক মিয়া, ইউসুফ আলী, বুরহান উদ্দিন, নুরুল ইসলাম, আব্দুল মমিন, নুর মিয়া, নুর উদ্দিন, ছয়েফ উদ্দিন, আতাউর রহমান, আব্দুল আজিজ, গৌছুল মিয়া, মদব্বির মিয়া, মকবুল হেসেন, জলিল মিয়া, আব্বাছ মিয়া, সুবেদার মিয়া, তাজুদ মিয়া প্রমুখ। পঙ্গুত্ব বরণ করেন- মো: আকল মিয়া, মজমিল মিয়া, বিনোদ রায়। গুলিবিদ্ধ হন- ক্বারী এখলাছুর রহমান, তফজ্জুল হোসেন, ইসলাম উদ্দিন চৌধুরী, আলকাছ মিয়া সহ নাম না জানা আরো অনেকে।।

সিরামিশী ও রানীগঞ্জ বাসী আজো ভুলতে পারেনি তাদের সেই সূর্য সন্তানদের। প্রতি বছর ৩১শে আগস্ট সিরামিশীবাসী ও ১লা মেপ্টেম্বর রানীগঞ্জবাসী পালন করে আঞ্চলিক শোক দিবস হিসাবে। শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করে আর ব্যাথা বুকে বলে ‘স্মরণে নিবিড় স্বপনে গভীর, ভুলিনি তাদের আত্ম বিসর্জন‘।

লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত এ স্বাধীন ভূখন্ড। উত্তরসুরী হিসাবে আমাদের উচিত তাঁদের আত্মার প্রতি সম্মান দেখিয়ে শহীদদের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে সুখী, সমৃদ্ধ ও দূর্নীতি মুক্ত বাংলাদেশ গড়া।

লেখক: সাধারণ সম্পাদক- শহীদ গাজী ফাউন্ডেশন, রানীগন্জ, জগন্নাথপুর, সুনামগঞ্জ।

তথ্য সূত্র: সিলেটে গণহত্যা তাজুল মোহাম্মদ

রক্তাক্ত ৭১ সুনামগঞ্জ -বজলুল মজিদ খসরু

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24