সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে গরুর বদলে লাঙ্গল টানছে দুই শিশু

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ৪৬ Time View

স্টাফ রিপোর্টার :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর-পাগলা সড়কের পাশে মমিনপুর হাওরে অনাবাদি জমিতে এক কৃষক দুই শিশুকে নিয়ে লাঙ্গল দিয়ে চাষাবাদ করছেন। রোববার দুপুরে এমন দৃশ্য দেখা যায় মমিনপুর হাওরে। কথা হয় কৃষক অনিল দেবনাথের সাথে। তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, দুই বছর বোরো ফসল হারিয়ে তিনি নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। আট সদস্যর পরিবার নিয়ে তিনি খেয়ে না খেয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। পাননি সরকারি বেসরকারি কোন সুবিধা। হালের কোন বলদ না থাকায় নিজের দুই ছেলেকে নিয়ে লাঙ্গল দিয়ে সবজি চাষাবাদ করছি।
মমিনপুর হাওরের কৃষকরা জানান, এক সময় মমিনপুর হাওরে সবুজের সমারোহ ছিল। বেশ কয়েক বছর ধরে পলি পড়ে হাওরটি অনাবাদি জমিতে পরিণত হয়েছে। সেই অনাবাদি জমিতে বোরো আবাদের চেষ্ঠা করেও পানি সংকটের কারণে বোরো আবাদ করতে পারছেন না কৃষকরা।
কৃষক অনিল দেবনাথ জানান, নিজের কোন জায়গা জমি নেই। ছেলে মেয়ে স্ত্রী নিয়ে তিনি অন্যর জায়গায় বসবাস করেন। জীবিকার তাগিদে মমিনপুর হাওরের অনাবাদি জমিতে গত দুই বছর ধরে বোরো আবাদ করছেন। অনেক কষ্টে পানি এনে আবাদ করে ফসলের দেখা পেলেও প্রকৃতির বিরূপ প্রভাবে ফলন ঘরে তুলতে পারেননি। এবার তিনি নিরুপায় টাকা পয়সা না থাকায় গরু কিংবা ট্রাক্টর দিয়ে চাষাবাদ করার ক্ষমতা নেই। তাই দুই ছেলে কে নিয়ে লাঙ্গল দিয়ে চাষাবাদ করছেন। স্ত্রী সরলা বালা দেবনাথ সহযোগীতা করছেন।
কৃষক অনিল দেবনাথের ছেলে দ্বিপক দেবনাথ ও ইমন দেবনাথ জানান, বাবার কষ্ট দেখে আমরা দুই ভাই বাবাকে সহযোগীতা করছি। চার বোন ও দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় দুই বোন কলেজে ও ছোট দুই বোন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করছে।
অনিলের স্ত্রী সরলা দেবনাথ জানান, খুব কষ্টে এবার সংসার চলছে। বড় ছেলে পড়ালেখা বন্ধ হয়ে বাবাকে সহযোগীতা করছে। ছোটছেলেসহ মেয়েদেরকে কষ্ট করে পড়ানোর চেষ্ঠা করছি। স্বামী ও সন্তানের কষ্ট দেখে নিজেও এসেছি তাদেরকে সহযোগীতা করতে।
মমিনপুর হাওরপাড়ের বাসিন্দা ইজলা গ্রামের কৃষক আয়াছ মিয়া বলেন, কৃষক অনিল দেবনাথ খুব কষ্ট করছেন। কাকডাকা ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তাকে দেখা যায় কৃষিকাজ করতে।
জগন্নাথপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র সুহেল মিয়া জানান, কৃষক অনিল দেবনাথ ৭নং ওয়ার্ডে বসবাস করলেও তিনি ৯নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা তাই তাকে সহায়তা করতে পারিনা।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, কৃষক অনিল দেবনাথ নিজের জমি না থাকার পরও অন্যর জমিতে চাষাবাদ করছেন। তাঁরমতো কৃষকরা হাওর অঞ্চলকে ঠিকিয়ে রেখেছেন। সামান্য সার বীজ দিয়ে তাকে সহায়তা করা হয়েছে। সুযোগ পেলে তিনি কৃষিতে ভাল করতে পারতেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24