শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরে ট্রাক চালক শফিকের আকস্মিক মৃত্যুতে শোকাহত স্থানীয়রা

স্টার রিপোর্টার::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ১৫৬১ Time View

মালামাল পৌছে দেয়ার জন্য দুই হাজার টাকার একটি ট্রিব পেয়েছেন ট্রাক চালক শফিকুল ইসলাম (শফিক মিয়া)। তাই গাড়ির তেল (পেট্রোল) নেয়ার জন্য খুশি মনে গেলেন পেট্রোলের দোকানে। সেখানে গাড়ি স্ট্যান্ড করেই ষ্টিয়ারিংয়ের সিটেই ঢলে পড়লেন। স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ কেন্দ্রে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে এই মর্মান্তিক হৃদয় বিদারক ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর পৌরশহরের ইকড়ছই আবাসিক এলাকায়। চালকের আকস্মিক মৃত্যুতে মুর্হুতেই এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। রাত ১১টায় জানাজা নামাজ শেষে তাকে জগন্নাথপুরে দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে। জানাজায় শোকার্ত মানুষের ঢল নামে।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলা সদরের জগন্নাথপুর বাজারের নিকটবর্তী শহরের ইকড়ছই আবাসিক এলাকায় পরিবার পরিজন নিয়ে ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছিলেন শফিকুল ইসলাম (৪০)। তিনি কিশোরগঞ্জের ভৈরব এলাকার মৃত সুলতান হোসেনের ছেলে। শফির মিয়া ছোটবেলা থেকে মা বাবা সঙ্গে ইকড়ছই এলাকায় বসবাস করে আসছিল। মা, স্ত্রী, এক বোন এবং দেড় বছরের এক শিশু ছেলে তিনি সুখে কাটছিল তাঁর সংসার। অনেক দিন ধরেই শফিক মিয়া জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলামের ট্রাকের চালক হিসেবে কাজ করছিলেন। বিভিন্ন বাজারে মালামাল ডিলিভারি দিয়ে থাকেন তিনি। দক্ষিণ সুনামগঞ্জের ভমভমী বাজারে মালামাল পৌছে দিতে দুই হাজার টাকার একটি ট্রিব (ভাড়া) পায় শফিক। গত সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে গাড়ি নিয়ে পেট্রোলের জন্য জগন্নাথপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের পৌরশহরের ইকড়ছই আবাসিক এলাকার একটি পেট্রোলের দোকানের সামনে গাড়ি স্ট্যান্ড করে ষ্টিয়ারিংয়ের সিটেই ঢলে পড়ে শফিক। স্থানীয়রা তাকে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। শফিকের অকাল মৃত্যু তাঁর মা, স্ত্রী বার বার কান্নায় মুর্ছা যাচ্ছেন। তাদের কান্নায় আকাশের বাতাস ভারি হয়ে উঠছে। প্রতিবেশীরা শোকাহত হয়ে পড়েছেন।

ট্রাক চালকের মালিক জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বিশ্বাসই হচ্ছে না শফিক আর নেই। সন্ধ্যার দিকে হাসিখুশি মুখে আমাকে জানায়, দুই হাজার টাকার একটি ট্রিব পেয়েছি। কিছুক্ষণের মধ্যে খবর পাই সে হঠাৎ করে অচেতন হয়ে পড়েছে। দ্রুত তাকে জগন্নাথপুরের হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা: ওমর ফারুক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই চালকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি হার্টের রোগি। বিশ কিছুদিন ধরে ঔষধ খাওয়া হয়নি তারা। এজন্যে ধারণা করছি, হৃদ ক্রীয়া বন্ধ হয়েই তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24